ডিগ্রি প্রথম এবং অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ ২০২৩ এর সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯

 ডিগ্রী সকল বই

প্রশ্নঃ বেসরকারি খাতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণের উপায় বা কৌশল বর্ণনা কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বেসরকারি খাতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণের উপায় বা কৌশল বর্ণনা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশে বেসরকারি খাতের অগ্রণী ভূমিকার মাধ্যমে উন্নয়নের কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে । অতএব বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে বেসরকারি অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বৃদ্ধির জন্য উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ অত্যাবশ্যক ।

বেসরকারি খাতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণের উপায় : নিম্নে কিছু পদক্ষেপ সুপারিশ করা গেল ।

১. শেয়ার মার্কেট সংস্কার : বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেটগুলো এখনো অনুন্নত পর্যায়ে আছে । সাম্প্রতিক শেয়ার মার্কেটের উত্থানপতন বিনিয়োগকারীদের মনে নিরাপত্তার অভাব সৃষ্টি করেছে । অতএব শেয়ার মার্কেটের সংস্কার অত্যাবশ্যক , যেন সঞ্চয়কারীমা শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ গ্রহণ করতে পারে ।

২. কর অব্যাহতি : করমুক্ত বিনিয়োগের সুবিধা আরো প্রসারিত করতে হবে । যে আয়ের সাহায্যে শেয়ার বা বস্তু ক্রয় করা হয় তাকে সম্পূর্ণ আয়কর মুক্ত করা প্রয়োজন ।

৩. ব্যাংক সার্ভিস উন্নয়ন : মুক্ত বাজার অর্থনীতিতে বেসরকারি সম্পদ আহরণের জন্য ব্যাংক সার্ভিস অতি গুরুত্বপূর্ণ । ব্যাংকের সেবা যথাযথ হলে জনগণ তাদের সঞ্চয় ব্যাংকে জমা রাখে । ব্যাংক সার্ভিস উন্নতমানের হলে জনগণের পড়ে থাকা সঞ্চয় বিনিয়োগকারীর হাতে পৌঁছে । এছাড়া ব্যাংকের মাধ্যমে সঞ্চয়ের উপর আকর্ষণীয় সুদ পাওয়া গেলে সঞ্চয় বাড়ে । অতএব বাংলাদেশেও আর্থিক মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ব্যাংক সঠিক ভূমিকা পালন করলে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বৃদ্ধি পাবে ।

৪. আর্থিক প্রতিষ্ঠান : বাণিজ্যিক ব্যাংক , এক্সচেঞ্জ ব্যাংক , বীমা কোম্পানি ইত্যাদি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ড আরো গতিশীল এবং সঞ্চয় আহরণে কার্যকর করা প্রয়োজন । সঞ্চয় ও বিনিয়োগে সহায়তাকারী নতুন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠা ও উৎসাহিত করা আবশ্যক ।

৫. মুদ্রানীতি ও রাজস্বনীতি : অভ্যন্তরীণ বেসরকারি সঞ্চয় উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে উপযুক্ত মুদ্রানীতি ও রাজস্বনীতি প্রয়োগ করতে হবে । উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশে ঋণ সৃষ্টি সহজতর করার উদ্দেশ্যে কিছুটা সম্প্রসারণমূলক মুদ্রানীতি প্রয়োজন । সঞ্চয় ও বিনিয়োগ উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে উপযুক্ত কর অব্যাহতি রাজস্বনীতির মাধ্যমে দিতে হবে । ব্যাংক একাউন্টের উপর থেকে ভ্যাট প্রত্যাহার করা প্রয়োজন ।

৬. আন্ডার গ্রাউন্ড উৎস থেকে বিনিয়োগ : বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সম্পদের উৎস সম্পর্কে তদারকি কিছুটা শিথিল করা প্রয়োজন । যে তহবিল দিয়ে শেয়ার বা বস্তু ক্রয় করা হয় তা উপার্জনের বৈধতা সম্পর্কে এ পর্যায়ে তদারকি কিছুটা শিথিল করা যেতে পারে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করে এবং বিনিয়োগের সুবিধার জন্য সরকারি খাতে আর্থসামাজিক অবকাঠামো তৈরি করে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ উৎসাহিত করা সম্ভব হবে ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!