ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

শেয়ার কত প্রকার ও কী কী ? অগ্রগণ্য শেয়ার ও সাধারণ শেয়ারের মধ্যে পার্থক্য কী ?

[ad_1]

👉 শেয়ার কত প্রকার ও কী কী ? অগ্রগণ্য শেয়ার ও সাধারণ শেয়ারের মধ্যে পার্থক্য কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : শেয়ার বলতে সাধারণত অংশীদারিত্ব বা মালিকানা বুঝায় । অর্থনীতিতে শেয়ার বলতে কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকানার অংশ ও লভ্যাংশের অংশীদারিত্বকে বুঝায় ।

শেয়ারের প্রকারভেদ : শেয়ার বিভিন্ন প্রকারের হতে পারে । যথা :

১. প্রাইমারি শেয়ার ,

২. সেকেন্ডারি শেয়ার ,

৩ . রাইট শেযার ,

৪. বোনাস শেয়ার ,

৫. প্রিমিয়াম শেয়ার ,

৬. অগ্রগণ্য শেয়ার ও

৭. সাধারণ শেয়ার ।

১. অগ্রগণ্য শেয়ার : যে শেয়ারের প্রাপ্য ব্যবসায়ের মুনাফা থেকে প্রথমেই মিটিয়ে দেয়া হয় তাকেই অগ্রগণ্য শেয়ার বলা হয় । অগ্রগণ্য শেয়ার নিম্নোক্ত কয়েক ধরনের হতে পারে :

ক . সঞ্চয়ী অগ্রগণ্য শেয়ার: কোন কোন বছর কোম্পানির মুনাফা নাও হতে পারে । কিন্তু মুনাফা না হলেও যেসব অগ্রগণ্য শেয়ারের মালিকদের পরবর্তী কয়েক বছরের মুনাফা থেকে লভ্যাংশ আদায় করার অধিকার থাকে তাদেরকে সঞ্চয়ী অগ্রগণ্য শেয়ার বলে ।

খ . অসঞ্চয়ী অগ্রগণ্য শেয়ার : যেসব অগ্রগণ্য শেয়ারের মালিকগণ কোন বছর মুনাফা না হলেও লভ্যাংশ না পেলে কোম্পানির পরবর্তী বছরের মুনাফা থেকে তাদের বকেয়া লভ্যাংশ আদায় করার অধিকার থাকে না , সেসব শেয়ারকে অসঞ্চয়ী অগ্রগণ্য শেয়ার বলে ।

গ . পরিশোধযোগ্য অগ্রগণ্য শেয়ার : একটি নির্দিষ্ট সময় শেষে যেসব অগ্রগণ্য শেয়ারের মূল্য শেয়ার মালিককে ফেরত প্রদান করা যায় , তাদেরকে পরিশোধযোগ্য অগ্রগণ্য শেয়ার বলা হয় ।

২. সাধারণ শেয়ার : সাধারণ শেয়ারের মুনাফা নির্দিষ্ট থাকে না । অগ্রগণ্য শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দেয়ার পর বা প্রতিষ্ঠান অবসায়ন কালে সবশেষে যে শেয়ারের অংশ দেয়া হয় তাকে সাধারণ শেয়ার বলে ।

৩. প্রিমিয়াম শেয়ার : প্রিমিয়াম শেয়ার বলতে সেসব শেয়ারকে বুঝায় , যেসব শেয়ারের বিক্রয়মূল্য শেয়ার সার্টিফিকেটে উল্লিখিত মূল্যের তুলনায় বেশি হয় । ১,০০০ টাকা মূল্যের শেয়ার যদি বাজারে ২,০০০ টাকায় বিক্রয় হয় তবে সেটি হবে প্রিমিয়াম শেয়ার ।

৪. প্রিনফিল্ড শেয়ার : যে কোম্পানির শেয়ার পরিকল্পনাধীন আছে যদিও এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে নি তাকে গ্রিনফিল্ড শেয়ার বলে ।

৫. সেকেন্ডারি শেয়ার : প্রাইমারি শেয়ারের মালিক পরবর্তীতে সেকেন্ডারি বাজারে ঐ শেয়ার বিক্রয় করতে পারে । তখন ঐ শেয়ারকে সেকেন্ডারি শেয়ার বলে ।

অগ্রগণ্য শেয়ার ও সাধারণ শেয়ারের মধ্যে পার্থক্য : অগ্রগণ্য শেয়ার

১. অগ্রগণ্য শেয়ারহোল্ডার নির্দিষ্ট হারে সবার আগে লভ্যাংশ পায় । 👉 সাধারণ শেয়ার- ফার্মের অবশিষ্ট মুনাফা থেকে সাধারণ শেয়ারের লভ্যাংশ হিসাব করে বণ্টন করা হয় ।

২. এ শেয়ারহোল্ডারের নির্দিষ্ট হারে লভ্যাংশ পাওয়ার নিশ্চয়তা আছে । 👉 সাধারণ শেয়ার- কেবল অবশিষ্ট থাকলেই শুধু সাধারণ শেয়ারহোল্ডার লভ্যাংশ পেতে পারে ।

৩. অগ্রগণ্য শেয়ারহোল্ডারদের ভোটাধিকার ক্ষমতা নেই । 👉 সাধারণ শেয়ার- সাধারণ যে শেয়ারহোল্ডারদের ভোটাধিকার আছে তারাই কোম্পানির মালিক ।

৪. অগ্রাধিকার শেয়ারের ক্ষেত্রে ঝুঁকি কম । 👉 সাধারণ শেয়ার- সাধারণ শেয়ারের ঝুঁকি বেশি ।

৫. কোম্পানি গোটানোর সময় অগ্রাধিকার শেয়ারহোল্ডার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অংশ পেয়ে যায় । 👉 সাধারণ শেয়ার- সাধারণ শেয়ারহোল্ডার অবশিষ্ট থাকলে পায় ।

৬. অগ্রাধিকার শেয়ারহোল্ডাররা ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হতে পারে না । 👉 সাধারণ শেয়ার- সাধারণ শেয়ারহোল্ডাররা ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়ে কোম্পানি পরিচালনায় অংশগ্রহণ করতে পারে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে বুঝা যায় শেয়ার বাজার বহুবিধ হয় । ভিন্ন প্রকারের শেয়ার ভিন্নভাবে কার্য সম্পন্ন করে ।

👉 বাংলাদেশের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশে উত্তম ক্রিয়াশীল সিকিউরিটি বাজার উন্নয়নের পক্ষে প্রতিবন্ধক উপাদানসমূহ ব্যাখ্যা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ । এখানে উত্তম ক্রিয়াশীল সিকিউরিটি বাজার উন্নয়নের পক্ষে অনেক প্রতিবন্ধক উপাদান রয়েছে ।

নিম্নে সেগুলো আলোচনা করা হলো :

১. প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অর্থসংস্থানের দুর্বলতা : যেসব প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের মূলধন বাজারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে তাদের মধ্যে বাংলাদেশের শিল্প ঋণ সংস্থা , বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক , বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা , মার্চেন্ট ব্যাংক এবং সাধারণ বীমা করপোরেশনসমূহ প্রধান । এদের মধ্যে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান তহবিলের অভাবে মূলধন বাজারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে না । সাধারণত মূলধন বাজারে মন্দাবস্থার অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগের অভাব ।

২. সুষ্ঠু নীতিমালার অভাব : ঢাকা শেয়ার মার্কেট ফ্লোট করার কোন সুনির্দিষ্ট নীতিমালা নেই । কখনো এক সাথে কয়েকটি কোম্পানির শেয়ার ফ্লোটের অনুমতি প্রদান করে , আবার কখনো দীর্ঘদিন চুপচাপ বসে থাকতে হয় । এটি হচ্ছে সিসিআই এর শেয়ার ফ্লোটের অনুমতি প্রদান পদ্ধতি ।

৩. প্রাথমিক ঋণপত্রের অনিয়মিত যোগান : মূলধন বাজারের স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখার জন্য স্টক মার্কেটে প্রাথমিক ঋণপত্রাদির যোগানের গতিশীলতা থাকা উচিত । তা না হলে বাজারে ঋণপত্রের সংকট দেখা দিবে । প্রাথমিক ঋণপত্রের যোগানের স্থিতিশীলতা বাংলাদেশে পরিলক্ষিত হয় না ।

৪. শেয়ার ইস্যুকারী এবং ব্রোকারদের ম্যানিপুলেশন : বাংলাদেশের স্টক এক্সচেঞ্জের কিছু শেয়ার ইস্যুকারী এবং এক শ্রেণীর অসাধু ব্রোকাররা অশুভ আঁতাত করে মাঝে মাঝেই শেয়ার বাজারের ম্যানিপুলেশনের আশ্রয় নেয় । এর ফলে ভুক্তভোগী ব্যক্তি বিনিয়োগকারীদের পুঁজি বাজারের উপর আস্থা হ্রাস পেয়ে থাকে ।

৫. তথ্য ব্যবস্থার দুর্বলতা : মূলধন বাজারের তথ্য প্রতিনিয়ত পাওয়া গেলে বিনিয়োগকারীদের পক্ষে যথেষ্ট সুবিধা হয় । প্রতিতিন মাস অন্তর একটি এবং বছরে একটি বড় আকারের প্রতিবেদন এসইসি বিনিয়োগকারীদের তথ্য সরবরাহের জন্য প্রকাশ করে আসছে । এরূপ রিপোর্ট বিগত দু’বছর ধরে আর প্রকাশ করা হচ্ছে না ।

৬. বিদেশি বিনিয়োগকারী : বাংলাদেশের মূলধন বাজারের উন্নয়নের অন্যতম প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়িয়েছে বিদেশিরা । কেননা বাজারের যে কোন শেয়ার আসার সময় তারা কোঠাভিত্তিক কমসংখ্যক বিদেশি বিনিয়োগকারী দেশীয় বিনিয়োগকারীদের সমান শেয়ার ক্রয় করার জন্য বাজারে আসে । কোম্পানি শেয়ার বিতরণের সাথে সাথে বাজারে শেয়ার মূল্য বেড়ে গেলে এসব শেয়ার বিদেশিরা বিক্রি করে ফেলে ।

৭. স্টক এক্সচেঞ্জের নীতি নির্ধারণ এবং ব্যবস্থাপনায় স্ববিরোধিতা : বিশ্বের অনেক দেশে মূলধন বাজারে নীতি নির্ধারণী কর্তৃপক্ষ এবং ব্যবস্থাপনা সম্পূর্ণ আলাদা থাকে । অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সরকার থেকে মনোনীত ব্যক্তি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকেন ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে বলা যায় যে , বাংলাদেশের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশে একটি উত্তম ক্রিয়াশীল সিকিউরিটি বাজার উন্নয়নের পথে উপর্যুক্ত বাধাসমূহ বিদ্যমান । উক্ত বাধা দূর করে আমরা বাংলাদেশে একটি উত্তম ক্রিয়াশীল সিকিউরিটি বাজার গড়ে তুলতে পারি ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!