ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

শিল্পায়নে কৃষির ভূমিকা ও গুরুত্ব আলোচনা কর ।

প্রশ্নঃ শিল্পায়নে কৃষির ভূমিকা ও গুরুত্ব আলোচনা কর ।

উত্তরা ভূমিকা : দেশের সার্বিক আর্থসামাজিক উন্নয়নে কৃষিখাতের এবং পল্লি অঞ্চলের ভূমিকা সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে মানামুখী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে । মূলত কৃষি উন্নয়নের সাথে শিল্পোন্নয়ন ওতপ্রোতভাবে জড়িত । টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার প্রযুক্তির উদ্ভাবন করে কৃষিক্ষেত্রে ও খাদ্যশস্য উৎপাদনে দেশকে সমৃদ্ধ করার কাজে সহায়ক ভূমিকা পালন করে । নিম্নে বাংলাদেশের শিল্পোন্নয়নে কৃষির ভূমিকা ও গুরুত্ব আলোচনা করা হলো :

১. খাদ্যের যোগান : কৃষিকে অনুন্নত রেখে বর্তমান খাদ্য ঘাটতি কোনভাবেই দূর করা যাবে না । প্রতি বছর খাদ্য ঘাটতির জন্য আমাদেরকে প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করতে হয় । অতএব কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে যদি খাদ্যাভাব দূর করা যায় , তাহলে কৃষিপণ্য রপ্তানির মাধ্যমে অর্জিত আমাদের সমস্ত বৈদেশিক মুদ্রাই শিল্পোন্নয়নের জন্য যন্ত্রপাতি আমদানির উদ্দেশ্যে ব্যয় করা যাবে । ফলে শিল্পোন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত হবে ।

২. কৃষি উপকরণ উৎপাদনকারী শিল্পের প্রসার : পাম্প মেশিন , থ্রেসার , পাওয়ার টিলার , হারভেস্টিং মেশিন , কীটনাশক ঔষধ , নলকূপের পাইপ ইত্যাদি উৎপাদনকারী শিল্পের প্রসার কৃষিখাতের উন্নতির উপর নির্ভরশীল । সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে এ ধরনের শিল্প গড়ে উঠেছে । সুতরাং আমাদের কৃষিক্ষেত্রের ব্যাপক উন্নতি করা সম্ভব হলে এ ধরনের শিল্পকারখানা আরো বিস্তৃত আকারে গড়ে উঠবে ।

৩. মূলধন গঠন : কৃষি উন্নয়নের ফলে আমাদের কৃষকের আয় বাড়বে এবং তাতে দেশে মূলধন সঞ্চয় হবে । তাছাড়া কৃষি উন্নয়নের ফলে কৃষকদের কর প্রদান ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে সরাসরি রাজস্বের পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে । সরকারি রাজস্ব , মূলধন ও কৃষিক্ষেত্রে বিনিয়োগ করা সম্ভব হবে । এতে শিল্পোন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে ।

৪. শিল্পের কাঁচামাল : আমাদের শিল্পকারখানায় কাঁচামাল যোগায় কৃষি । বাংলাদেশের প্রধান প্রধান শিল্পসমূহ তথা পাট , বস্তু , চা , চিনি , কাগজ প্রভৃতি তাদের প্রয়োজনীয় কাঁচামালের জন্য সরাসরি কৃষির উপর নির্ভরশীল । আমাদের শিল্পোন্নয়নের প্রধান স্তম্ভ হলো পাট শিল্প । কৃষিখাতে যদি পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল উৎপাদন করা যায় এবং সেগুলো স্বল্পমূল্যে যোগান দেয়া যায় , তাহলে শিল্পগুলো বিশ্ব বাজারে আপেক্ষিক সুবিধা উপভোগ করতে পারবে এবং দ্রুত শিল্পায়ন হবে ।

৫. শিল্পজাত দ্রব্যের চাহিদা : কৃষির উন্নয়ন ঘটলে কৃষকদের মাথাপিছু আয় বাড়বে । ফলে গ্রামাঞ্চলে শিল্পজাত পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধি পাবে । সুতরাং শিল্পজাত পণ্যের বাজার বিস্তৃত করতে হলে কৃষি উন্নয়ন একান্ত অপরিহার্য ।

৬. উদ্বৃত্ত সৃষ্টি : শিল্প উন্নয়নের জন্য যে মূলধন প্রয়োজন তার জন্য অর্থনীতিতে উদ্বৃত্ত সৃষ্টি করা প্রয়োজন । বাংলাদশে এ উদ্বৃত্ত কৃষিখাতেই সৃষ্টি করা সম্ভব । বস্তুত বাংলাদেশের কৃষি যে উদ্বৃত্ত সৃষ্টি করেছে তা যদি পশ্চিম পাকিস্তানে পাচার না হয়ে যায় , তাহলে বাংলাদেশ শিল্পায়নে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারে । বর্তমানে দেশের মোট রপ্তানিতে এককভাবে কৃষিজাত প্রাথমিক পণ্যদ্রব্যের অবদান শতকরা প্রায় ৭ ভাগ । এছাড়া শিল্পজাত দ্রব্য বিশেষত পাট ও চামড়া রপ্তানিতে কৃষির অবদান অগ্রগণ্য । অতএব দেখা যাচ্ছে যে , উদ্বৃত্ত সৃষ্টি করাতে এবং শিল্পের মূলধন দ্রব্য আমদানি করার জন্য বৈদেশিক মুদ্রার যোগান দিতে কৃষির ভূমিকা অতি গুরুত্বপূর্ণ ।

৭. শিল্পের যন্ত্রপাতি : শিল্পোন্নয়নের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির জন্য আমাদেরকে বিদেশের উপর বহুলাংশে নির্ভর করতে হয় । কৃষিজাত পণ্য রপ্তানি করে আমরা যে পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা আয় করি তার মাধ্যমেই আমাদেরকে শিল্পের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও কাঁচামাল আমদানি করতে হয় । সুতরাং বাংলাদেশে শিল্পোন্নয়নের জন্য কৃষির উন্নয়ন একান্ত অপরিহার্য ।

৮. শিল্পে বিনিয়োগ বৃদ্ধি : কৃষিজাত পণ্য শিল্পের বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে । বাংলাদেশের কৃষির উন্নতি হলে প্রচুর পরিমাণ খাদ্য ঘাটতি দূর করে বৈদেশিক মুদ্রা শিল্পক্ষেত্রে বিনিয়োগ করা যাবে । এতে করে দেশের শিল্পোন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে ।

৯. খাদ্যশস্যের মূল্য : খাদ্যশস্যের মূল্যের উপর শিল্প শ্রমিকের মজুরির হাত বহুলাংশে নির্ভরশীল । কম দামে খাদ্যশস্যের যোগান অব্যাহত রাখতে পারলে শিল্প শ্রমিকের মজুরি নিম্ন স্তরে রাখা যাবে । অন্যদিকে , খাদ্যশস্যের দাম বাড়লে শ্রমিকেরা উচ্চ মজুরির জন্য পীড়াপীড়ি করবে এবং শ্রমিক অসন্তোষের সৃষ্টি হবে , ফলে শিল্পোন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে । সুতরাং কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে খাদ্যশস্যের দাম কমাতে পারলে তা দেশের শিল্পোন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে ।

১০. শিল্প শ্রমিকের খাদ্যের যোগান : শিল্পখাতে নিয়োজিত শিল্প শ্রমিকদের খাদ্য সংস্থান একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় । বাংলাদেশের কৃষিখাত খাদ্যের যোগান দেয় । কৃষি অনুন্নত থাকলে শিল্প শ্রমিকদের জন্য খাদ্য আমদানি করতে হবে এবং তা হবে শিল্পোন্নয়নের একটি অন্তরায় । অতএব বাংলাদেশে শিল্পোন্নয়নে কৃষির ভূমিকা অতি গুরুত্বপূর্ণ ।

১১. কাঁচামালের মূল্য হ্রাস : বাংলাদেশে কৃষি উন্নয়ন হলে কৃষি থেকে উৎপাদিত কাঁচামালের মূল্য হ্রাস পাবে । কাঁচামালের দাম কমলে আমাদের শিল্পের উৎপাদন খরচ কম হবে এবং এর ফলে মুনাফা ও আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি শিল্পের প্রতিযোগিতার ক্ষমতা বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে আমরা বলতে পারি যে , বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষি ও শিল্প উভয়ই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । শুধু কৃষি কিংবা শিল্পোন্নয়ন দ্বারা আমাদের জাতীয় আয়ের দ্রুত বৃদ্ধি সম্ভব নয় , তবে দেশের দীর্ঘকালীন উন্নয়নের কথা চিন্তা করলে কৃষির তুলনায় শিল্পকেই অধিক গুরুত্ব দিতে হবে । কারণ শুধুমাত্র কৃষির উপর নির্ভর করে দেশের অর্থনীতিকে উন্নত স্তরে পৌছে নিয়ে যাওয়া একেবারেই অসম্ভব । তাছাড়া ভূমির স্বল্পতা ও কৃষি প্রযুক্তির সীমাবদ্ধতার কারণে আমাদের দেশে কৃষির তুলনায় শিল্পোন্নয়নের সম্ভাবনার দিগন্ত অনেক বেশি দূর প্রসারিত । শ্রমের সহজলভ্যতার কারণে শ্রম প্রগাঢ় শিল্প প্রসারে বাংলাদেশের অমিত সম্ভাবনা রয়েছে । সুতরাং অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে বাংলাদেশে কৃষির তুলনায় শিল্পকেও প্রাধান্য দিতে হবে ।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!