ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

পরিমাণবাচক ও গুণবাচক গবেষণার মধ্যে পার্থক্য লিখ

অথবা, সংখ্যাত্মক গবেষণার বৈশিষ্ট্যসমূহ লিখ।
অথবা, সংখ্যাত্মক গবেষণা ও গুণবাচক গবেষণার মধ্যে পার্থক্য লিখ।
অথবা, পরিমাণবাচক গবেষণা ও গুণবাচক গবেষণার মধ্যে বৈসাদৃশ্য আলোচনা কর।
অথবা, সংখ্যাত্মক গবেষণা ও গুণবাচক গবেষণার মধ্যে বৈসাদৃশ্য তুলে ধর।
উত্তরায় ভূমিকা : পরিমাণবাচক গবেষণা ও গুণবাচক গবেষণার মধ্যে পার্থক্যের মূল কারণগুলো হলো পরিমাণবাচক গবেষণা প্রচলিত (traditional), দৃষ্টবাদী (positivist), পরীক্ষণমূলক (experimental) এবং
অভিজ্ঞতাবাদী (empiricist) এ্যাপ্রোচ আর গুণবাচক গবেষণা গঠনবাদী (constructivist), (naturalistic), অর্থকরণবাদী (interpretative), দৃষ্টবাদী উত্তর (post-positivist) ও আধুনিকোত্তর (postmodern) এ্যাপ্রোচ । এদের মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য বিরাজমান।


উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, পরিমাণবাচক গবেষণায় কোন প্রপঞ্চকে ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণ করার ক্ষেত্রে সংখ্যার উপর গুরুত্বারোপ করা হয় এবং গুণগত গবেষণায় কোন প্রপঞ্চকে ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণের জন্য গুণগত বিষয়ের উপর গুরুত্ব প্রদান করা হয়। উভয়ের মধ্যে উপর্যুক্ত পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও উভয়েই জ্ঞানের পরিবর্তন ও বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা আমাদের এই প্রশ্ন উত্তর গুলো কালেক্ট করতে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। যদি আমাদের পারিশ্রমিক হিসেবে কিছু অর্থ প্রদান করে আমাদের সহযোগিতা করতে চান আমাদের হোয়াটস্যাপ নাম্বারে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। যাতে করে আমরা আরো দ্রুততার সাথে আপনাকে সাহায্য করতে পারি আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। Whatsaap Number 01979786079

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!