Plasmodium একটি প্যারাসাইটিক জীবাণু যা ম্যালেরিয়া রোগের কারণ। এরাইথ্রোসাইটিক সাইজোগনি হলো Plasmodium প্যারাসাইট যা এরাইথ্রোসাইট হয়ে উঠতে এবং হোস্ট সেলগুলির এরাইথ্রোসাইটকে বিকসিত করতে সাহায্য করে।

Plasmodium এর এরাইথ্রোসাইটিক সাইজোগনির প্রক্রিয়াটি কিছুটা পোষ্যতামূলক এবং জীবনকালের একটি মৌলিক অংশ। এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আগে, Plasmodium প্যারাসাইটগুলি এরাইথ্রোসাইটে প্রবেশ করে এবং এর অভ্যন্তরে বিকসিত হয়। এরাইথ্রোসাইটের মধ্যে, এই প্যারাসাইটগুলি একটি সিরিজ অফ স্টেজ পায়, যা এরাইথ্রোসাইটিক সাইজোগনির বিভিন্ন চরণে বিভক্ত হয়।

এরাইথ্রোসাইটিক সাইজোগনির চরণগুলি হলো:

  1. প্রোমেরোজোয়াইট (Preerythrocytic Stage): এই চরণে, Plasmodium এর প্রকারভেদ সম্পন্ন হয় এবং এই জীবাণু এরাইথ্রোসাইটে প্রবেশ করে।
  2. এরাইথ্রোসাইট ইনভেসন (Erythrocytic Invasion): এই চরণে, এরাইথ্রোসাইটের মধ্যে প্যারাসাইটগুলি প্রবেশ করে এবং এর আবৃত্তি শুরু হয়।
  3. এরাইথ্রোসাইট ডেভেলপমেন্ট (Erythrocytic Development): এই চরণে, প্যারাসাইটগুলি এরাইথ্রোসাইটের মধ্যে বিকসিত হয় এবং এর সাইকেল পূর্ণ হয়।
  4. এরাইথ্রোসাইট রূপান্তর (Erythrocytic Transformation): এই চরণে, প্রায় শত্রুসেল ভেঙ্গে প্যারাসাইটগুলি নতুন এরাইথ্রোসাইটে প্রবেশ করে।
  5. মেরোজোয়াইট বিগতা (Merozoite Release): শেষভাগে, প্যারাসাইটগুলি এরাইথ্রোসাইট ভেঙ্গে বাইরে আসে এবং নতুন এরাইথ্রোসাইটে প্রবেশ করার জন্য প্রস্তুত হয়।

এই সাইকেলটি ম্যালেরিয়া রোগের প্রতিরোধ করতে হতে পারে এবং এই চরণগুলি নিয়ামিতভাবে পূর্ণ হলে রোগের লক্ষণ উঠতে পারে।

admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!