ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

মুদ্রা ব্যবস্থাপনা এবং আর্থিক বাজার উন্নয়ন / খ – বিভাগ সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

[ad_1]

মুদ্রানীতি বা আর্থিক নীতি বলতে কী বুঝায় ?

উত্তর : সরল অর্থে , অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণের জন্য সরকার ও আর্থিক কর্তৃপক্ষ যেসব নীতিমালা গ্রহণ করে তাকে আর্থিক নীতি বলা হয় । অর্থাৎ অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণ এবং ঋণের ব্যবস্থাপনা নীতিকে আর্থিক নীতি বলে । সরকার ও আর্থিক কর্তৃপক্ষ যেসব নীতিমালা গ্রহণ করে তার সমষ্টিকে আর্থিক নীতি বলা হয় ।

১. সম্প্রসারণমূলক আর্থিক নীতি ,

২. সংকোচনমূলক আর্থিক নীতি ও

৩. নিরপেক্ষ আর্থিক নীতি ।

১. অর্থনীতিতে অর্থ ও ঋণের যোগান বৃদ্ধির লক্ষ্যে গৃহীত আর্থিক নীতিকে সম্প্রসারণমূলক আর্থিক নীতি বলা হয় । এক্ষেত্রে অর্থনীতিতে আয় , উৎপাদন , কর্মসংস্থান ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি পায় ।

২. অর্থনীতিতে অর্থ ও ঋণের যোগান কমানের জন্য গৃহীত আর্থিক নীতিকে সংকোচনমূলক আর্থিক নীতি বলা হয় । এক্ষেত্রে বিনিয়োগ ও আয় হ্রাস পায় , সামগ্রিক চাহিদা হ্রাস পায় , দামস্তর হ্রাস পায় এবং মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে থাকে ।

৩. যে ধরনের আর্থিক নীতি অর্থনীতিতে আয় , উৎপাদন , কর্মসংস্থান , বিনিয়োগ , সামগ্রিক চাহিদা প্রভৃতি প্রকৃত উপাদানকে প্রভাবিত করে না তাকে নিরপেক্ষ আর্থিক নীতি বলা হয় । মূলত পূর্ণ নিয়োগ স্তরে অর্থনীতির স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য নিরপেক্ষ আর্থিক নীতি গ্রহণ করা হয় ।

বাংলাদেশে মুদ্রানীতির সীমাবদ্ধতা বর্ণনা কর ।

উত্তর ৷ ভূমিকা : উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশে মুদ্রানীতির কিছু কিছু সীমাবদ্ধতা থাকা স্বাভাবিক । বাংলাদেশের ন্যায় উন্নয়নশীল দেশে মুদ্রানীতির সীমাবদ্ধতাগুলো নিম্নরূপ :

১. অ – আর্থিক খাত : উন্নয়নশীল দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অ – আর্থিক খাত ভূমিকা পালন করে । বিনিময় প্রথা গ্রামীণ জীবনে এখনো পরিলক্ষিত হয় ।

অ – আর্থিক খাত ও আর্থিক খাতের মধ্যে সমন্বয়সাধন কঠিন । এমতাবস্থায় মুদ্রানীতি পরিপূর্ণভাবে কার্যকর হতে পারে না ।

২. অনুন্নত ও অসংগঠিত অর্থ বাজার : বাংলাদেশের ন্যায় উন্নয়নশীল দেশে অর্থ বাজার তেমন সংগঠিত নয় । দেশজ অপ্রাতিষ্ঠানিক ঋণ দানের উপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ নেই । তাছাড়া বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পুরোপুরি আছে বলে মনে হয় না । উন্নয়নশীল দেশে মুদ্রানীতির কার্যকারিতার পথে অর্থ বাজারের অনুন্নত অবস্থা বাধা হয়ে দাঁড়ায় ।

৩. সময়ের পশ্চাৎপদতা : মুদ্রানীতি সম্পর্কিত ব্যবস্থা অবলম্বনের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি , সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে যথেষ্ট দীর্ঘসূত্রিতা লক্ষ্য করা যায় । প্রশাসনিক কালক্ষেপ মুদ্রানীতির কার্যকারিতাকে দুর্বল করে তোলে ।

৪. অলসভাবে রক্ষিত মুদ্রা : বাংলাদেশের ন্যায় উন্নয়নশীল দেশে জনগণের হাতে অলস জমাকৃত অর্থের পরিমাণ কম নয় । অলসভাবে ফেলে রাখা অর্থ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে ব্যবহৃত হয় না । ফলে প্রসারিত মুদ্রানীতির দ্বারা কাম্য অবস্থায় পৌঁছানো যায় না ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত সীমাবদ্ধতা দূর করতে পারলে আমাদের মুদ্রানীতি হবে উন্নতও স্বচ্ছ ।

শেয়ার ও বোনাস শেয়ার কী ?

উত্তর : শেয়ার : কোন কোম্পানি মূলধন সংগ্রহের উদ্দেশ্যে তার উদ্দিষ্ট প্রাথমিক মূলধনকে কতকগুলো পূর্ণ অংশে ভাগ করে জনগণের নিকট বিক্রি করে থাকে । এরূপ প্রত্যেকটি অংশকে এক একটি শেয়ার বলা হয়ে থাকে । যেমন- ১০ টাকা , ১০০ টাকা বা ১০০০ টাকা মূল্যমানের শেয়ার হতে পারে ।

বোনাস : শেয়ার কোম্পানি যদি বণ্টনযোগ্য লাভের অর্থে নিজের ব্যবসায়ের প্রসার ঘটাতে চায় তবে সে তা রেখে দিতে পারে ডিভিডেন্টের পরিবর্তে শেয়ার মালিকদের নির্দিষ্ট অনুপাতে বোনাস শেয়ার প্রদান করতে পারে । এছাড়া কখনো কখনো কোম্পানি রিজার্ভের পরিমাণ খুব বেড়ে গেলে রিজার্ভকে ক্যাপিটালাইজ করার জন্য কোম্পানি তার শেয়ার মালিকদের বোনাস শেয়ার প্রদান করে থাকে ।

রাইট শেয়ার কাকে বলে ?

উত্তর : যে কোম্পানির শেয়ার ইতোমধ্যেই বাজারে আছে সে কোম্পানি যদি তার মূলধন আরো বাড়াতে চায় তাহলে সে প্রাইমারি শেয়ার মূল্যে আরো শেয়ার ইস্যু করতে পারে । এ শেয়ারকে রাইট শেয়ার বলে । রাইট শেয়ারের ক্ষেত্রে বর্তমান শেয়ার মালিকরা তাদের ধারণকৃত মোট শেয়ারের অনুপাতে রাইট শেয়ার লাভ করে থাকে । উল্লেখ্য রাইট শেয়ার প্রধানত বর্তমান মালিকরাই লাভ করে থাকে ।

শেয়ার বাজারের মূল্য সূচকের উত্থানপতনের কারণ কী কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : বাংলাদেশে শেয়ার বাজারের মূল্য সূচকের উত্থানপতনের বহুবিধ কারণ রয়েছে । শেয়ার বাজারের মূল্য সূচকের উত্থানপতনের কারণ নিয়ে আলোচনা করা হলো :

১. বাণিজ্য চক্র : ব্যবসায় বাণিজ্যের ক্ষেত্রে মন্দাভাবকে বাণিজ্য চক্র বলা হয় । ব্যবসায় তেজিভাব দেখা দিলে শেয়ার বাজারে তাদের দাম বাড়ে , সূচকের উত্থান ঘটে । আবার ব্যবসায় মন্দাভাব দেখা দিলে শেয়ার বাজারে তাদের দাম কমে , সূচকের পতন ঘটে ।

২. সরকারি ঋণপত্রের সুদ : সরকার অধিক সুদের হার আরোপ করার কারণে শেয়ার বাজারের মূল্য উঠানামা করে । শেয়ার বাজার থেকে পুঁজি প্রত্যাহার করলে দরপতন ঘটে । আবার ঋণপত্রের সুদের হার কমালে দর বৃদ্ধি পায় ।

৩. লক ইন প্রথা তুলে দেয়া : ১৯৯৬ সালে শেয়ার বাজারে ধস নামার অন্যতম কারণ ছিল লক ইন প্রথা তুলে দেয়া । এর ফলে বেশকিছু বিদেশি কোম্পানি / বিনিয়োগকারী হঠাৎ করে ম্যানিপুলেশন করে প্রথমে শেয়ারের দাম বাড়ায় এবং পরে কমিয়ে দেয় ।

৪. ঋণ সুবিধা : শেয়ার ক্রয়ের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো ঋণ সুবিধা প্রদান করলে শেয়ারের দাম বাড়ে । আবার ঋণ সুবিধা প্রত্যাহার করলে দাম হ্রাস পায় ।

৫. পুঁজির প্রবেশ ও প্রত্যাহার শেয়ার : বাজারে বিপুল পরিমাণে পুঁজির অনুপ্রবেশ ঘটলে শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পায় । আবার পুঁজির অনুপ্রবেশ হ্রাস পেলে শেয়ারের দাম হ্রাস পায় ।

৬. ঋণপত্রের প্রচলন : সরকার ঋণপত্রের প্রচলন বৃদ্ধি করলে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ চাহিদা কমে , শেয়ারের দাম কমে । আবার সরকার ঋণপত্রের প্রচলন কমালে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ চাহিদা বৃদ্ধি পায় ।

৭. আইনের দুর্বলতা : স্টক এক্সচেঞ্জ আইনের দুর্বলতার কারণে মূল্য সূচক উঠানামা করে । আইনের দুর্বলতার কারণে অসৎ ব্যবসায়ীরা অপকৌশলের মাধ্যমে শেয়ার দাম বাড়িয়ে কমিয়ে অন্য ব্যবসায়ীদের ক্ষতি করে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত কারণেই বাংলাদেশের শেয়ার বাজারের মূল্য সূচক উঠানামা করে ।

শেয়ার বাজার উন্নয়নে গৃহীত সরকারি পদক্ষেপগুলো বর্ণনা কর ।

উত্তর : শেয়ার বাজার উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন প্রকার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে । যা বাস্তবায়িত হলে বাংলাদেশের শেয়ার বাজার উন্নত হবে । বাংলাদেশে শেয়ার বাজার উন্নয়নে গৃহীত সরকারি পদক্ষেপগুলো নিম্নরূপ :

১. সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন : একটি দক্ষ , জবাবদিহিতামূলক পুঁজি বাজার প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে ১৯৯৩ সালে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন গঠন করা হয় । ২০০০ সালে জাতীয় সংসদে কমিশনের একটি সংশোধনী বিল পাস করা হয় । কমিশন পুঁজি বাজার সংশ্লিষ্ট আইনবিধি ও প্রবিধিমালা প্রণয়ন করে ।

২. প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চালু করা : পুঁজি বাজার সম্পর্কে সকলের ধারণা লাভের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চালু করেছে সরকার । প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আওতায় কমিশন মাসে দুটি করে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারীদের জন্য শিক্ষামূলক কার্যক্রমের আয়োজন করে থাকে ।

৩. পুঁজি বাজার উন্নয়ন প্রকল্প : পুঁজি বাজারের সংস্কার , প্রাতিষ্ঠানিক ও জনসম্পদের উন্নয়ন এবং তদারকি আরো উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার এবং এডিবি এর অর্থায়নে ( Improvement Capital Market Government Programme ) নামক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে ।

৪. সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি সিস্টেম চালু : ১৯৯৯ সালে সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি সিস্টেম কোম্পানি গঠন করা হয়েছে । এর উদ্যোক্তাদের মধ্যে স্টক এক্সচেঞ্জ , আই , সি , বি রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক , ব্যাংকার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ফরেন ইনভেস্টার চেম্বার অন্যতম ।

৫. গৃহীত বিভিন্ন নীতিমালা :

ক . শেয়ার বাজারে সেবা জেলা ও উপজেলা সম্প্রসারিত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে ।

খ . শেয়ার বাজার উন্নয়নে ব্যাপক প্রচার , গবেষণা ও অন লাইন সেবা বাড়ানো হয়েছে ।

গ . বোনাস শেয়ার এর উপর আরোপিত কর প্রত্যাহার করা হয়েছে ।

ঘ . শেয়ার বাজারের কারসাজির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে ।

ঙ . দায়ী কোম্পানিগুলোকে নেটিং সুবিধা না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ।

প্রাথমিক শেয়ার , মাধ্যমিক শেয়ার ও কার্বমার্কেট কী ?

উত্তর : প্রাথমিক শেয়ার : যে শেয়ার বাজারে প্রাথমিক শেয়ার ক্রয়বিক্রয় হয় তাকে প্রাথমিক শেয়ার বলে । কোন কোম্পানি বাজারে নতুন শেয়ার ছাড়লে তাকে প্রাথমিক শেয়ার বলে । এ শেয়ার বাজারে শেয়ার অবশ্যই অবলেখিত হতে হয় । বাংলাদেশে প্রধানত ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ বা ICB এরূপ অবলেখনের কাজ করে । জনগণ প্রাথমিক শেয়ার ক্রয় না করলে অবলেখক ঐ শেয়ার গ্রহণ করে ।

মাধ্যমিক বা সেকেন্ডারি শেয়ার : প্রাথমিক শেয়ার ইস্যু হবার পর শেয়ারের মালিক ব্রোকার হাইজের মাধ্যমে তা বিক্রয় করে দিতে পারে । প্রাথমিক শেয়ার ইস্যুর পর পরবর্তীতে শেয়ারের ক্রয়বিক্রয়কে সেকেন্ডারি বা মাধ্যমিক শেয়ার বলা হয় । প্রকৃতপক্ষে সেকেন্ডারি শেয়ার বাজারই হলো শেয়ার ব্যবসার প্রাণকেন্দ্র ।

কার্বমার্কেট বা ফুটপাতের শেয়ার বাজার : স্টক এক্সচেঞ্জে নিবন্ধিত ব্রোকার হাউজ বা ট্রেডিং ফ্লোরের বাইরে রাজপথের ফুটপাতে শেয়ার ক্রয়বিক্রয় হলে তাকে কার্বমার্কেট বা ফুটপাতের শেয়ার বাজার বলা হয় । বাংলাদেশে বিপুল পরিমাণে প্রতারণার ঘটনা ঘটবার পর ( বিশেষ আইন -১৯৯৬ ) করে কার্বমার্কেট বন্ধ করে দেয়া হয় ।

সংকীর্ণ ও বিস্তৃত মুদ্রা কী ?

উত্তর : ব্যাংক বহির্ভূত অর্থ যা জনগণের হাতে নগদ হিসাবে থাকে এবং তফশিলি ব্যাংকে রক্ষিত চাহিদা আমানতের সমষ্টিকে সংকীর্ণ মুদ্রা বা M বলে । M = CU + DD , যেখানে CU = জনগণের হাতে রক্ষিত মুদ্রা এবং DD বলতে ব্যাংকের চাহিদা আমানত ।

অন্যদিকে , বিস্তৃত মুদ্রা বলতে সংকীর্ণ মুদ্রা এবং ব্যাংকের মেয়াদি আমানতের যোগফলকে বুঝায় । বিস্তৃত মুদ্রাকে My হিসেবে গণ্য করা হয় । M2 = My + TD । এখানে TD = তফশিলি ব্যাংকের মেয়াদি আমানত ।

অর্থের প্রচলন গতি কী ? বাংলাদেশে অর্থের প্রচলন গতির হ্রাস বৃদ্ধির ধারা বর্ণনা কর

উত্তর : অর্থের প্রচলন গতি বলতে দ্রব্য ও সেবা ক্রয়ের জন্য এক একক অর্থ কতবার ব্যবহৃত হয়েছে তা বুঝায় । ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন ব্যক্তির মধ্যে ক্রয়বিক্রয় এবং আর্থিক লেনদেন সম্পাদনের জন্য কতবার অর্থের স্থানান্তর হয় তা বুঝানোর জন্য অর্থের প্রচলন গতি ব্যবহার করা হয় । সমীকরণের সাহায্যে V = এখানে V = অর্থের প্রচলন গতি , P = সাধারণ মূল্য , T = মোট লেনদেন এবং M = মোট অর্থের পরিমাণ । PT M মুদ্রার আয় প্রচলন গতি ২০০৮-০৯ অর্থবছর শেষে ২.০৭ থেকে হ্রাস পেয়ে ২০০৯-১০ অর্থবছর শেষে ১.৯১ হয় । ২০১০-১১ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি মাস শেষ মুদ্রার আয় গতি সামান্য বৃদ্ধি পেয়ে ১. ৯২ হয় । বিগত কয়েক বছর ধরে মুদ্রার আয় গতি ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাচ্ছে । ২০০৭-০৮ অর্থবছর শেষে মুদ্রার আয় গতি হ্রাস পেয়ে ৬.১২ % হয় । ২০০৮-০৯ এবং ২০০৯-১০ অর্থবছরে তা হ্রাস পেয়ে যথাক্রমে ৫.৪৯ ও ৮.০২ % হয় । বিগত কয়েক বছর ধরে মুদ্রার আয় গতির ক্রমহ্রাসমান ধারা অর্থনীতির ক্রমবর্ধমান মুদ্রায়ন এবং আর্থিক গভীরতা নির্দেশ করে ।

নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও প্রসারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত উদ্যোগসমূহ কী কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও প্রসারের লক্ষ্যেও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে । যেমন স্থাপন ।

সরকারের গৃহীত উদ্যোগসমূহ : পবিবো ( পল্লি বিদ্যুতায়ন বোর্ড ) কর্তৃক ১৪ ( চৌদ্দ ) হাজার সোলার হোম সিস্টেম মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে সৌরশক্তির মাধ্যমে বিদ্যুতায়নের জন্য ২১.২০ kWp ( কিলোওয়াট পিক ) ক্ষমতাসম্পন্ন সোলার প্যানেল স্থাপন । ইডকলের সহায়তায় বিভিন্ন এনজিও এর মাধ্যমে দেশের গ্রামীণ জনপদে এ পর্যন্ত প্রায় ৯.০০ লক্ষ সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন । দেশে সোলার প্যানেল নির্মাণের জন্য একাধিক কারখানা স্থাপনে ইডকলের প্রচেষ্টা গ্রহণ । মহুরী বাঁধ , ফেনী ও উপকূলবর্তী কুতুবদিয়া এলাকায় বায়ু চালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করে বিদ্যুৎ সরবরাহ । বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য পাইলট প্রকল্প আইপিপি হিসেবে বাস্তবায়নের জন্য কার্যক্রম গ্রহণ ।

উপসংহার : নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও প্রসারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের এসব পদক্ষেপ বাস্তবিকই গ্রহণযোগ্য ।

আর্থিক নীতির সংজ্ঞা দাও ।

উত্তর : আর্থিক বা মুদ্রানীতির সংজ্ঞা : মুদ্রানীতি এমন এক নীতি যার মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সরকারের কতিপয় সুনির্দিষ্ট নীতি বাস্তবায়নের চেষ্টা করে । অধ্যাপক Paul Einzig এর মতে , আর্থিক এবং অনার্থিক উদ্দেশ্যে পরিচালিত সবধরনের আর্থিক সিদ্ধান্ত এবং উপায় অথবা আর্থিক পদ্ধতি প্রভাবিত করে এমন সব অ – আর্থিক সিদ্ধান্ত এবং উপায়সমূহের সমন্বিত রূপকে মুদ্রানীতি বলা যায় । অধ্যাপক H. G. Johnson এর মতে , সাধারণ অর্থনৈতিক নীতির সাথে জড়িত উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য পরিচালিত মুদ্রার যোগানের উপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাকে মুদ্রানীতি বলা যায় । এ সংজ্ঞা কিছুটা সংকীর্ণ হলেও মুদ্রা বাজারের আলোকে এটিকে পল এইনজিগ এর সংজ্ঞা অপেক্ষা ভালো বলা যায় । অধ্যাপক এইনজিগ এর সংজ্ঞা ব্যাপক । এক্ষেত্রে আর্থিক নীতির আওতায় মূল্য ও মজুরি নিয়ন্ত্রণ , রপ্তানি ও আমদানি ইত্যাদি অনেক অ – আর্থিক ব্যবস্থা আছে । সত্যিকার অর্থে মুদ্রানীতি কতিপয় সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রকাশ করে । এদের সাহায্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সরাসরি অর্থের যোগান এবং পরোক্ষভাবে এর চাহিদা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে ।

পুঁজি বা মূলধন বাজারের সংজ্ঞা দাও ।

উত্তর : সংকীর্ণ অর্থে আর্থিক সম্পদের বাজারকে মূলধন বাজার বলা হয় । এখানে বিভিন্ন ঋণপত্র ক্রয় এবং বিক্রয় হয় । বাস্তবে মূলধন বাজার একাধিক পৃথক অথচ পরস্পর জড়িত বাজারের সমন্বিত রূপ বুঝায় । যেমন — স্টক এক্সচেঞ্জ সরকারি ঋণপত্রের বাজার , করপোরেট বন্ড বাজার ইত্যাদির সমন্বয়ে বিস্তৃত অর্থে মূলধন বাজার গঠিত হয় । মূলধন বাজার বিনিয়োগ তহবিল গঠন এবং সরবরাহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । সাধারণত বড় বড় বিনিয়োগ প্রকল্পের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দরকার । এ পরিমাণ তহবিল বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে পাওয়া সম্ভব নয় । কারণ এসব ব্যাংক স্বল্পমেয়াদি ঋণদানে বেশি আগ্রহী । এজন্য দরকার এমন সব প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক যারা মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণদানে উৎসাহী I পারে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান মূলধন বাজারে নিজেদের শেয়ার , বন্ড ইত্যাদি বিক্রি করে মূলধন সংগ্রহ এসব শেয়ার বিভিন্ন করপোরেশন , ব্যাংক , বীমা কোম্পানি , সরকার ও বেসরকারি ব্যক্তি ক্রয় করে ।

মূলধন বাজার ইক্যুইটি তহবিল সংগ্রহেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে । এক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ তহবিলের একাংশ বহন করলে মূলধন বাজারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যেমন বিশেষ ব্যাংক ও প্রতিষ্ঠান বাকি অংশের সংস্থান করতে পারে । কনসোর্টিয়াম গঠনের মাধ্যমে মূলধন বাজার বিনিয়োগ তহবিল সংগ্রহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

বাংলাদেশে মুদ্রা বাজারের কার্যাবলি আলোচনা কর ।

উত্তর : বাংলাদেশে মুদ্রা বাজারের বিভিন্ন কাজ পরিলক্ষিত হয় । বিভিন্ন হাতিয়ারের সাহায্যে সংগঠিত মুদ্রা বাজারের কাজ পরিচালিত হয় । নিম্নে এ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো :

১. আমানত লেনদেন : মুদ্রা বাজারের সবচেয়ে সংগঠিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাণিজ্যিক ব্যাংক , বিভিন্ন ব্যক্তি , বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং এমনকি সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে বিভিন্ন ধরনের আমানত সংগ্রহ করে এবং চাহিদা মাফিক তাদেরকে আমানত উত্তোলনের সুযোগ দেয় । উন্নয়ন ব্যাংকও এরূপ কাজে নিয়োজিত ।

২. ঋণ প্রদান : কেন্দ্রীয় ব্যাংক এর সদস্য ব্যাংকগুলোকে উত্তম জামানতের বিপরীতে স্বল্পমেয়াদি ঋণ তহবিলের যোগান দেয় । সদস্য ব্যাংক প্রয়োজনে এরূপ গ্রহণ করে ।

৩. বিনিয়োগ কার্যক্রম : বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারের ট্রেজারি বিলসহ বিভিন্ন ঋণপত্রে বিনিয়োগ করে । বাণিজ্যিক ব্যাংক নিজেদের তহবিলের এক অংশ ট্রেজারি বিল , সরকারের বিভিন্ন মেয়াদি সঞ্চয়পত্র এবং অপরাপর ঋণপত্রে বিনিয়োগ করে ।

৪. কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিল ক্রয়বিক্রয়: বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক এবং অপরাপর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য সম্প্রতি ৩০ দিন ও ৯০ দিনের বিল প্রবর্তন করে পাক্ষিক নিলামের ভিত্তিতে বিক্রয় করছে ।

৫. অসংগঠিত অংশের কার্যাবলি : মুদ্রা বাজারের অসংগঠিত অংশে ঋণদাতারা বিভিন্ন উদ্দেশ্যে উচ্চ সুদের হারে বিভিন্ন ধরনের ঋণদান করে । এরূপ বাজারে একজন ঋণগ্রহীতাকে কম পরিমাণে ঋণ প্রদান করা হয় ।

অর্থ ও মূলধন বাজারের মধ্যে পার্থক্য কী ?

উত্তর : অর্থ ও মূলধন বাজারের মধ্যে পার্থক্য নিম্নে আলোচনা করা হলো :

১. সময়ভিত্তিক পার্থক্য : অর্থ এবং মূলধন বাজারে ঋণ তহবিলের লেনদেন হয় । তবে এদের মধ্যে সময়ভিত্তিক পার্থক্য আছে । অর্থ বাজারে ট্রেজারি বিল , খোলাবাজারি ঋণপত্র , স্বল্পমেয়াদি ডিবেঞ্চার ইত্যাদি এবং স্বল্পমেয়াদি ঋণের চাহিদা ও যোগান নিয়ে কাজ করে । মূলধন বাজার দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ তহবিলের চাহিদা ও যোগান নিয়ে কারবার হয় ।

২. সংগঠনগত পার্থক্য : অর্থ বাজারের সদস্য বাণিজ্যিক ব্যাংক , স্বীকৃতিকারী হাউস বিলের দালাল ইত্যাদি স্বল্পমেয়াদি তহবিল লেনদেন করে । অপরপক্ষে , শিল্প ব্যাংক , বিনিয়োগ ব্যাংক , বীমা কোম্পানি , শিল্প ঋণ সংস্থা নিয়ে মূলধন বাজার গঠিত ।

৩. তহবিলভিত্তিক পার্থক্য : মূলধন বাজারের প্রতিষ্ঠান নিজের ঋণপত্র ইস্যু করে মূলধনের সিংহভাগ সংগ্রহ করে । অন্যদিকে , অর্থ বাজারের সদস্যদের তহবিলের সিংহভাগ আসে ব্যক্তি এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জমা অর্থ থেকে ।

৪. ঋণ ঝুঁকি : মূলধন বাজারে ঋণপত্রের বিনিয়োগকারীরা দুই ধরনের ঝুঁকির সম্মুখীন হয় আর্থিক ঝুঁকি এবং ঋণ ঝুঁকি । মুদ্রা বাজারে বিনিয়োগকারীরা সাধারণত উত্তম ঋণপত্রের বিনিয়োগ করে ।

৫. সুদের হার : মূলধন বাজারের সুদের হারের চেয়ে মুদ্রা বাজারে সুদের হারের উঠানামা বেশি হয় । কারণ অর্থনীতিতে সুদের হারের সার্বিক কাঠামোর উঠানামা হলে দীর্ঘমেয়াদি সুদের হারের তুলনায় স্বল্পমেয়াদি সুদের হারের উঠানামা বেশি এবং দ্রুত হয় । প্র

বাংলাদেশে পুঁজি বা মূলধন বাজারের হাতিয়ারসমূহ কী কী ?

উত্তর : পুঁজি বাজারে মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্রের লেনদেন হয় । ফলে এ বাজারে লেনদেনের হাতিয়ার মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি ধরনের হয় । পুঁজি বাজারে লেনদেনের বেলায় নিম্নোক্ত হাতিয়ার ব্যবহার হতে দেখা যায় :

১. সরকারি বন্ড এবং ট্রেজারি নোট : এগুলো এক ধরনের দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্র যা মূলত বাণিজ্যিক ব্যাংক , সঞ্চয়ী প্রতিষ্ঠান , বীমা কোম্পানি , ব্যক্তি এবং অপরাপর প্রতিষ্ঠান ক্রয় করে । এ ধরনের বন্ডের মেয়াদ ৫ বছর হয় । অন্যদিকে , ট্রেজারি নোটের মেয়াদ কম ।

২. করপোরেট বন্ড : বিভিন্ন করপোরেশন এরূপ দীর্ঘমেয়াদি বন্ড ইস্যু করে । এগুলো পুঁজি বাজারের দীর্ঘমেয়াদি আর্থিক হাতিয়ার । দীর্ঘমেয়াদি মূলধন সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন করপোরেট সংস্থা এগুলো বিক্রয় করে ।

৩. মিউনিসিপাল বন্ড : উন্নত দেশে রাজ্য এবং স্থানীয় সরকার এরূপ বন্ড ইস্যু করে । রাস্তাঘাট ও বিল্ডিং নির্মাণসহ বিভিন্ন মূলধনী প্রকল্পের ব্যয় মিটানোর জন্য তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে এ ধরনের বন্ড ইস্যু করা হয় ।

৪. মর্টগেজ : স্থাবর সম্পত্তির উপর লিয়েনের আকারে জামানত রেখে এক ধরনের দীর্ঘমেয়াদি আর্থিক প্রতিশ্ৰুতি হলো মর্টগেজ ।

৫. শেয়ার সার্টিফিকেট : পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি বিভিন্ন মূল্যমানের শেয়ার ইস্যু করে বিনিয়োগ তহবিল সংগ্রহ করতে পারে । এ ধরনের শেয়ারের এক একটি লট কমপক্ষে পাঁচটি এবং সর্বোচ্চ পঞ্চাশটি হয় ।

মুদ্রা গুণক কী কী উপাদানের উপর নির্ভরশীল ?

উত্তর : মুদ্রা গুণক হলো M = r ( 1 – c ) + c B অর্থের পরিমাণ এবং M =1 যেখানে C = কারেন্সি ও অর্থের অনুপাত ; M = মোটশক্তিশালী মুদ্রা বা আর্থিক ভিত্তি ।

১. আর্থিক উপাদানসমূহ :

( i ) ব্যাংক বহির্ভূত মুদ্রা বা জনগণের হাতে রক্ষিত নগদ মুদ্রা ,

( ii ) মুদ্রার মোট পরিমাণ ,

( iii ) বাণিজ্যিক ব্যাংকের নগদ রিজার্ভের অনুপাত ,

( iv ) ব্যাংক আমানত এবং

( v ) আর্থিক ভিত্তি ইত্যাদি ।

প্রথমত , অপরাপর বিষয় স্থির থাকলে ব্যাংক বহির্ভূত মুদ্রা কমলে বা বাড়লে এর মান কমবে বা বাড়বে । দ্বিতীয়ত , শক্তিশালী মুদ্রার পরিমাণ প্রদত্ত অবস্থায় মুদ্রার পরিমাণ বাড়লে বা কমলে মুদ্রা গুণকের মান বাড়বে বা কমবে ।

২. সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক উপাদান : সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক বিভিন্ন উপাদান জনগণের কারেন্সি অনুপাত বা ব্যাংকের নগদ রিজার্ভের অনুপাত পরিবর্তন করে মুদ্রা গুণকের মান পরিবর্তন করতে পারে ।

৩. প্রত্যাশিত উপাদান :

( i ) জনগণ যদি ভবিষ্যৎ সম্পর্কে অনিশ্চিত হয় , তবে তারা ব্যাংকে অর্থ জমা রাখার বদলে নগদ অর্থ হাতে ধরে রাখবে ।

( ii ) ভবিষ্যৎ মূল্য সম্পর্কে জনগণের প্রত্যাশা মুদ্রা গুণকের মান পরোক্ষভাবে প্রভাবিত করতে পারে । যদি এ প্রত্যাশা ধনাত্মক হয় তবে C এর মান বাড়বে , ফলে M এর মান কমবে । বিপরীত অবস্থায় M এর মান বাড়বে ।

মুদ্রানীতি কিভাবে অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করে ?

উত্তর : অর্থনীতির উপর মুদ্রানীতির প্রভাব সম্পর্কে দুটি মতবাদ আছে :

i . কেইনসীয় মতবাদ এবং ii . মুদ্রাবাদী মতবাদ ।

ক . কেইনসীয় মতবাদ : কেইনসীয় অর্থনীতিবিদরা তিনটি প্রতিক্রিয়ার আলোকে মুদ্রানীতির প্রভাব আলোচনা করেন ।

১. মূলধন ব্যয় প্রতিক্রিয়া : অর্থের যোগান বাড়লে মানুষ অতিরিক্ত অর্থ বন্ড ক্রয়ের জন্য ব্যয় করে । এক্ষেত্রে বন্ডের মূল্য বাড়বে ।

২. সম্পদ প্রতিক্রিয়া : মুদ্রার পরিবর্তন হলে সম্পদ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় । এটি ভোক্তাদের আচরণ প্রভাবিত করে সামগ্রিক চাহিদার পরিবর্তন ঘটায় । ধরি অর্থের যোগান বাড়া হেতু সুদের হার কমলো ।

৩. ঋণের রেশনিং প্রতিক্রিয়া : ঋণের রেশনিং এর মাধ্যমে মুদ্রানীতি অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে ।

খ . মুদ্রাবাদীদের মতবাদ : মুদ্রাবাদীরা মনে করেন মুদ্রানীতি অর্থের চাহিদা পরিবর্তন করে অর্থনীতিকে সরাসরি প্রভাবিত করতে পারে । তারা বলেন অর্থের যোগান সুদের হার নিম্নোক্তভাবে প্রভাবিত করে অর্থনীতিতে পরিবর্তন আনতে পারে ।

১. তারল্য প্রভাব : এর দরুন সুদের হার স্বল্পমেয়াদে কমে ।

২. উৎপাদন প্রভাব : প্রাথমিকভাবে সুদের হার কমলে উৎপাদন এবং অর্থের চাহিদা বাড়লে দ্বিতীয় স্তরে সুদের হার বাড়বে ।

৩. মূল্য প্রত্যাশার প্রতিক্রিয়া : ঋণদাতারা মূল্য বাড়ার প্রত্যাশা করে আর্থিক সুদের চেয়ে প্রকৃত সুদের উপর গুরুত্বারোপ করবে । এজন্য তারা আর্থিক সুদের সাথে প্রত্যাশিত মুদ্রাস্ফীতির সমান আর্থিক প্রিমিয়াম যোগ করে সুদের হার বাড়াতে সচেষ্ট হবে ।

বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের মূলধন বাজারের ভূমিকা আলোচনা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বিনিয়োগ তহবিলের অন্যতম প্রধান উৎস হলো শেয়ার , বন্ড , ডিবেঞ্চার ইত্যাদি ইস্যু এবং বিক্রয় মূলধন বাজার এসব ঋণপত্রের লেনদেনে নিয়োজিত থাকে । বাংলাদেশের মতো কোন উন্নয়নশীল দেশে বিনিয়োগকারীদের নিজের মূলধন স্বল্প ।

১. প্রকৃত সম্পদ ও আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করে । বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে মূলধন বাজারের বেশিরভাগ লেনদেন সংরক্ষিত ঋণপত্রের মধ্যে সীমাবদ্ধ । এতৎসত্ত্বেও নতুনভাবে ইস্যুকৃত ঋণপত্রের লেনদেনের উপর গুরুত্ব দেয়া হয় এবং হচ্ছে ।

২. সম্পদের দক্ষ কণ্ঠনে সহায়ক সম্পদ প্রচুর থাকলেই একটি দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয় না । সম্পদের সুষ্ঠু বণ্টনই প্রধান বিষয় । উন্নয়নশীল দেশে সম্পদ কম থাকলেও যদি প্রাপ্ত সম্পদ দক্ষভাবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যায় তাহলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন দ্রুত হতে পারে ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে বলা যায় , বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে সঞ্চয় ও বিনিয়োগ বাড়ার পাশাপাশি সম্পদের দক্ষ বণ্টন ও ব্যবহারে মূলধন বাজার সক্রিয় সহযোগিতা করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে ।

বাংলাদেশে মূলধন বা পুঁজি বাজারের বিভিন্ন উপাদানসমূহ কী কী ?

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশের মূলধন বাজার এখনো উন্নয়নের প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে । পুঁজি বাজারের যেসব মূল বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয় তা হলো প্রাথমিক শেয়ার ইস্যু , ঢাকা এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে মাধ্যমিক বাজারের শেয়ার ক্রয়বিক্রয় ইত্যাদি ।

১. চাহিদা দিক : বাংলাদেশের পুঁজি বাজারের চাহিদার দিকে নিম্নোক্ত উপাদান কাজ করছে বলা যায় :

ক . ব্যক্তি : বিভিন্ন ব্যক্তি ঋণপত্রের প্রাথমিক দ্বিতীয় বাজারে উদ্বৃত্ত আয়ের একাংশ দ্বারা শেয়ার , ইউনিট সার্টিফিকেট , বন্ড এবং ডিবেঞ্চার ক্রয় করে । ব্যক্তির মধ্যে চাকরিজীবী এবং পেশাজীবী মানুষের সংখ্যা বেশি পরিলক্ষিত হয় ।

খ . বাণিজ্যিক ব্যাংক : পুঁজি বাজারে বাণিজ্যিক ব্যাংক ডিবেঞ্চারে নিজেদের তহবিলের একাংশ বিনিয়োগ করে ।

গ . উন্নয়ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান : বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা , বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা , শিল্প ব্যাংক , সাধারণ বীমা করপোরেশন ইত্যাদি প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় ঋণপত্রের বাজারে তহবিল বিনিয়োগ করে ।

ঘ . বিদেশি বিনিয়োগকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান: সরকারের ঘোষিত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার কারণে দেশের পুঁজি বাজারে বিদেশি ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগকারী হিসেবে অংশও , হণ করতে দেখা যায় ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত উপাদানসমূহ বাংলাদেশে পুঁজি বাজারে বিদ্যমান ।

বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশসমূহে মূলধন বাজারের উন্নতির পথে বাধাসমূহ কী কী ?

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের মূলধন বাজার এখনো প্রাথমিক স্তরে আছে । এ বাজারে শেয়ার এবং অপরাপর ঋণপত্রের যোগান এখনো সীমিত বলা যায় । দেশের মূলধন বাজারের উন্নতির পথে যেসব বাধা কাজ করছে তার একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিম্নে দেয়া হলো :

১. প্রাথমিক ঋণপত্রের অনিয়মিত যোগান : মূলধন বাজারের প্রধান অংশ স্টক মার্কেট স্বাভাবিক অবস্থায় রাখার জন্য প্রাথমিক ঋণপত্রের যোগান যথেষ্ট থাকা উচিত । তা না হলে ঋণপত্রের সংকট দেখা দিবে ।

২. বিনিয়োগকারীদের অর্থসংস্থানে দুর্বলতা : মূলধন বাজারে যেসব প্রতিষ্ঠান সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে তাদের মধ্যে বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক , বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা , বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা , সাধারণ বীমা করপোরেশন ও মার্চেন্ট ব্যাংক প্রধান ।

৩. স্টক এক্সচেঞ্জের নীতি নির্ধারণ এবং ব্যবস্থাপনায় স্ববিরোধিতা : বিশ্বের অনেক দেশে পুঁজি বাজারে নীতি • নির্ধারণী কর্তৃপক্ষ এবং ব্যবস্থাপনা পুরোপুরি আলাদা থাকে । অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকেন সরকার থেকে মনোনীত ব্যক্তি ।

৪. তথ্য ব্যবস্থায় দুর্বলতা : প্রতিনিয়ত তথ্য পাওয়া গেলে মূলধন বাজারে বিনিয়োগকারীদের পক্ষে সুবিধা হয় । এস . ই . সি বিনিয়োগকারীদের তথ্য সরবরাহের জন্য প্রতি তিন মাস অন্তর একটি এবং বছরে একটি বড় আকারের প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছিল ।

৫. এস . ই . সি এর দুর্বল মনিটরিং ব্যবস্থা : সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনের অন্যতম দায়িত্ব হলো তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানি ও স্টক এক্সচেঞ্জসমূহের নিয়মিত মনিটর করা ।

৬. শেয়ার ইস্যুকারী এবং ব্রোকারদের ম্যানিপুলেশন : বাংলাদেশে একশ্রেণীর অসাধু দালাল এবং কিছু শেয়ার ইস্যুকারী কোম্পানি অশুভ আঁতাত করে মাঝেমধ্যে শেয়ার বাজারে ম্যানিপুলেশনের আশ্রয় নেয় ।

উপসংহার : উপর্যুক্ত বাধাসমূহ বাংলাদেশের পুঁজি বাজারে বিদ্যমান । উক্ত সমস্যাসমূহ দূর করে পুঁজি বাজারকে উন্নত করা সম্ভব ।

আধা অর্থ বা মুদ্রা কী ?

উত্তর : আধা অর্থ বা মুদ্রা : এমন অনেক সম্পদ আছে যাদের মধ্যে অর্থের বেশকিছু গুণাগুণ আছে । এদেরকে আধা অর্থ বলা হয় । উদাহরণ হিসেবে মেয়াদি আমানত , স্বল্পমেয়াদি সরকারি ঋণপত্র , সঞ্চয়ী এবং ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানের আমানতি দায় ইত্যাদির কথা উল্লেখ করা যায় । এছাড়া মিউচ্যুয়াল সঞ্চয়ী ব্যাংক , ক্রেডিট ইউনিয়ন এবং অপরাপর অব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঞ্চয়ী আমানত প্রায় অর্থের আওতায় আসে । এসব আমানত যথেষ্ট তরল , এদেরকে সহজে ও স্বল্পব্যয়ে নগদ অর্থে রূপান্তর করা সম্ভব । এসব সম্পদ সুদ অর্জন করে । এরা মূল্যের সংরক্ষক হিসেবে কাজ করে । এজন্য আর্থিক পোর্টফলিওতে এসব আধা অর্থকে অর্থের বিকল্প সম্পদ বলা যায় । সুতরাং আধা অর্থ বলতে এমন সব সম্পদ বুঝায় যেগুলো মোটামুটি তরল এবং সুদ অর্জন করে অথচ নগদ অর্থের বিকল্প হিসেবে কাজ করতে পারে । |

মুদ্রা বা অর্থ সরবরাহের উপাদানসমূহ কী কী ?

উত্তর : মুদ্রা বা অর্থ সরবরাহের উপাদানসমূহ : অর্থ সরবরাহের মূল উপাদান হলো :

১. জনগণের হাতের মুদ্রা তথা ব্যাংক বহির্ভূত মুদ্রা ,

২. ব্যাংকের চাহিদা আমানত এবং

৩. ব্যাংকের মেয়াদি আমানত ।

১. জনগণের হাতের মুদ্রা : সাধারণত সরকার এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক কারেন্সি নোট ইস্যু করে । কেন্দ্রীয় ব্যাংক বেশি মূল্যের কাগজি নোট ইস্যু করে । সরকার কম মূল্যের নোট এবং ধাতব মুদ্রা ইস্যু করে ।

২. চাহিদা আমানত : চাহিদা আমানত বলতে গ্রাহকরা চাহিবামাত্র ব্যাংক পরিশোধ করতে বাধ্য এমন আমানত বুঝায় । এ ধরনের আমানত যারা ব্যাংকে রাখে তারা যে কোন সময় একে নগদ অর্থে রূপান্তর এবং লেনদেনের কাজে ব্যবহার করতে পারে । এ হিসাবে রাখা প্রায় নগদ অর্থের মতো ।

৩. মেয়াদি বা সময় আমানত : সাধারণ অর্থে মেয়াদি আমানত অর্থ সরবরাহের একটি উপাদান নয় । বিস্তৃত অর্থে এটি সরবরাহের একটি উপাদান ।

অ – ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান কী ?

উত্তর : অ – ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান একটি মধ্যবর্তী আর্থিক প্রতিষ্ঠান । অ- ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান বলতে এমন প্রতিষ্ঠান বুঝায় যেগুলো জনগণ থেকে মূলত মেয়াদি আমানত বা প্রায় অর্থসংগ্রহ করে এবং সদস্য বা গ্রাহকদেরকে বন্ধকি বা অপরাপর ধরনের ঋণ সরবরাহ করে । যেমন — লিজিং কোম্পানি , বিল্ডিং সোসাইটি ইত্যাদি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কিছু দেশে এ ধরনের প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠে ।

অধ্যাপক G. J. Gurley এবং E. Shaw এবং G. Clayton এর মতে , এসব প্রতিষ্ঠানের কাজ মুদ্রার যোগান নয় বরং মুদ্রার গতিবেগ প্রভাবিত করতে পারে । এরা ঋণের এক উল্লেখযোগ্য অংশ সরবরাহ করে । এতে দেশে মুদ্রার গতিবেগ বাড়বে । ফলে অর্থের চাহিদা বাড়বে । এতে মুদ্রানীতির কার্যকারিতা ব্যাহত হবে । অনেক সময় ঋণ তহবিলের অভাবে বাণিজ্যিক ব্যাংক জনগণের ঋণ চাহিদা মিটাতে পারে না । ফলে তারা ব্যাংক নয় এমন মধ্যবর্তী আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাছে ঋণের জন্য যায় । Radcliffe কমিটির রিপোর্ট ( যা মূলত কেইনসীয় চিন্তাধারার সাথে সংগতিপূর্ণ ) অনুযায়ী এসব প্রতিষ্ঠান অর্থ এবং প্রায় অর্থ সরবরাহ করে । এ দুই উপাদান একে অপরের ঘনিষ্ঠ বিকল্প । জনগণের অর্থের চাহিদা বাণিজ্যিক ব্যাংক মিটাতে না পারলে তারা অ – আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ চাহিদা বাড়ায় । এতে মুদ্রার প্রচলন গতি বাড়ে । ফলে মুদ্রানীতির কার্যকারিতা অনেকটা ব্যাহত হয় ।

শক্তিশালী মুদ্রা ও প্রকৃত ( সাধারণ ) মুদ্রার মধ্যে পার্থক্য কী ?

উত্তর : শক্তিশালী মুদ্রা ও প্রকৃতি ( সাধারণ ) মুদ্রার মধ্যে পার্থক্য : শক্তিশালী মুদ্রা বলতে মোট কারেন্সি এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রক্ষিত অপরাপর ব্যাংকের রিজার্ভ এ দুয়ের যোগফল বুঝায় ।

B = C + R যেখানে B = আর্থিক ভিত্তি / শক্তিশালী মুদ্রা ।

C = ব্যাংক বহির্ভূত কারেন্সির পরিমাণ বা জনগণের হাতের মুদ্রা ।

R = কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রক্ষিত অপরাপর ব্যাংকের রিজার্ভ । পক্ষান্তরে , যে মুদ্রা বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে দেশে প্রচলন এবং ব্যবহার হয় তাকে প্রকৃত বা সাধারণ মুদ্রা বলে ।

M = C + D যেখানে M = প্রকৃত / সাধারণ মুদ্রা ।

C = ব্যাংক বহির্ভূত কারেন্সি / জনগণের হাতের মুদ্রা ।

D = ব্যাংকের চাহিদা আমানত ।

উপর্যুক্ত সংজ্ঞা থেকে এ দুই ধরনের মুদ্রার মধ্যে নিম্নোলিখিত পার্থক্য দেখানো যায় :

১. শক্তিশালী মুদ্রার মধ্যে ব্যাংক আমানত নেই । অর্থাৎ ব্যাংক মুদ্রা নেই । সাধারণ মুদ্রার মধ্যে ব্যাংকের চাহিদা আমানত তথা ব্যাংক মুদ্রা অন্তর্ভুক্ত থাকে ।

২. শক্তিশালী মুদ্রা একমাত্র কেন্দ্রীয় ব্যাংক সৃষ্টি করতে পারে । ব্যাংক নিজের উপর দায় সৃষ্টি করে এরূপ মুদ্রা প্রচলন করতে পারে ।

৩. অপরাপর বিষয়সমূহ স্থির থাকলে বাণিজ্যিক ব্যাংক বহুগুণ চাহিদা আমানত অসীমভাবে সৃষ্টি করতে পারে । কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংক অসীমভাবে শক্তিশালী মুদ্রা সৃষ্টি করতে পারে না ।

৪. শক্তিশালী মুদ্রা হলো বিহীত মুদ্রা । সাধারণ / প্রকৃত মুদ্রার একাংশ বিহিত মুদ্রা হলেও অপর অংশ চাহিদা আমানত হলো ঐচ্ছিক মুদ্রা ।

আধুনিক অর্থনীতিতে মুদ্রার ভূমিকা কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : আধুনিক অর্থনীতিতে মুদ্রা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ধনাত্মক ভূমিকা পালন করলেও কিছু ক্ষেত্রে ঋণাত্মক প্রভাব সৃষ্টি করে । নিম্নে এ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো :

মুদ্রার ধনাত্মক ভূমিকা : নিম্নোক্ত উপায়ে মুদ্রা আধুনিক অর্থনীতিতে ধনাত্মক ভূমিকা পালন করে :

১. বিনিময়ের মাধ্যম : বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে মুদ্রার প্রচলন হওয়ায় আধুনিক অর্থনীতিতে দ্রব্য বিনিময়ের অসুবিধা দূর হয় । মানুষ তার রুচি , অভ্যাস ও চাহিদা অনুযায়ী দ্রব্যের লেনদেন অল্প সময়ে সহজে করতে পারছে ।

২. মূল্যের সংরক্ষক : বাস্তবে বিভিন্ন সম্পদের মাধ্যমে মানুষ ক্রয় ক্ষমতা ধরে রাখতে পারে । অর্থ , বন্ড , স্টক এবং অপরাপর আর্থিক সম্পদ হলো ক্রয় ক্ষমতা ধরে রাখার বিভিন্ন মাধ্যম ।

৩. স্থগিত লেনদেনের মান নির্ধারক : অর্থ ভবিষ্যৎ লেনদেন মিটানোর মানদণ্ড হিসেবে কাজ করে । আধুনিক অর্থনীতিতে ঋণগ্রহণ ও পরিশোধের জন্য অর্থ ব্যাপকভাবে ব্যবহার হয় ।

৪. দ্রব্য ও সেবার উৎপাদন ও কটন : আধুনিক সমাজে অর্থের ভূমিকা অনেক এবং সুদূরপ্রসারী । বর্তমান যুগে অর্থ বৃহদায়তন উৎপাদনের সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করে ।

৫. ব্যবসায় বাণিজ্যের প্রসার : পুঁজিবাদী অর্থনীতিতে উৎপাদক এবং ব্যবসায়ীদের কাছে অর্থের গুরুত্ব অপরিসীম । কারণ উৎপাদন ক্ষেত্রে শ্রম বিভাগ এবং বিশেষীকরণ অর্থ পাওয়ার উপর অনেকটা নির্ভরশীল ।

৬. ভোগ , বিনিয়োগ , আয় ও নিয়োগ নির্ধারণ : আধুনিক অর্থনীতিতে ভোগ এবং বিনিয়োগ নির্ধারণে অর্থ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । অর্থের প্রসার এবং সংকোচন দ্রব্যের চাহিদা বাড়াতে এবং কমাতে পারে ।

উপসংহার : আধুনিক অর্থনীতিতে মুদ্রার ভূমিকা অনস্বীকার্য ।

শেয়ার বাজারের সংজ্ঞা দাও ।

উত্তর : শেয়ার বাজারের ধারণা বা সংজ্ঞা : মূলধন বাজারের যে অংশে বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি শিল্প ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ইস্যু এবং ক্রয় ও বিক্রয় হয় তাকে শেয়ার বাজার বলে । শেয়ার বাজার দুই অংশে ভাগ করা যায় । প্রাথমিক শেয়ার বাজার এবং দ্বিতীয় শেয়ার বাজার । যে বাজারে নতুন শেয়ার ইস্যু করা হয় তাকে প্রাথমিক শেয়ার বাজার বলা হয় । আগে ইস্যুকৃত বিভিন্ন শেয়ারের লেনদেন যে বাজারে সম্পাদন হয় তাকে দ্বিতীয় শেয়ার বাজার বলে । প্রাথমিক বাজারে নতুন শেয়ার ক্রয় করলে ক্রেতা নগদ অর্থের বদলে সম্পদ অর্জন করে যা একমাত্র দ্বিতীয় বাজারে বিক্রয় করে নগদ অর্থে পুনরায় রূপান্তর করতে পারে । তাছাড়া প্রাথমিক বাজারে শেয়ার ক্রয়জনিত কোন ঝুঁকি দ্বিতীয় বাজার ন্যূনতম রাখতে সহায়তা করে ।

বাংলাদেশে মূলধন বাজারের বৈশিষ্ট্য কী কী ?

উত্তর : মূলধন বাজারের বৈশিষ্ট্যসমূহ : মূলধন বাজারের নিম্নোক্ত বৈশিষ্ট্য আছে :

১. দীর্ঘমেয়াদি ঋণ তহবিল নিয়ে কারবার : মূলধন বাজার সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দানযোগ্য তহবিল নিয়ে কাজকর্ম চালায় ।

২. দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্র : মূলধন বাজারে দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্র ক্রয়বিক্রয় হয় । সরকারি বন্ড , বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শেয়ার , ডিবেঞ্চার ইত্যাদি এরূপ বাজারে লেনদেন হয় ।

৩. প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো : মূলধন বাজারে সরকার ছাড়াও শিল্প ব্যাংক , বিনিয়োগ ব্যাংক , বীমা কোম্পানি , পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা , স্টক এক্সচেঞ্জ ইত্যাদি নিয়োজিত থাকে ।

৪. স্টক এক্সচে : স্টক এক্সচেঞ্জ হলো মূলধন বাজারের অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ । এখানে জয়েন্ট স্টক কোম্পানি , সরকার এবং আধা – সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঋণপত্রের লেনদেন হয় ।

৫. সময় পরিধি : সময় বিবেচনা করলে মূলধন বাজারের কাঠামো দুই ধরনের হয় । স্বল্পমেয়াদি এবং দীর্ঘমেয়াদি ।

৬. বাজার কাঠালো : মূলধন বাজার দুই অংশে ভাগ করা যায় । প্রাথমিক বাজার এবং গৌণ / মাধ্যমিক বাজার । প্রাথমিক বাজারে নতুন ঋণপত্র ইস্যু হয় ।

৭. ইক্যুইটি তহৰিল : নতুন উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ তহবিলের একাংশ বহন করবে । এ শর্তাধীনে বিশেষায়িত ব্যাংক এবং অপরাপর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বাকী তহবিলের সংস্থান করে ।

শেয়ার বাজার এবং মূলধন বাজারের মধ্যে পার্থক্য কী ?

উত্তর : শেয়ার বাজার এবং মূলধন বাঙ্গারের মধ্যে নিম্নোক্ত পার্থক্য দেখানো যায় :

১. সংজ্ঞাগত : যে বাজারে বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি শিল্প ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ইস্যু , জয় ও বিক্রয় হয় তাকে শেয়ার বাজার ফলে । অপরপক্ষে , যে বাজারে দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্র এবং ঋণ দানযোগ্য তহবিল নিয়ে কাজকর্ম চলে তাকে মূলধন বাজার বলে ।

২. হাতিয়ার : শেয়ার বাজারে শুধুমাত্র সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয় । মূলধন বাজারে দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্র ক্রয়বিক্রয় হয় ।

৩. কাঠামোগত কারণ : মূলধন বাজারের কাঠামো দুই ধরনের হয় । যথা : স্বল্পমেয়াদি এবং দীর্ঘমেয়াদি । অপরপক্ষে , শেয়ার বাজারও দুই অংশে বিভক্ত যেমন- প্রাথমিক শেয়ার বাজার এবং দ্বিতীয় / গৌণ শেয়ার বাজার ।

৪. মূলধনের যোগান : মূলধন বাজার বিভিন্ন শিল্প ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের জন্য কার্যকরী যা চলিত মূলধন এবং স্থায়ী মূলধনের যোগান দেয় । কিন্তু শেয়ার বাজার শুধুমাত্র স্থায়ী মূলধনের উৎস হিসেবে কাজ করে ।

৫. বাজারের পরিধি : মূলধন বাজারের পরিধি বৃহত্তর । কিন্তু শেয়ার বাজার এর একটি অংশমাত্র ।

৬. ইক্যুইটি তহবিল : মূলধন বাজার ইক্যুইটি তহবিলের সংস্থান করে । কিন্তু শেয়ার বাজার এ ধরনের কোন তহবিল সৃষ্টি করে না ।

৭. ঋণ তহবিলের সময় পরিধি : মূলধন বাজার প্রধানত মধ্যম এবং দীর্ঘমেয়াদি ঋণ তহবিলের উৎস হিসেবে কাজ করে । কিন্তু শেয়ার বাজার মূলত দীর্ঘমেয়াদি ঋণ তহবিলের যোগান দেয় ।

বাংলাদেশে শেয়ার বাজারে মন্দার কারণ কী কী ?

উত্তর : বাংলাদেশে শেয়ার বাজারে মন্দার কারণসমূহ : নিম্নোক্ত কারণে শেয়ার বাজারে মন্দা পরিলক্ষিত হয় :

১. প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কম : সাধারণত শেয়ার বাজারে মন্দার অন্যতম প্রধান কারণ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগের অভাব । সাধারণত সংকট দেখা দিলে অ – ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান পুঁজির যোগান বাড়িয়ে বাজার গতিশীল রাখে ।

২. ব্যবস্থাপনা : অনেক দেশে শেয়ার বাজারে নীতি নির্ধারণী কর্তৃপক্ষ এবং ব্যবস্থাপনা আলাদা থাকে । অধিকাংশ ক্ষেত্রে ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকেন সরকারের মনোনীত ব্যক্তি ।

৩. অনিয়মিত তথ্য : প্রতিনিয়ত তথ্য পাওয়া গেলে বিনিয়োগকারীদের পক্ষে সুবিধা হয় । এস . ই . সি বিনিয়োগকারীদের তথ্য সরবরাহের জন্য প্রতিতিন মাস অন্তর একটি এবং বছরে একটি বড় আকারের প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছিল ।

৪. অজ্ঞ আচরণ : একশ্রেণীর অসাধু ব্রোকার এবং কিছু শেয়ার ইস্যুকারী কোম্পানি অশুভ আঁতাত করে মাঝে মাঝেই শেয়ার বাজারে ম্যানিপুলেশনের আশ্রয় নেয় ।

৫. এস . ই . সি এর দুর্বলতা : সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনের অন্যতম দায়িত্ব হলো তালিকাভুক্ত কোম্পানি ও স্টক এক্সচেঞ্জসমূহের কাজ নিয়মিত মনিটর করা ।

বাংলাদেশে শেয়ার বাজারের মন্দা উত্তরণে তোমার সুপারিশ কী ?

উত্তর : বাংলাদেশে শেয়ার বাজারের মন্দা উত্তরণে সুপারিশ : শেয়ার বাজারকে গতিশীল করার জন্য নিম্নোক্ত পদক্ষেপ নেয়া যায় :

প্রথমত , স্টক এক্সচেঞ্জের নীতি নির্ধারণ ও ব্যবস্থাপনা পৃথক করার জন্য এদের গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করতে হবে । অর্থাৎ কমিশন স্টক এক্সচেঞ্জসমূহের নীতি নির্ধারণ করে দেবে ।

দ্বিতীয়ত , স্টক এক্সচেঞ্জগুলোর সাথে কর্তৃপক্ষের সমঝোতা এবং সহায়ক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করতে হবে ।

তৃতীয়ত , সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনে পেশাজীবী এবং দক্ষ লোক নিয়োগ করে স্বাধীনভাবে কাজ করতে হবে ।

চতুর্থত , প্রসপেক্টাসে উল্লেখ থাকতে হবে উদ্যোক্তা কোম্পানির শেয়ার কতটুকু এবং উক্ত কোম্পানির বাণিজ্যিক কাজ শুরুর ২ বছরের মধ্যে কোন শেয়ার বিক্রি করতে পারবে না । একে শেয়ার লক ইন পদ্ধতি বলে ।

পঞ্চমত , স্টক এক্সচেঞ্জ বোর্ডের বেশিরভাগ সদস্য নন ব্রোকার হবেন । সদস্যরা সরকারি – বেসরকারি ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তি হতে হবে ।

ষষ্ঠত , এক্সচেঞ্জ কমিশন তালিকাভুক্ত সব কোম্পানির তথ্য কম্পিউটারাইজ করে লাইব্রেরি গঠনের মাধ্যমে সংরক্ষণ করবে যাতে সব বিনিয়োগকারীর কাছে তথ্য সহজলভ্য হয় ।

সপ্তমত , শেয়ার বাজার সম্পর্কে প্রশিক্ষণের জন্য একটি ইনস্টিটিউট স্থাপন করতে হবে ।

অষ্টমত , আধুনিক প্রযুক্তি এবং যন্ত্রপাতি ব্যবহারের উপর গুরুত্ব দিতে হবে ।

নবমত , এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত কোম্পানির করপোরেট ট্যাক্স অ – তালিকাভুক্ত কোম্পানি চেয়ে ১০ % থেকে ১৫ % কম সুনির্দিষ্ট সময়ের জন্য চালু করা যেতে পারে ।

বাংলাদেশের পুঁজি বাজারের কাঠামো বর্ণনা কর ।

উত্তর : বাংলাদেশের পুঁজি বাজারের কাঠামো নিম্নরূপ :

১. বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা : পুঁজি বাজারের উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা নিম্নোক্ত কাজ সম্পাদন করে :

ক . শেয়ারের পাবলিক ইস্যুর অবলেখন এবং যেখানে প্রয়োজন সেখানে ব্রিজিং ঋণের ব্যবস্থাকরণ ।

খ . করপোরেট বন্ড বা ঋণপত্র ক্রয়ের মাধ্যমে শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে আর্থিক সাহায্য প্রদান ।

গ . সরকারের বিনিয়োগ নীতিতে অংশগ্রহণ ।

ঘ . বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে মেয়াদি আমানত গ্রহণ ।

ঙ . মিউচ্যুয়াল ফান্ড বা ইউনিট সার্টিফিকেট ইস্যু ।

চ . বিনিয়োগকারীদের হিসাব খোলা ও রক্ষা করা ।

২. বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা : বাংলাদেশের মূলধন বাজার উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা নিম্নোক্ত কাজ সম্পাদন করে :

ক . আর্থিক সহায়তা ছাড়াও অন্যান্য সুবিধা প্রদান যাতে করে দেশে শিল্পখাতে পুঁজি বিনিয়োগের ভিত্তি সুদৃঢ় হয় ।

খ . বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক জনগণ ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান থেকে আমানত সংগ্রহ করে ।

৩. স্টক এক্সচেঞ্জ : ঢাকা এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান উদ্দেশ্য হলো বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের জন্য বিপণন সৃষ্টি করা । যেসব কোম্পানি এ দুই স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত তাদের শেয়ার যে কোন সময়ে স্টক এক্সচেঞ্জে ক্রয়বিক্রয় করা যায় ।

বাংলাদেশে পুঁজি বা মূলধন গঠনে শেয়ার বাজারের ভূমিকা কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : শেয়ার বাজার হলো ঋণপত্রের একটি মধ্যবর্তী বাজার । এখানে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার , ডিবেঞ্চার , বন্ড ইত্যাদি ক্রয়বিক্রয় হয় । বাংলাদেশে বর্তমানে দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ কার্যরত রয়েছে । এর মধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ স্বাধীনতার আগে স্থাপিত হয় । অপরটি হলো চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ যা সাম্প্রতিক কালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে । মূলত এ দুই প্রতিষ্ঠান শেয়ার বাজারের মাধ্যমে পুঁজি গঠনে ভূমিকা পালন করে ।

১. প্রথমত , বিনিয়োগে আবদ্ধ মূলধনের হস্তান্তর যোগ্যতা এবং তারল্যের নিশ্চয়তা বিধান স্টক এক্সচেঞ্জ করছে । কারণ ঢাকা এবং চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ ঋণপত্র লেনদেনের অবিচ্ছিন্ন বাজার হিসেবে কাজ করছে ।

২. দ্বিতীয়ত , স্টক এক্সচেঞ্জ ব্যক্তি , ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান করপোরেশন ইত্যাদির সঞ্চয় বিভিন্ন করপোরেট ঋণপত্রে বিনিয়োগে সহায়তা করে তাদের জন্য লাভজনক অর্থায়ন হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

৩. তৃতীয়ত , স্টক এক্সচেঞ্জসমূহ দেশের বিভিন্ন শিল্প / ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিনিয়োগযোগ্য তহবিল বণ্টনে সহায়তা করে ।

৪. চতুর্থত , স্টক এক্সচেঞ্জগুলো সরাসরি ঋণদানে নিয়োজিত না থাকলেও পরোক্ষভাবে শিল্পখাতে অর্থসংস্থানের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান নিজেদের কাছে রক্ষিত ঋণপত্রাদি স্টক মার্কেটের দালালদের মাধ্যমে বিক্রি করে জরুরি সময়ে মূলধন সংগ্রহ করতে পারে ।

উপসংহার : সবশেষে বাংলাদেশে স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে তালিকাভুক্ত কোম্পানির ঋণপত্র বিনিয়োগকারীরা ক্রয় করে । স্টক মার্কেট অবিচ্ছিন্ন , ঋণপত্রের বাজারজাতকরণ এবং তারল্যের নিশ্চয়তা বিধান করে ।

বাংলাদেশের মতো অনুন্নত মুদ্রা বাজারের ত্রুটিসমূহ কী কী ?

উত্তর : অনুন্নত অর্থ বাজারের নিম্নোক্ত ত্রুটি আছে :

১. কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাংগঠনিক এবং আইনগত দুর্বলতা : অনুন্নত অর্থ বাজারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আছে । তবে এর সাংগঠনিক ও আইনগত ভিত্তি দুর্বল । কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আইনগত অধিকারের মধ্যে ফাঁক আছে । অনেক দেশে অর্থ মন্ত্রণালয় অর্থ বাজার নিয়ন্ত্রণ করে ।

২. শক্তিশালী এবং পারস্পরিক ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত উপবাজারের অনুপস্থিতি : অনুন্নত অর্থ বাজারে উপবাজার যেমন – বিল বাজার , তলবি ঋণ বাজার , ঋণপত্রের বাজার ইত্যাদি উন্নত নয় । এদের সংবেদনশীলতা কম । কিছু অনুন্নত দেশে এসব বাজার নেই বললেই চলে ।

৩. পরনির্ভরশীলতা : অনুন্নত অর্থ বাজার আন্তর্জাতিক লেনদেনের জন্য বিদেশি ব্যাংক এবং প্রতিনিধিদের উপর নির্ভরশীল । দেশে কোন উন্নত মানের আর্থিক কেন্দ্র না থাকায় এ নির্ভরশীলতার সৃষ্টি হয় ।

8. • দ্বৈত প্রকৃতির অর্থ বাজার : অনুন্নত অর্থ বাজার দ্বৈত প্রকৃতির । অর্থ বাজারের দুই অংশ আছে , সংগঠিত অংশ যেখানে কেন্দ্রীয় এবং অন্যান্য ব্যাংক কার্যরত । অসংগঠিত অংশ যেখানে গ্রাম্য মহাজন , স্বর্ণকার ইত্যাদি লোক আর্থিক লেনদেনে নিয়োজিত ।

৫. আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে যোগাযোগ কম : অনুন্নত অর্থ বাজারের সাথে বিশ্বের উন্নত অর্থ বাজারের যোগাযোগ নিবিড় নয় । এখানে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কোন আর্থিক কেন্দ্র নেই । যেমন- বাংলাদেশের অর্থ বাজারে লন্ডনের মতো কোন সংবেদনশীল অংশ নেই ।

সংকীর্ণ ও ব্যাপক মুদ্রার মধ্যে পার্থক্য দেখাও ।

উত্তর : আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল । সংকীর্ণ এবং বিস্তৃত অর্থে অর্থ সরবরাহের ধারণা প্রকাশ করে । সংকীর্ণ অর্থ বলতে জনগণের হাতের নগদ অর্থ এবং তফশিলি ব্যাংকের চাহিদা আমানতের সমষ্টি বুঝায় । M = Cu + DD ; যেখানে My = সংকীর্ণ অর্থ , Cu = জনগণের হাতের অর্থ এবং DD = ব্যাংকের চাহিদা আমানত । বিস্তৃত অর্থ , সংকীর্ণ অর্থ এবং ব্যাংকের মেয়াদি আমানতের যোগফল : M2 = M + TD = CU + DD + TD যেখানে TD = তফশিলি ব্যাংকের মেয়াদি আমানত । তারল্যের ভিত্তিতে সংকীর্ণ এবং ব্যাপক অর্থের মধ্যে পার্থক্য আছে । ব্যাপক অর্থ , সংকীর্ণ অর্থ এবং মেয়াদি আমানতের যোগফল । মেয়াদি আমানত যে কোন সময় লেনদেনের কাজে ব্যবহার করা যায় না । কারণ একে বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা যায় না ।

কালো টাকা কী ?

উত্তর : কোন দেশে কাগজি নোট অথবা ধাতব মুদ্রা লেনদেনের মাধ্যম এবং মূল্যের সংরক্ষণ হিসেবে ব্যবহার হয় । কিন্তু এ মুদ্রার যে অংশ লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার না হয়ে লুকায়িত মজুদের আকারে থাকে তাকে কালো মুদ্রা বা কালো টাকা বলা হয় । এক কথায় কোন ব্যক্তি তার কাছে থাকা টাকার যে অংশ অনৈতিকভাবে মজুদ রাখে অথবা কোন অবৈধ কাজ কারবারে বিনিয়োগ করে তখন ঐ অংশকে কালো টাকা বলা হয় । কালো টাকা নিম্নোক্তভাবে সৃষ্টি হয় : গোপন ব্যবসায় বাণিজ্য থেকে অর্জিত অর্থ যা আয়করের আওতায় আসে না । চোরাকারবার থেকে অর্জিত অর্থ চোরাচালানিরা গুপ্তভাবে সংরক্ষণ করে । উৎকোচ অথবা ঘুষ গ্রহণ । মাদক দ্রব্য উৎপাদন ও বিক্রি থেকে অর্জিত টাকা । * মুদ্রার কালোবাজারি থেকে অর্জিত অতিরিক্ত টাকা ।

বাংলাদেশে আর্থিক নীতির গুরুত্ব , লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য কী ?

উত্তর : কতকগুলো সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সামনে রেখে সরকার আর্থিক নীতি গ্রহণ করে । নিম্নে আর্থিক নীতির গুরুত্ব , লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য আলোচনা করা হলো :

১. বিনিয়োগ ও নিয়োগ বৃদ্ধি : অর্থনীতিতে বেকারত্ব দূরীকরণে বিনিয়োগের ভূমিকা অনস্বীকার্য । তাই বিনিয়োগ কার্যক্রমকে ত্বরান্বিত করার জন্য তথা কর্মসংস্থান বৃদ্ধির জন্য আর্থিক নীতির প্রয়োগ একটি স্বীকৃত মাধ্যম ।

২. তারল্যতা নিয়ন্ত্রণ : অর্থ বাজারে অর্থের তারল্য বৃদ্ধি কিংবা সংকট দেখা দিলে অর্থনীতিতে অস্থিতিশীলতা দেখা দেয় । অর্থের তারল্যতা নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় বজায় রাখতে আর্থিক নীতির আশ্রয় নেয়া হয় ।

৩. দামন্তরের স্থিতিশীলতা রক্ষা করা : দামস্তরের অনাকাঙ্ক্ষিত উঠানামা নিয়ন্ত্রণ করা তথা অর্থের অভ্যন্তরীণ মূল্য নিয়ন্ত্রণ করা আর্থিক নীতির অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য । দামস্তর অতিমাত্রায় উঠানামা করলে অর্থনীতিতে মুদ্রাস্ফীতি ও মুদ্রা সংকোচন তথা বেকারত্ব বা মন্দা দেখা দেয় ।

৪. অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করা : সরকারের যে কোন নীতির ন্যায় আর্থিক নীতিরও অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হলো জাতীয় আয়ের প্রবৃদ্ধির হার বাড়ানো এবং প্রকৃতপক্ষে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করা ।

৫. ঋণ সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ : আর্থিক নীতি দেশের ঋণ সরবরাহকে নিয়ন্ত্রণ করে । ঋণের অনাবশ্যক সম্প্রসারণ কিংবা প্রয়োজনের তুলনায় সংকোচন দেশের অর্থনীতিতে বিপর্যয় ডেকে আনে ।

৬. অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণ : অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে অর্থের সরবরাহ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । আর্থিক নীতি প্রয়োগের মাধ্যমে অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণ করা হয় ।

৭. অর্থের বাহ্যিক মূল্য নিয়ন্ত্রণ : বৈদেশিক মুদ্রার সাথে দেশীয় মুদ্রার বিনিময় হার অতিমাত্রায় উঠানামা করলে তা আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে । কাজেই আমদানি রপ্তানি বাণিজ্য পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে বৈদেশিক মুদ্রার সাথে দেশীয় মুদ্রার বিনিময় হার স্থিতিশীল রাখা জরুরি । এক্ষেত্রে আর্থিক নীতির প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য ।

বাংলাদেশে অর্থনৈতিক উন্নয়নে আর্থিক নীতির ভূমিকা উল্লেখ কর ।

উত্তর : বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আর্থিক নীতি গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে । নিম্নে আর্থিক নীতির ভূমিকা তুলে ধরা হলো :

১. ভোগ বৃদ্ধি : সরকার আর্থিক নীতির অংশ হিসেবে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে সহজ শর্তে পণ্য ঋণ প্রদানের অনুমতি দিয়ে থাকে । এর ফলে উন্নত ভোগ্যপণ্যের ভোগ বাড়ে , উৎপাদন বাড়ে ও জনকল্যাণ বৃদ্ধি পায় ।

২. ঋণ নিয়ন্ত্রণ : আর্থিক নীতি প্রয়োগ করে ঋণ সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ করা হয় । ঋণের অনাবশ্যক সম্প্রসারণ কিংবা প্রয়োজনের তুলনায় সংকোচন অর্থনীতিতে অস্থিতিশীলতা ও বিপর্যয় ডেকে আনে ।

৩. তারল্য সংকট মোকাবিলা : বাংলাদেশের অর্থ বাজারে প্রায়ই তারল্য সংকট দেখা দেয় । এর ফলে অর্থনীতিতে অস্থিতিশীলতা দেখা দেয় । অর্থের তারল্যতা নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় বজায় রাখার জন্য আর্থিক নীতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

৪. বেকারত্ব দূরীকরণ : বেকারত্ব বাংলাদেশের অর্থনীতির একটি দীর্ঘদিনের স্থায়ী সমস্যা । সরকার সহজে আর্থিক নীতি গ্রহণের মাধ্যমে সুদের হার কমিয়ে ঋণ ও অর্থের সরবরাহ বাড়িয়ে বেসরকারি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে পারে ।

৫. অর্থের বাহ্যিক মূল্য নিয়ন্ত্রণ : আর্থিক নীতি প্রয়োগের মাধ্যমে বিদেশি মুদ্রার সাথে দেশীয় মুদ্রার বিনিময় হার স্থিতিশীল রাখা যায় । এর ফলে আমদানি রপ্তানি বাণিজ্যে স্থিতিশীলতা বজায় থাকে ।

৬. প্রবৃদ্ধি অর্জন : অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে বাংলাদেশে আর্থিক নীতি পরিচালিত হয় ।

৭. মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ : মুদ্রাস্ফীতি বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম প্রধান একটি সমস্যা । সরকার সংকোচনমূলক আর্থিক নীতি গ্রহণের মাধ্যমে ঋণ ও অর্থের সরবরাহ কমিয়ে রেখে মুদ্রাস্ফীতির হার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে ।

৮. অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণ : আর্থিক নীতি অর্থের যোগান নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

বাংলাদেশে আর্থিক নীতির সীমাবদ্ধতা আলোচনা কর ।

অথবা , বাংলাদেশে আর্থিক নীতি কেন ব্যর্থ হয় ?

উত্তর : বাংলাদেশের বাস্তবতায় আর্থিক নীতি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে । এর ফলে আর্থিক নীতি লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়ে পড়ে । নিয়ে আর্থিক নীতি কার্যকারিতার সীমাবদ্ধতাসমূহ তুলে ধরা হলো :

১. অবকাঠামোগত দুর্বলতা : বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে সরকারের আর্থিক খাতে অবকাঠামোগত দুর্বলতার কারণে আর্থিক নীতি প্রয়োগ করা সম্ভব হয় না ।

২. সমন্বয়হীনতা : বাংলাদেশ ব্যাংক , বাণিজ্যিক ব্যাংক , বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান , সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশন ইত্যাদি অর্থ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মধ্যে যথেষ্ট সমন্বয়ের অভাব রয়েছে ।

৩. ঋণ নিয়ন্ত্রণ সমস্যা : বাংলাদেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথা বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণ নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা খুবই সীমিত । এ অবস্থায় আর্থিক নীতি লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হতে বাধ্য ।

৪. তারল্য সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থতা : বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকসমূহের তারল্য সংকট নিরসনে বার বার ব্যর্থতার পরিচয় দেয় ।

৫. অসংগঠিত অর্থ বাজার : বাংলাদেশের অর্থ বাজার ও মূলধন বাজার এখনো সংগঠিত নয় । এ অবস্থায় আর্থিক নীতি কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে না ।

৬. কালো টাকা : বাংলাদেশের অর্থনীতি বহুলাংশে কালো টাকা বা অবৈধ অর্থ দ্বারা পরিচালিত হয় । এ কারণে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আর্থিক নীতি অকার্যকর হয়ে পড়ে ।

৭. কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দুর্বল নিয়ন্ত্রণ : বাংলাদেশে বাণিজ্যিক ব্যাংকসহ অপরাপর আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কঠোর নিয়ন্ত্রণ নেই । এ অবস্থায় সরকার কর্তৃক গৃহীত আর্থিক নীতি লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়ে পড়ে ।

৮. অর্থের বাহ্যিক মূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা : সর্বোপরি বিদেশি মুদ্রার সাথে দেশি মুদ্রার বাহ্যিক মূল্য স্থিতিশীল রাখা আর্থিক নীতির অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হলেও বাংলাদেশে তা সম্ভব হয় না ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!