ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

✍️ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ( WTO ) বাণিজ্য ব্যবস্থায় প্রাপ্ত ১০ টি সুবিধা কী কী ?

[ad_1]

✍️ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ( WTO ) বাণিজ্য ব্যবস্থায় প্রাপ্ত ১০ টি সুবিধা কী কী ?

উত্তর : বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বাণিজ্য ব্যবস্থায় প্রাপ্ত ১০ টি সুবিধাসমূহ হলো :

১. বাণিজ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠা ।

২. কার্যকরভাবে সমস্যার সমাধান ।

৩. নীতিমালা সবার জীবনকে সহজতর করে তুলেছে ।

৪. উন্মুক্ত বাণিজ্য জীবনধারণের ব্যয় হ্রাস করেছে ।

৫. এ বাণিজ্য ব্যবস্থা পণ্য ও পণ্যের গুণাবলি সম্পর্কে অধিকতর বেশি পছন্দের সুবিধা ও সুযোগ প্রদান করেছে ।

৬. বাণিজ্যের আয় বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

৭. এ বাণিজ্য ব্যবস্থা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করছে ।

৮. মৌলিক নীতিমালা জীবনের দক্ষতা বৃদ্ধি করেছে ।

৯. রাষ্ট্রপ্রধানরা অন্য রাষ্ট্রের তোষামদি থেকে নিজেদের আত্মরক্ষা করতে পারছে ও

১০. এ বাণিজ্য ব্যবস্থা একটি উত্তম রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা তৈরিতে উৎসাহ প্রদান করছে ।

✍️ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ( WTO ) চুক্তির মূল বিষয়সমূহ কী কী ?

উত্তর : বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার চুক্তির মূল বিষয়সমূহ নিম্নরূপ :

১. WTO হিসাবে চুক্তির রূপান্তর ।

৩. কৃষির উন্নয়ন ।

২. ১৯৪৭ – ৯৪ পর্যন্ত GATT হিসেবে পরিচিতি ।

৪. স্যানেটারি সুবিধা ।

৫. বস্ত্র ও পোষাক ।

৭. বাণিজ্য সংক্রান্ত পুঁজি বিনিয়োগ ।

৯. শুল্ক মূল্যায়ন ।

৬. বাণিজ্য কৌশলগত বাধা দূরীকরণ ।

৮. এন্টিডাম্পিং ( Antidumping ) ।

১০. প্রাক জাহাজীকরণ পরীক্ষা ।

১২. সাবসিডি ও তৎসংক্রান্ত বিষয়াদি ।

১৪. পরিসেবা ।

১১. আমদানি লাইসেন্স প্রক্রিয়া ।

১৩. নিরাপত্তা ।

১৫. বাণিজ্য সম্পর্কিত মেধা স্বত্ত্ব ।

১৬. বিতর্ক অবসান ।

১৮. বেসামরিক বিমান ব্যবসা ।

১৭. বাণিজ্য নীতি পর্যালোচনা ।

১৯. সরকারি ব্যবস্থাদি ।

✍️ ও.আই.সিতে বাংলাদেশের ভূমিকা সম্পর্কে লিখ ।

উত্তর ৷ ও . আই . সিতে বাংলাদেশ নিম্নলিখিত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে :

১. মুসলিম বিশ্বের সংহতি রক্ষা করা ।

২. মুসলিম বিশ্বের সদস্যদের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও সৌহার্দ্যবোধ সমুন্নত রাখা ।

৩. অভিন্ন সংস্কৃত চর্চায় সহযোগিতা করা ।

৪. পারস্পরিক বাণিজ্য বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করা ।

৫. অমুসলিম দেশগুলোর মধ্যে সুসম্পর্ক বৃদ্ধি করা ।

৬. পরিবর্তিত বিশ্ব ব্যবস্থার সাথে মুসলিম বিশ্বের তাল মিলিতে চলা ।

৭. ফিলিস্তিনসহ বিশ্বের মুসলিমদের স্বাধিকার আদায়ে উদ্বুদ্ধ করা ।

৮. মুসলিম দেশগুলোর অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখা ।

৯. আন্তর্জাতিক শান্তি প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভূমিকা । পরিশেষে বলা যায় যে , ও.আই.সিতে বাংলাদেশও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে ।

✍️ সাপটা ও সাফটার মধ্যে পার্থক্য কী ?

উত্তর- ভুমিকা : সাপটা ( SAPTA ) ও সাফটা ( SAFTA ) একই রকম মনে হলেও এদের মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য বিদ্যমান । সাপটা ও সাফটার মধ্যে পার্থক্য : নিম্নে পার্থক্যগুলো দেয়া হলো :

১. সাপটা ( SAPTA ) এর ইংরেজি কথার পূর্ণরূপ হলো ” South Asian Preferential Trading Arrangement . ” অপরদিকে , সাফটা ( SAFTA ) এর ইংরেজি কথার পূর্ণরূপ হলো , ” South Asian Free Trade Area . “

২. সাপটা ( SAPTA ) এর বাংলা অর্থ হলো , ” দক্ষিণ এশীয় অধিকতর বাছাই করা বাণিজ্য বোঝাপড়া । পক্ষান্তরে , সাফটা ( SAFTA ) এর বাংলা অর্থ হলো ” দক্ষিণ এশীয় অবাধ বাণিজ্য অঞ্চল ।

৩. সাপটার ( SAPTA ) সাফল্য ” সাফটা ( SAFTA ) সম্পর্কে বাস্তবায়িত করবে ।

৪. সাপটায় ( SAPTA ) আংশিকভাবে বাণিজ্য শুল্ককে রেহাই দেবার কথা বলা হয়েছে । পক্ষান্তরে , সাফটা ( SAFTA ) তে বাণিজ্য পণ্য পুরোপুরিভাবে শুল্ক ছাড়ের আওতায় আনা হয়েছে ।

৫. সাপটাতে বর্তমানে ২২৪ টি পণ্যদ্রব্যের ক্ষেত্রেই সুবিধাজনক শর্তের ভিত্তিতে ১০ % শুল্ক ছাড়ের কথা বলা হয়েছে । অপরদিকে , সাফটাতে সামগ্রিক শুল্কের ছাড় সমস্ত বাণিজ্যিক লেনদেনের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে । উপসংহার : সবশেষে বলা যায় যে , সাপটা চুক্তির প্রসার ঘটলে সাফটার উন্নয়ন ঘটবে । সাপটার উন্নয়নের উপর নির্ভর করে সাফটার উন্নয়ন । যেমন- সার্কের ৮ টি দেশের মধ্যে অভিন্ন অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে উঠবে । এ ব্যবস্থা কার্যকর হলে ৮ দেশেই আর্থিক দিক দিয়ে লাভবান হবে । এতে সাপটা ও সাফটার উন্নয়ন বৃদ্ধি পাবে । প্রশা ২৫৭ মুসলিম বিশ্বের স্বার্থ সংরক্ষণে ও.আই.সি কী কী পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করে ? উত্তর : মুসলিম বিশ্বের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য ও.আই.সি. গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে ।

মুসলিম বিশ্বের স্বার্থ সংরক্ষণে ও.আই.সি পদক্ষেপ : মুসলিম বিশ্বের স্বার্থ সংরক্ষণে ও.আই.সি এর পদক্ষেপ নিম্নে আলোচনা করা হলো :

১. জাতিসংঘে ভূমিকা : জাতিসংঘে ও.আই.সিকে একত্রে জোড়ালোভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে । প্রত্যেক সদস্য রাষ্ট্র যেন একই দৃষ্টিভঙ্গিতে তাদের দায়িত্ব পালন করে ।

২. নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্যপদ : ও . আই . সিকে চেষ্টা করতে হবে এর সদস্য রাষ্ট্রসমূহের মধ্য থেকে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পদ লাভ করার ।

৩. একতাবদ্ধ : মুসলিম দেশসমূহে যে কোন বহিঃশত্রুর আক্রমণের বিরুদ্ধে একযোগে সোচ্চার হয়ে ও.আই.সি সদস্যভুক্ত দেশসমূহকে কাজ করতে হবে ।

৪. আজ্ঞবাণিজ্য ব্যবস্থা : ইসলামিক অর্থনৈতিক বাজার ব্যবস্থা ও.আই.সিভুক্ত সদস্যসমূহের মাঝে চালু করতে হবে । এতে একপ্রকার আন্তঃবাণিজ্য ব্যবস্থা গড়ে উঠবে ।

৫. আরবলীগের সাথে সম্পর্ক : মুসলিম বিশ্বের অপর একটি শক্তিশালী সংগঠন আরবলীগের সাথে ও আই.সি একত্রে কাজ করে যেতে হবে । কারণ মৌলিক উদ্দেশ্য উভয়েরই এক ।

৬. অবাধ তথ্য প্রবাহ : মুসলিম বিশ্বের উন্নয়নের ও সমৃদ্ধির জন্য আগামী শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য ও.আই.সিভুক্ত দেশগুলোর আর্থসামাজিক , রাজনৈতিক ও সামাজিক তথ্য প্রবাহের ক্ষেত্রে অভিন্ন নীতি , কর্মসূচি ও অবস্থান গ্রহণ করতে হবে ।

৭. নিরাপত্তা জোট গঠন : মুসলিম বিশ্বের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য নিরাপত্তা জোট গঠন করা একান্ত প্রয়োজন ।

৮. অমুসলিম দেশের সাথে সম্পর্ক : অমুসলিম দেশসমূহের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখা দরকার ।

১0. শিক্ষা ও প্রযুক্তি : ও . আই . সি এর উন্নয়নের জন্য শিক্ষা ও প্রযুক্তির প্রসার ঘটানো প্রয়োজন ।

উপসংহার : সুতরাং মুসলিম বিশ্বের স্বার্থে সংরক্ষণে OIC -র ভূমিকা অনস্বীকার্য ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!