General Knowledge

ভাষা আন্দোলনের তাৎপর্য বা গুরুত্ব আলোচনা কর।

ভাষা আন্দোলনের তাৎপর্শ বা গুরুত্ব আলোচনা কর।
অথবা, ভাষা আন্দোলনের ভূমিকা আলোচনা কর।
অথবা, ভাষা আন্দোলনই স্বাধীনতা যুদ্ধের চাবিকাঠি? আলোচনা কর।
অথবা, ভাষা আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা সবিস্তারে উল্লেখ কর।
উত্তর৷ ভূমিকা : ভারতবর্ষের ইতিহাস তথা বাঙালি জাতির ইতিহাস হলো আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস।
আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়েই বাঙালিরা ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ বেনিয়াদেরকে উপমহাদেশ থেকে বিদায় করতে সক্ষম
হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে ব্রিটিশ বেনিয়াদের বিতাড়িত করার পর বাঙালিরা পশ্চিমা চক্রের বা শাসকচক্রের শোষণ, নির্যাতনের
বিষয়ে পরিণত হয়। পশ্চিমা শাসকচক্র দেশ বিভক্তির পরেই উপলব্ধি করে যে, যে কোনো জাতিকে ধ্বংস করতে হলে
আগে তার ভাষা ও সংস্কৃতিকে আঘাত হানতে হবে। তাই এ চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে তারা প্রথমে বাঙালির মুখের ভাষা কেঁড়ে
নিতে চায়। এ ভাষা কেঁড়ে নেয়ার চক্রান্ত থেকেই পাকিস্তানে সংঘটিত হয় ভাষা আন্দোলনের। ঐতিহ্যগত দিক বিবেচনায়
এটা ছিল পশ্চিমা শাসকচক্রের পাকিস্তানি জনগণের উপর প্রত্যক্ষ আঘাত। ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব বা তাৎপর্য : একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। একুশের চেতনাই বাঙালি জাতিকে দিয়েছে অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার, শোষণের বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামের প্রেরণা।ভাষা আন্দোলন জাতীয়তাবাদের প্রথম উন্মেষ। আন্দোলনের প্রত্যক্ষ ফল ছিল বাঙালি জাতির আপন সত্তার উপলব্ধি এবং ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রেরণা। এ আন্দোলনই বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার আন্দোলনের অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত করে স্বাধীন সার্বভৌম
বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সশস্ত্র সংগ্রামে লিপ্ত হওয়ার অনুপ্রেরণা দেয়। পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই শাসকগোষ্ঠী রাজনৈতিক,
সামাজিক ক্ষেত্রে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানকে তাদের উপনিবেশ হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিল। এ
উদ্দেশ্য সাধনের জন্যই বাঙালিদের মাতৃভাষার উপর চরম আঘাত হানে। পাকিস্তান সৃষ্টির পর পরই রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন
শুরু হলেও মূলত ১৯৫২ সালের রাষ্ট্রভাষার প্রশ্নে বাঙালি জাতি আন্দোলনে ঐক্যবদ্ধ হয়। ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব এখানে
যে এর মাধ্যমেই এ প্রদেশের মানুষ অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামী শিক্ষা লাভ করে। এ আন্দোলনের মাধ্যমে জাতীয়তাবাদী
চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে শাসকচক্রের প্রতিটি ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিতে সক্ষম হয়। ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে
প্রেরণা দিয়েছে একুশের ভাষা আন্দোলনের রক্তরাঙ্গা ইতিহাস। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে তাই ভাষা আন্দোলনের ফল
বলা যায়। ১৯৪৭ সালের দেশ বিভক্তির পর থেকে পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী মুখের ভাষা নিয়ে যে ষড়যন্ত্র করে তা বাংলার কোন
স্তরের মানুষকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। বাংলার ছাত্ররা এ আন্দোলনকে দমন করার জন্য সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠন
করেন যা জাতীয়তাবাদী চেতনার ফসল।অন্যদিকে, জাতীয় সংগ্রাম পরিষদ ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে যে কোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলা করার
প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। এ প্রস্তুতিতে ভীত হয়ে পাকিস্তানি প্রতিক্রিয়াশীল শাসকগোষ্ঠী দমনমূলক নীতি অবলম্বন করলেও তা
ছাত্রদেরকে আটকিয়ে রাখতে পারেনি। তাই ছাত্ররা ২১ ফেব্রুয়ারিকে যখন রাষ্ট্রভাষা দিবস পালন করার কথা ঘোষণা করে,
তখন পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠী ছাত্রদের দমন করার জন্য পূর্বেই ১৪৪ ধারা জারি করে সকল প্রকার মিছিল, মিটিং,
শোভাযাত্রা ইত্যাদি নিষিদ্ধ করে। কিন্তু নিষিদ্ধ করলেও তা ছাত্ররা অবজ্ঞা করে রাস্তায় নেমে আসে। ফলে সংঘটিত হয়
পুলিশের গুলিতে হত্যাকাণ্ড। যে গুলিতে নিহত হয় সালাম, বরকত, রফিক ও জব্বারসহ আরো অনেকে। এছাড়া বন্দী করা
হয় অসংখ্য নেতাকে। কিন্তু তা ছাত্রদের প্রবল চেতনাবোধকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। ফলে সরকার বাধ্য হন সিদ্ধান্ত
পাল্টাতে। ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করেই বাঙালি জনসাধারণ প্রথম বিজয়ের স্বাদ পায়। আর এজন্যই তারা পরবর্তীতে
অগ্রসর হয় পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। ফলে ১৯৬৯ সালে ছাত্ররা ১১ দফা পেশ করে।
অন্যদিকে, এর মাধ্যমেই বাঙালিরা পরবর্তীতে মুক্তিসংগ্রামে অবতীর্ণ হওয়ার সাহস পায়। তবে এক্ষেত্রে নেতৃত্বের
প্রেরণা ছিল অনেকটা। কারণ ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে বিশাল জনসমুদ্রে
প্রতিক্রিয়াশীল শাসকচক্রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে ৪ দফা দাবি উত্থাপন করে ঘোষণায় বলেছেন যে,
“এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।” এছাড়া এ সংগ্রামকে সাফল্যমণ্ডিত করার জন্য যার
যা আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান। এছাড়া দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার জন্য
আন্দোলনের ডাক দেন। ফলে দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে অর্জিত হয় বাংলাদেশ।
উপসংহার: পরিশেষে বলা যায় যে, ভাষা আন্দোলন ছিল বাঙালি জাতির মুখের ভাষাকে রক্ষা করার জন্য নিরস্ত্র
বাঙালির স্বশস্ত্র ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে প্রথম প্রত্যক্ষ আন্দোলন। বাঙালির মুখের ভাষা যাতে কেউ কেঁড়ে নিতে না পারে
সেজন্য প্রতিবাদে সোচ্চার ছিল। আর প্রতিবাদে সোচ্চার ছিল বলে সফল হতে সক্ষম হয়। তবে এটা ছিল বিভক্তির পর
বাঙালি জাতির প্রথম বিজয়। এ বিজয়ের শিক্ষা থেকে তারা আরো বেশিমাত্রায় অধিকার সচেতন হয়ে উঠে। এ অধিকার
সচেতনতা থেকে বাঙালিরা প্রেরণা পায় পরবর্তীতে আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার। তবে ইংরেজ শাসক শ্রেণির জন্য এটা ছিল
জাতীয় বিপর্যয় যার কারণে এ বিপর্যয় ১৯৭১ সালে তাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়।
অথবা, ভাষা আন্দোলনের ভূমিকা আলোচনা কর।
অথবা, ভাষা আন্দোলনই স্বাধীনতা যুদ্ধের চাবিকাঠি? আলোচনা কর।
অথবা, ভাষা আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা সবিস্তারে উল্লেখ কর।
উত্তর৷ ভূমিকা : ভারতবর্ষের ইতিহাস তথা বাঙালি জাতির ইতিহাস হলো আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস। আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়েই বাঙালিরা ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ বেনিয়াদেরকে উপমহাদেশ থেকে বিদায় করতে সক্ষম
হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে ব্রিটিশ বেনিয়াদের বিতাড়িত করার পর বাঙালিরা পশ্চিমা চক্রের বা শাসকচক্রের শোষণ, নির্যাতনের বিষয়ে পরিণত হয়। পশ্চিমা শাসকচক্র দেশ বিভক্তির পরেই উপলব্ধি করে যে, যে কোনো জাতিকে ধ্বংস করতে হলে আগে তার ভাষা ও সংস্কৃতিকে আঘাত হানতে হবে। তাই এ চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে তারা প্রথমে বাঙালির মুখের ভাষা কেঁড়ে
নিতে চায়। এ ভাষা কেঁড়ে নেয়ার চক্রান্ত থেকেই পাকিস্তানে সংঘটিত হয় ভাষা আন্দোলনের। ঐতিহ্যগত দিক বিবেচনায়
এটা ছিল পশ্চিমা শাসকচক্রের পাকিস্তানি জনগণের উপর প্রত্যক্ষ আঘাত। ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব বা তাৎপর্য : একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। একুশের চেতনাই বাঙালি জাতিকে দিয়েছে অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার, শোষণের বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামের প্রেরণা। ভাষা আন্দোলন জাতীয়তাবাদের প্রথম উন্মেষ। আন্দোলনের প্রত্যক্ষ ফল ছিল বাঙালি জাতির আপন সত্তার উপলব্ধি এবং ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রেরণা। এ আন্দোলনই বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার আন্দোলনের অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত করে স্বাধীন সার্বভৌম
বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সশস্ত্র সংগ্রামে লিপ্ত হওয়ার অনুপ্রেরণা দেয়। পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই শাসকগোষ্ঠী রাজনৈতিক,
সামাজিক ক্ষেত্রে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানকে তাদের উপনিবেশ হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিল। এ
উদ্দেশ্য সাধনের জন্যই বাঙালিদের মাতৃভাষার উপর চরম আঘাত হানে। পাকিস্তান সৃষ্টির পর পরই রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন শুরু হলেও মূলত ১৯৫২ সালের রাষ্ট্রভাষার প্রশ্নে বাঙালি জাতি আন্দোলনে ঐক্যবদ্ধ হয়। ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব এখানে যে এর মাধ্যমেই এ প্রদেশের মানুষ অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামী শিক্ষা লাভ করে। এ আন্দোলনের মাধ্যমে জাতীয়তাবাদী
চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে শাসকচক্রের প্রতিটি ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিতে সক্ষম হয়। ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে প্রেরণা দিয়েছে একুশের ভাষা আন্দোলনের রক্তরাঙ্গা ইতিহাস। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে তাই ভাষা আন্দোলনের ফল বলা যায়। ১৯৪৭ সালের দেশ বিভক্তির পর থেকে পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী মুখের ভাষা নিয়ে যে ষড়যন্ত্র করে তা বাংলার কোন
স্তরের মানুষকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। বাংলার ছাত্ররা এ আন্দোলনকে দমন করার জন্য সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন যা জাতীয়তাবাদী চেতনার ফসল।অন্যদিকে, জাতীয় সংগ্রাম পরিষদ ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে যে কোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলা করার
প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। এ প্রস্তুতিতে ভীত হয়ে পাকিস্তানি প্রতিক্রিয়াশীল শাসকগোষ্ঠী দমনমূলক নীতি অবলম্বন করলেও তা
ছাত্রদের কে আটকিয়ে রাখতে পারেনি। তাই ছাত্ররা ২১ ফেব্রুয়ারিকে যখন রাষ্ট্রভাষা দিবস পালন করার কথা ঘোষণা করে,
তখন পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠী ছাত্রদের দমন করার জন্য পূর্বেই ১৪৪ ধারা জারি করে সকল প্রকার মিছিল, মিটিং,্যশোভাযাত্রা ইত্যাদি নিষিদ্ধ করে। কিন্তু নিষিদ্ধ করলেও তা ছাত্ররা অবজ্ঞা করে রাস্তায় নেমে আসে। ফলে সংঘটিত হয় পুলিশের গুলিতে হত্যাকাণ্ড। যে গুলিতে নিহত হয় সালাম, বরকত, রফিক ও জব্বারসহ আরো অনেকে। এছাড়া বন্দী করা
হয় অসংখ্য নেতাকে। কিন্তু তা ছাত্রদের প্রবল চেতনাবোধকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। ফলে সরকার বাধ্য হন সিদ্ধান্ত পাল্টাতে। ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করেই বাঙালি জনসাধারণ প্রথম বিজয়ের স্বাদ পায়। আর এজন্যই তারা পরবর্তীতে অগ্রসর হয় পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। ফলে ১৯৬৯ সালে ছাত্ররা ১১ দফা পেশ করে।
অন্যদিকে, এর মাধ্যমেই বাঙালিরা পরবর্তীতে মুক্তিসংগ্রামে অবতীর্ণ হওয়ার সাহস পায়। তবে এক্ষেত্রে নেতৃত্বের প্রেরণা ছিল অনেকটা। কারণ ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে বিশাল জনসমুদ্রে প্রতিক্রিয়াশীল শাসকচক্রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে ৪ দফা দাবি উত্থাপন করে ঘোষণায় বলেছেন যে,
“এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।” এছাড়া এ সংগ্রামকে সাফল্যমণ্ডিত করার জন্য যার যা আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান। এছাড়া দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার জন্য আন্দোলনের ডাক দেন। ফলে দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে অর্জিত হয় বাংলাদেশ।
উপসংহার: পরিশেষে বলা যায় যে, ভাষা আন্দোলন ছিল বাঙালি জাতির মুখের ভাষাকে রক্ষা করার জন্য নিরস্ত্র
বাঙালির স্বশস্ত্র ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে প্রথম প্রত্যক্ষ আন্দোলন। বাঙালির মুখের ভাষা যাতে কেউ কেঁড়ে নিতে না পারে
সেজন্য প্রতিবাদে সোচ্চার ছিল। আর প্রতিবাদে সোচ্চার ছিল বলে সফল হতে সক্ষম হয়। তবে এটা ছিল বিভক্তির পর
বাঙালি জাতির প্রথম বিজয়। এ বিজয়ের শিক্ষা থেকে তারা আরো বেশিমাত্রায় অধিকার সচেতন হয়ে উঠে। এ অধিকার
সচেতনতা থেকে বাঙালিরা প্রেরণা পায় পরবর্তীতে আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার। তবে ইংরেজ শাসক শ্রেণির জন্য এটা ছিল
জাতীয় বিপর্যয় যার কারণে এ বিপর্যয় ১৯৭১ সালে তাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!