ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

প্রত্যয় কত প্রকার ও কী কী

প্রশ্ন॥১৫৷ প্রত্যয় কত প্রকার ও কী কী?
অথবা, ধারণার শ্রেণিবিভাগ লিখ।
অথবা, ধারণা কত প্রকার ও কি কি?
অথবা, প্রত্যয়ের শ্রেণিবিভাগ দেখাও।

উত্তর৷ ভূমিকা : আইনস্টাইন বলেছিলেন যে, বিজ্ঞানের উদ্দেশ্য হলো ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য অভিজ্ঞতাসমূহের মধ্যে সম্পর্ক বুঝতে পারা এবং এ উদ্দেশ্য সাধনের জন্য যত কম সংখ্যক সম্ভব ধারণা ব্যবহার করা । কোনো ঘটনাকে ব্যাখ্যা করার জন্য হোক, কোনো জটিল বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য হোক অথবা কোনো তথ্যের বিবরণই হোক যখনই বিমূর্তভাবে তা করতে হলে ধারণার ব্যবহার করা হয়। তাই সামাজিক গবেষণার ক্ষেত্রে ধারণা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

ধারণা বা প্রত্যয় : সাধারণভাবে ধারণা হলো কতকগুলো পর্যবেক্ষণ সম্পন্ন ঘটনা, বস্তুত যা অভিজ্ঞতার বিমূর্ত প্রতিকৃৎ । একে যৌত্তিক ও প্রায়োগিক দুভাবেই সংজ্ঞায়িত করা যায় । প্রায়োগিক সংজ্ঞায় একটি ধারণাকে কি প্রক্রিয়ায় পরিমাপণ করা হবে বা কি পদ্ধতি অন্য ধারণা থেকে পৃথক করা হবে, তা নির্দেশ করা হয়। এ ধরনের সংজ্ঞা বিজ্ঞানীকে গবেষণার গ্রহণযোগ্য তথ্য সরবরাহে সাহায্য করে। যৌক্তিক সংজ্ঞায় বলা হয় ধারণার একটি সাধারণ অর্থ প্রকাশ করা হয় এবং বিজ্ঞানী কোন ধারণার
অন্তর্গত বৈশিষ্ট্য ও প্রক্রিয়াকে উল্লেখ করে । প্রত্যয় প্রধানত দু’প্রকার; যথা :
১. মূর্ত প্রত্যয় (Concrete concept),
২. বিমূর্ত প্রত্যয় (Abstract concept)।


১. মূর্ত প্রত্যয় : যেসব প্রত্যয়কে পর্যবেক্ষণ করা যায়, ধরা ছোঁয়া যায় এবং যার অবস্থিতি আছে সেসব প্রত্যয়কে মূর্ত প্রত্যয় বলে । যেমন- মানুষ, জীবজন্তু, গাছপালা ইত্যাদি ।
২. বিমূর্ত প্রত্যয় : গুণ বা বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে যেসব প্রত্যয়কে বুঝা যায়। কিন্তু ধরা ছোঁয়া যায় না, অবস্থিতি নেই, শুধু অনুভব করা যায়, তাকে বিমূর্ত প্রত্যয় বলে । যেমন- হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, সামাজিক শ্রেণি, গোষ্ঠী সংহতি ।
গবেষণায় ব্যবহৃত প্রত্যয়সমূহের সুস্পষ্ট ও যথাযথ সংজ্ঞা প্রদান করা বাঞ্ছনীয়। প্রত্যয় সংক্ষিপ্ত অথচ অর্থবোধগম্য হওয়ার মতো ব্যাপক হতে হবে। সাধারণত গবেষক সাধারণভাবে প্রচলিত কোনো শব্দ গ্রহণ করেন এবং সেই শব্দকে গবেষণার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে একটি পৃথক অর্থ দান করেন। ফলে সেই সাধারণ শব্দই গবেষণায় একটি নতুন অর্থ ও দ্যোতনা নিয়ে প্রকাশিত হয়। এজন্য সাধারণভাবে প্রচলিত শব্দাবলি বিভিন্ন সামাজিক গবেষণায় বিশেষ বিশেষ অর্থ প্রকাশ করে থাকে । একটি গবেষণার জন্য একটি প্রত্যয় যেন বিভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত না হয় গবেষককে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হয়। গবেষণার একটি প্রত্যয় গবেষক কি অর্থে ব্যবহার করেছেন তা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা শেষে বলা যায়, প্রত্যয় হলো মানুষের উচ্চমার্গীয় উপলব্ধির প্রমাণ। সমাজবিজ্ঞানে কোনো বিষয় বা সমস্যা সম্পর্কে তত্ত্ব গঠন এবং পূর্বানুমান পরীক্ষণ বা যাচাইয়ের ক্ষেত্রে প্রত্যয়ের প্রয়োজন অনস্বীকার্য । তাই বলা হয়, Concept is a tool for the researcher.

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!