ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূলতার কারণ বর্ণনা কর ।

প্রশ্নঃ লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূলতার কারণ বর্ণনা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশের বাণিজ্য নীতির মূল উদ্দেশ্য হলো রপ্তানিনির্ভর উন্নয়ন কৌশলের মাধ্যমে রপ্তানি বৃদ্ধি , রপ্তানি বহুমুখীকরণ , শিল্পের প্রসারে আমদানীকৃত উপাদান সহজলভ্য করাসহ বৈদেশিক বাণিজ্যে দেশের অংশীদারিত্ব বৃদ্ধির মাধ্যমে আমদানি রপ্তানির মধ্যে অনুকূল ভারসাম্য বজায় রাখা । প্রতিযোগিতামূলক আন্তর্জাতিক বাণিজ্য , বাণিজ্যে উদারীকরণ এবং রপ্তানিনির্ভর উন্নয়ন কৌশলের মাধ্যমে দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিত করাই বাংলাদেশের বৈদেশিক বাণিজ্য নীতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য ।

লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূলতার কারণ : নিম্নে বাংলাদেশের লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূলতার কারণসমূহ আলোচনা করা হলো :

১. বৈদেশিক দেনা পরিশোধ : কোন দেশ থেকে ঋণ গ্রহণ করলে সে ঋণের আসল ও সুদ বাবদ বাংলাদেশকে প্রচুর টাকা পরিশোধ করতে হয় । এটিও লেনদেন ভারসাম্যের ঘাটতির অন্যতম প্রধান কারণ ।

২. মুদ্রাস্ফীতিজনিত কারণ : বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির কারণে লেনদেন ভারসাম্যের ব্যাঘাত সৃষ্টি হয় । নানা কারণে এদেশের মুদ্রাস্ফীতি ঘটে থাকে এবং মূল্যস্তর বৃদ্ধি পায় । এর ফলে দ্রব্যসামগ্রীর উৎপাদন হ্রাস পায় , বিনিয়োগ কমে যায় এবং পণ্যের দাম বৃদ্ধি পায় ।

৩. আমদানিজনিত মূল্যবৃদ্ধি : যেসব পণ্যসামগ্রী আমরা বিদেশ থেকে আমদানি করে থাকি তার আমদানিজনিত ব্যয় পূর্বের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে । তাছাড়া বিশ্ব বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় লেনদেন ভারসাম্যে ব্যাঘাত সৃষ্টি করছে ।

৪. রপ্তানি পণ্যের নিম্নমূল্য : বাংলাদেশ কৃষিনির্ভর দেশ এবং যাবতীয় রপ্তানি দ্রব্যের বেশিরভাগ কৃষিজাত দ্রব্য ও কাঁচামাল স্বাভাবিকভাবেই শিল্পজাত দ্রব্য হতে এর মূল্য কম । ফলে রপ্তানি আয় কম এবং লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূল অবস্থা বিরাজ করে ।

৫. ৰাণিজ্য শর্তের প্রতিকূলতা : বাংলাদেশের রপ্তানিজাত পণ্য নিতান্তই কম । পক্ষান্তরে , এসব দ্রব্যের চাহিদা বিশ্ব বাজারে স্থিতিস্থাপক বিধায় আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রতিকূল বাণিজ্যিক শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হয় । তাই লেনদেন ভারসাম্য দেখা দেয় ।

৬. রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা : এদেশের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা প্রায় লেগেই থাকে । হরতাল , ধর্মঘট ও কর্মবিরতি ইত্যাদি কারণে দেশের অভ্যন্তরে উৎপাদন ও বৈদেশিক বিনিয়োগ হ্রাস পায় । এর ফলে রপ্তানি হ্রাস পায় কিন্তু আমদানি অপরিবর্তনীয় থাকে , কখনো কখনো বৃদ্ধি পায় ।

৭. মূলধনী দ্ৰব্য আমদানি : বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় দ্রুত শিল্পায়নের জন্য বিভিন্ন প্রকার মূলধনী দ্রব্য যেমন- যন্ত্রপাতি , মেশিন ও রাসায়নিক দ্রব্য ইত্যাদি আমদানি করতে হয় । এজন্য বৈদেশিক বাণিজ্যের ঘাটতি দেখা যায় ।

৮. শর্তযুক্ত ঋণ ব্যবস্থা : বাংলাদেশ দাতা দেশগুলোর কাছ থেকে কঠোর শর্তসাপেক্ষে ঋণ গ্রহণ করে থাকে । ফলে বাংলাদেশের ছোট অর্থনীতির উপর মাত্রারিক্ত চাপ পড়ে এবং লেনদেনের ক্ষেত্রে ঘাটতি সৃষ্টি হয় ।

৯. দেশীয় সংরক্ষণ নীতি : প্রতিটি দেশ তার নিজস্ব শিল্প সংরক্ষণে সদা তৎপর এর ফলে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে লেনদেন ভারসাম্য ব্যাঘাত সৃষ্টি করে ।

১০. যুদ্ধ বিধ্বস্ত অর্থনীতির পুনর্গঠন : বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় অর্থনীতির ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয় , কলে উৎপাদন হ্রাস পায় । অপরপক্ষে , যুদ্ধে ক্ষয়ক্ষতির জন্য প্রচুর পরিমাণ দ্রব্যসামগ্রী বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয় , ফলে বৈদেশিক বাণিজ্য ঘাটতি দেখা দেয় ।

১১. অদৃশ্য খাতে অধিক ব্যয় : বাংলাদেশের অদৃশ্য খাতে অধিক ব্যয়ের কারণে বাণিজ্য ঘাটতি দেখা দেয় । বিদেশে অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রীদের খরচ , বৈদেশিক বিশেষজ্ঞের বেতন , বিদেশি জাহাজ ও প্লেন ভাড়া প্রভৃতি কারণে অদৃশ্যমান খাতে এদেশকে প্রচুর পরিমাণ অর্থ খরচ করতে হয় ।

১২. প্রাকৃতিক দুর্যোগ : বাংলাদেশের জলবায়ুর অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য নাতিশীতোষ্ণ । ফলে এদেশে বন্যা , ঝড় , অতি বৃষ্টি এবং জলোচ্ছ্বাস ইত্যাদি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে । এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর কারণে উৎপাদন যেমন ব্যাহত হয় তেমনি প্রচুর পরিমাণে খাদ্য ঘাটতি হয় । ফলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করে যার আমদানি করতে হয় । তাই লেনদেন ভারসাম্য এদেশের প্রতিকূলে যায় ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে আমরা এ সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারি যে , লেনদেন ভারসাম্যের প্রতিকূলতা যদিও বাংলাদেশের জন্য কাম্য নয় , তবুও নানাবিধ কারণে লেনদেন ভারসাম্যহীনতা এদেশকে মস্তবড় খাদের মধ্যে আটকে রেখেছে এবং ভারসাম্যহীনতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে । তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে রপ্তানি আয় বৃদ্ধি করতে হবে এবং আমদানি ব্যয়ও হ্রাস করতে হবে । তাহলেই লেনদেনের ঘাটতিজনিত সমস্যা দূরীভূত হবে এবং ভারসাম্যে উপনীত হবে ।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!