ডিগ্রি প্রথম এবং অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ ২০২৩ এর সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯

 ডিগ্রী সকল বই

কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ কী?

অথবা, কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ কাকে বলে?
অথবা, কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ বলতে কী বুঝ?
উত্তর৷ ভূমিকা :
নারীবাদ সম্পর্কে সাধারণ আলোচনা কৃষ্ণাঙ্গ নারী ও উন্নয়নশীল দেশের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদীরা বলেন যে, এসব দেশের জাতিগত বিভাজন শ্বেতাঙ্গ নারীবাদীরা বিবেচনায় আনেন নি। তারা পাশ্চাত্য দেশসমূহের মধ্যবৃত্ত নারীদের বিষয় আলোচনা করেছেন। এজন্য এটা কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের বেলায় প্রযোজ্য নয়।
কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ : প্রচলিত নারীবাদ হতে কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের সমস্যা তুলে ধরার জন্য কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদের উদ্ভব ঘটেছে। কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের সমস্যা সম্পর্কে আলোচনা করে। তার আত্মজীবনীর ভূমিকায় আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদী বেলভূক বলেন, “শ্বেতাঙ্গ নারীদের চাইতে কৃষ্ণাঙ্গ নারীগণ বেশি আত্মমর্যাদাশীল। কৃষ্ণাঙ্গ নারীগণ বেশি
ইতিবাচক। বেশি কথা বলে এবং আস্থাশীল। আমেরিকার দক্ষিণ অঞ্চলের নারীগণ বেশি সচল এবং বেশি মর্যাদাশীল। আমাদের বাবা মা এবং শিক্ষকগণ আমাদের সঠিকভাবে চলতে এবং পরিস্কারভাবে কথা বলতে শেখান। এটা করতে বলেন জাতির উন্নতির জন্য।” তিনি আরও বলেন, “There were not necessarily associated with building female self esteem and on outspoken girl might thill that she was worthless because her skin was no light enough or her hair the right texture. These are the variables that white researchers often do not consider when they measure the self esteem of black females with a yard stick that was designed based on values emerging form white experience.” কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদ ইতিহাসের শিক্ষা গ্রহণ করে এবং এর আলোকে বর্তমান সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করে। আমেরিকার নারীবাদীগণ তাদের পূর্বপুরুষদের জীবনে দাসত্বের প্রভাব, অত্যাচার এবং নাগরিক অধিকার আন্দোলন এবং জেন্ডার বৈষম্যের উপর জোর দেয়। তারা তুলে ধরে কৃষ্ণাঙ্গদের উপর শ্বেতাঙ্গদের অত্যচার। তারা নারীর অধিকার সমর্থন করে। কিন্তু তারা নিজ সম্প্রদায়কে অস্বীকার করে না। কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের জাতপাত ও জেন্ডার বৈষম্যের বিরুদ্ধে সোচ্চার কণ্ঠে প্রতিবাদ জানায়। বর্তমানে কৃষ্ণাঙ্গ নারীগণ আন্দোলনমুখী নয়, কারণ নারী বলতে কোন জাতপাত নেই। শ্বেতাঙ্গ নারী ও অশ্বেতাঙ্গ নারী একই। এই ধারণা তাদের চিন্তায় এসেছে। তাছাড়া, বর্ণবৈষম্যের চেয়ে এটা তীব্র নয়।

Dr. Giddens, “Hooks has argued that explanatory frameworks favoured by the white faminists, for example, the view of the family as a main stay of patriarchy, may not be applicable in black communities, where family represents main point of soliderity against racism. in others words, the oppression of black women may be found in different locations compared with or white women.
এজন্য কৃষ্ণাঙ্গ নারীবিদগণ বলেন যে, জেন্ডার সমতা সম্পর্ক কোন তত্ত্ব নির্ভরযোগ্য হবে না, জাতিগত বৈষম্য তুলে না ধরে। এটি ব্যতীত কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের বিরুদ্ধে অত্যাচারের মাত্রা তুলে ধরা যাবে না। কারণ শ্বেতাঙ্গ পুরষ দ্বারাও তারা নির্যাতিত।
উপসংহার : অনেক কৃষ্ণাঙ্গ নারীর ক্ষেত্রে তাদের শ্রেণি চরিত্রও বিশ্লেষণ করতে হবে। অনেক কৃষ্ণাঙ্গ নারীবাদী বলেন যে, নারীবাদী আলোচনায় জাতি, শ্রেণি ও জেন্ডার ভূমিকা পালন করে। Dr. Giddens বলেন, “Black women multiply disadvantaged, they argue, on the basis of their colour, sex and their class position. When these three factors interact, they reinforce and intensify another.”



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!