ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির উপায়গুলো বর্ণনা কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির উপায়গুলো বর্ণনা কর ।

উত্তর। ভূমিকা : দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত করে জনসাধারণের মাথাপিছু আয় ও জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে হলে উপর্যুক্ত সমস্যাগুলো সমাধান করতে হবে । বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে নিম্নলিখিত ব্যবস্থাদি গ্রহণ করা যেতে পারে :

১. কৃষির উন্নয়ন : কৃষি বাংলাদেশের অর্থনীতির মেরুদণ্ড । কৃষিকে অবহেলা করে আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সম্ভব নয় । কাজেই কৃষি উন্নয়নের উপর আমাদের সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করতে হবে । পুরোনো পদ্ধতির চাষাবাদ পরিহার করে কৃষিক্ষেত্রে বিজ্ঞানসম্মত আধুনিক পদ্ধতি প্রবর্তন করতে হবে । কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পেলে খাদ্য সমস্যা দূর হবে । জনগণের মাথাপিছু আয় ও জীবনযাত্রার মান উন্নত হবে ।

২. প্রাকৃতিক সম্পদের ব্যবহার : দেশের জাতীয় ও মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি করতে হলে আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ পূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে । কারিগরি জ্ঞানের উন্নয়ন এবং প্রয়োজনবোধে বিদেশ থেকে প্রযুক্তি আমদানি করে দেশের প্রাকৃতিক সম্পদের যথোপযুক্ত ব্যবহার করতে হবে ।

৩. মহিলা সমাজের উন্নয়ন : বাংলাদেশের জনসংখ্যার অর্ধেক হলো মহিলা । সুতরাং মহিলাদের অবস্থার উন্নতি না করে জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত করা যাবে না । গ্রামীণ মহিলা অবস্থার উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো গড়া এবং মহিলাদের জন্য আলাদা সমবায় আন্দোলনের উপর জোর দিতে হবে ।

৪. শিল্পোন্নয়ন : পাকিস্তানি আমলে এ অঞ্চলে শিল্পোন্নয়নের গতি মন্থর ছিল । কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে আমাদেরকে অতীতের সব ব্যর্থতা মুছে ফেলে শিল্পোন্নয়নের জন্য একটি সুষ্ঠু কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে । শিল্পোন্নয়নের সাথে সাথে উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং জনসাধারণের মাথাপিছু আয় বাড়বে ।

৫. জনসংখ্যার নিয়ন্ত্রণ : আমাদের দেশে বর্তমানে জনসংখ্যা যে দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে তা রোধ করতে না পারলে উন্নয়নের সব পরিকল্পনাই বানচাল হয়ে যাবে । জাতি হিসেবে আমাদের টিকে থাকতে হলে পরিবার পরিকল্পনা সুষ্ঠু বাস্তবায়নের মাধ্যমে জনসংখ্যা বৃদ্ধির এ উত্তাল তরঙ্গকে অবশ্যই রোধ করতে হবে ।

৬. বন্যা নিয়ন্ত্রণ : বন্যা প্রতি বছর আমাদের বহু ফসল নষ্ট করে । বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য অবিলম্বে সুষ্ঠু কার্যক্রম গ্রহণ করা দরকার । তাতে আমাদের কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং জনগণের মাথাপিছু আয় বাড়বে ।

৭. মূলধন গঠন : মূলধন ছাড়া অর্থনৈতিক অগ্রগতি সম্ভব নয় । সঞ্চয় থেকে মূলধন গড়ে উঠে । সুতরাং দেশের জনসাধারণকে সঞ্চয়ে উৎসাহিত করতে হবে । জনসাধারণকে সঞ্চয়ে উৎসাহিত করার জন্য দেশের গ্রামাঞ্চলে পর্যাপ্ত পরিমাণে ব্যাংকের শাখা খোলা উচিত ।

৮. পরিবহন ব্যবস্থার উন্নতি : অর্থনৈতিক উন্নয়ন পরিবহন ব্যবস্থার উপর নির্ভরশীল । দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে জনসাধারণের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি হলে আমাদের যোগাযোগ ও পরিবহন ব্যবস্থার উন্নতি করতে হবে ।

৯. শিক্ষার বিস্তার : শিক্ষা অর্থনৈতিক উন্নয়নের চাবিকাঠি । আমাদের দেশে অধিকাংশ লোক অশিক্ষিত । ফলে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে তাদের সক্রিয় সহযোগিতা পাওয়া যায় না । সুতরাং অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত করতে হলে জনসাধারণের মধ্যে শিক্ষাবিস্তার অপরিহার্য ।

১০. অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় হ্রাস : বাংলাদেশে রাজস্ব বাজেটের ব্যয় হ্রাস করে উদ্বৃত্ত অর্থ উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দ করতে হবে । দেশে দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে সরকারকে উপযুক্ত কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে ।

১১ . কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ : শিল্প ও কৃষিক্ষেত্রে উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে জনগণের মাথাপিছু আয় বাড়াতে হলে কারিগরি শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি করে শ্রমিকদের কর্মদক্ষতা বাড়াতে হবে ।

১২. বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন : দেশের শিল্পোন্নয়নের জন্য যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা আমদানির জন্য প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রার প্রয়োজন । বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে হলে রপ্তানির পরিমাণ বৃদ্ধি করতে হবে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত ব্যবস্থাগুলো গ্রহণ করে বাংলাদেশের জনগণের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি করা সম্ভব । এ লক্ষ্যে অবিলম্বে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা দরকার ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!