অথবা, মীমাংসা মতে শব্দ কী? বেদের নিত্যত্ব এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণের জন্য মীমাংসকদের মত আলোচনা কর।
অথবা, শব্দ বলতে মীমাংসকরা কী বুঝিয়েছেন? বেদের নিত্যত্ব এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণের জন্য মীমাংসকদের মত আলোচনা কর।
অথবা, মীমাংসা দার্শনিকদের আলোকে “শব্দ” প্রত্যয়টি সংক্ষেপে লেখ। বেদের নিত্যতা এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণে মীমাংসকদের যুক্তিগুলো কী কী? বর্ণনা কর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
ভারতীয় দর্শনের বিভিন্ন আস্তিক স্কুলসমূহের মধ্যে মীমাংসা দর্শন খুবই গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। মহর্ষি জৈমিনি মীমাংসা দর্শনের প্রতিষ্ঠাতা। প্রতিষ্ঠাতার নামানুসারে মীমাংসা দর্শনের আর এক নাম ‘জৈমিনি দর্শন’ । মীমাংসা দর্শনকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়। যথা : ১. জ্ঞান (Knowledge) ২. তত্ত্ব (Metaphysics) এবং ৩. নীতি ও ধর্ম (Ethics and Religion)। প্রমাণ হলো যথার্থ জ্ঞান লাভের প্রণালি বা উপায়। জৈমিনির মতে, প্রমাণ তিন প্রকারের । যথা : ১. প্রত্যক্ষ, ২. অনুমান ও ৩. শব্দ। কিন্তু প্রভাকরের মতে প্রমাণ পাঁচ প্রকারের। যথা : ১. প্রত্যক্ষ, ২. অনুমান, ৩. শব্দ, ৪. উপমান ও ৫. অর্থাপত্তি। কুমারিল ভট্ট প্রভাকর মিত্র প্রদত্ত পাঁচ প্রকার প্রমাণের সাথে আর একটি
প্রমাণ যোগ করেন। সেটি হলো অনুপলব্ধি। সুতরাং কুমারিলের মতে প্রমাণ ছয় প্রকার। যথা : ১. প্রত্যক্ষ, ২. অনুমান, *৩. শব্দ, ৪. উপমান, ৫. অর্থাপত্তি এবং ৬. অনুপলব্ধি। নিম্নে মীমাংসা দর্শনের শব্দ প্রমাণ আলোচনা করা হলো :
শব্দ (Testimony) : মীমাংসকগণ শব্দ প্রমাণের উপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করে বলেন যে, বিশ্বাসযোগ্য ব্যক্তির বচনই হলো শব্দ এবং ঐ বচনের উপর নির্ভর করে যে জ্ঞান লাভ করা যায়, তাই শব্দজ্ঞান। মীমাংসকদের মতে, শব্দ দুই প্রকার । যথা : ১. পৌরুষেয় ও ২. অপৌরুষেয়।
১. পৌরুষেয় : মীমাংসকদের মতে, কোন বিশ্বাসযোগ্য ব্যক্তির বচন হলো পৌরুষেয়।
২. অপৌরুষেয় : মীমাংসকদের মতে, বেদের বচন হলো অপৌরুষেয়। বেদের নিত্যত্ব এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণের জন্য মীমাংসকদের যুক্তি : মীমাংসকদের মতে, বেদ মুখ্য শব্দ প্রমাণ, তবে বেদ ঈশ্বর প্রণীত নয়। অধিকাংশ বেদে-বিশ্বাসী দর্শন মতে, বেদ ঈশ্বর রচিত। মীমাংসকরা কিন্তু ঈশ্বরের অস্তিত্বে বিশ্বাস করে না। কোন ঈশ্বর জগতের স্রষ্টাও নন, আবার সংহারকও নন। তাঁদের মতে, জগৎ নিত্য এবং বেদও নিত্য। তাঁরা বলেন, কোন সাধারণ বা অসাধারণ পুরুষ বেদকে রচনা করেন নি বলেই বেদ অপৌরুষেয়। বেদের নিত্যত্ব এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণের জন্য মীমাংসকরা অনেক যুক্তি দিয়েছেন। এ যুক্তিগুলো হলো-
প্রথমত, বেদের যদি কোন রচয়িতা থাকতো তবে তা কারো না কারো জানা থাকতো। যেহেতু বেদের কোন রচয়িতার নাম কারো জানা নেই সেহেতু বেদের কোন রচয়িতা নেই।
দ্বিতীয়ত, যে সমস্ত প্রাচীন চিন্তাবিদ বেদকে সৃষ্ট বলেন, তাঁরা বেদের স্রষ্টা কে-এ সম্পর্কে একমত নন। কেউ বলেন, ঈশ্বরই বেদের স্রষ্টা, আবার কেউ বলে, হিরণ্যগর্ভ বেদের স্রষ্টা ইত্যাদি। বেদ রচয়িতার নাম সম্পর্কে এ মতভেদ দেখে মীমাংসকরা মনে করেন যে, বেদের কোন রচয়িতা নেই। বেদের রচয়িতা সম্পর্কে ধারণা সাদৃশ্যমূলক অনুমানের ফল।
অনুমানটি হলো- বেদের রচয়িতা থাকবেই, যেহেতু বেদ গ্রন্থ এবং সব সাধারণ গ্রন্থের রচয়িতা আছে।
তৃতীয়ত, বৈদিক মন্ত্রের সঙ্গে কোন ঋষির নাম যুক্ত আছে এবং এ কারণে বেদকে কেউ কেউ পৌরুষেয় বা কৃত্রিম মনে করেন। কিন্তু এ কথা স্মরণে রাখতে হবে যে, ঋষিরা মন্ত্রের স্রষ্টা নন, তাঁরা মন্ত্রের দ্রষ্টা ও প্রকাশক ।
চতুর্থত, কেউ কেউ বলেন, বেদ শব্দের সমষ্টি। শব্দ সৃষ্ট, তাই অনিত্য। কাজেই বেদও অনিত্য। এ বিরুদ্ধ যুক্তির খণ্ডনে মীমাংসকরা বলেন, শব্দ দুই প্রকার। যথা: ১। ধ্বন্যাত্মক ও বর্ণাত্মক। ধ্বন্যাত্মক শব্দ বায়ুর গুণ এবং অনিত্য। কিন্তু বর্ণাত্মক শব্দ কোন দ্রব্যের গুণ নয়। সে নিজেই এক প্রকার দ্রব্য এবং নিত্য। যে শব্দ বক্তা বলেন এবং শ্রোতা শোনেন তা বর্ণাত্মক শব্দের প্রকাশ মাত্র। যেমন- ‘ক’ এ বর্ণকে বিভিন্ন দেশে এবং বিভিন্ন কালে বিভিন্ন ব্যক্তি উচ্চারণ করলে বিভিন্ন ধ্বনি উৎপন্ন হয়। কিন্তু এ বিভিন্ন ধ্বনি একই ‘ক’ বর্ণের প্রকাশ। এ ‘ক’ বর্ণ নিত্য । বৈদিক শব্দ বর্ণাত্মক শব্দ, তাই নিত্য। কাজেই বেদও নিত্য।
পঞ্চমত, বেদে বিভিন্ন যাগযজ্ঞ অনুষ্ঠানের বিভিন্ন ফললাভের উল্লেখ আছে। কোন্ কোন্ যজ্ঞানুষ্ঠানের ফলে স্বর্গ লাভ হয়—এ কথা বলা আছে। কিন্তু যজ্ঞ অনুষ্ঠানের ফলে স্বর্গ লাভ হয়েছে, —এ রকম অভিজ্ঞতা কোন পুরুষের নেই । তাই কোন পুরুষ যজ্ঞানুষ্ঠানের ফলে স্বর্গ লাভ হয়-এ কথা বলতে পারে না। কাজেই বেদ কোন পুরুষ কর্তৃক রচিত নয়। অর্থাৎ বেদ
অপৌরুষেয়। অপৌরুষেয় বলে বেদ অভ্রান্ত, যেহেতু পুরুষ যেসব ভুল করে সেসব ভুল বেদে থাকতে পারে না।
ষষ্ঠত, চার্বাক দার্শনিকেরা বেদকে ধূর্ত ও প্রতারক ব্যক্তির সৃষ্টি বলেছেন। মীমাংসকরা বলেন, চার্বাকদের এ উক্তিও বিশ্বাস্য নয় । কারণ কোন প্রতারক প্রণীত গ্রন্থ বংশ-পরম্পরাক্রমে পঠিত হতে পারে না। কিন্তু বেদ বংশ-পরম্পরাক্রমে পঠিত হচ্ছে।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, মীমাংসকরা তাঁদের প্রমাণ সম্পৰ্কীয় মতবাদে শব্দ প্রমাণের খুবই গুরুত্বপূর্ণভাবে এবং নতুন দৃষ্টিভঙ্গির আলোচনা করেছেন। বেদের নিত্যত্ব এবং অপৌরষেয়ত্ব প্রমাণের জন্য মীমাংসকরা যে যুক্তি দিয়েছেন তা ভারতীয় দর্শনে একটি উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করে আছে।

https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%a6%e0%a6%b6%e0%a6%ae-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%ae%e0%a7%80%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%82%e0%a6%b8%e0%a6%be/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!