ডিগ্রি প্রথম এবং অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ ২০২৩ এর সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯

 ডিগ্রী সকল বই

বাঙালি দর্শনে প্রভাব বিস্তারকারী অবৈদিক শাক্ত মতবাদ সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা কর।

অথবা, বাঙালি ধর্ম ও দর্শনে শাক্ত মতবাদের প্রভাব সংক্ষেপে বর্ণনা কর।
অথবা, বাঙালি দর্শনে শাক্ত মতবাদের প্রভাব কীরূপ?
অথবা, বাঙালি দর্শনে শাক্ত মতবাদের প্রভাব সম্পর্কে তোমার অভিমত দাও।
অথবা, ‘বাঙালির ধর্ম দর্শনে শাক্ত মতবাদের প্রভাব রয়েছে’- উক্তিটি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা কর।
উত্তর।৷ ভূমিকা :
বাঙালি দর্শন অতি প্রাচীন দর্শন। বাঙালি দর্শন বিভিন্ন যুগে বিভিন্ন মতবাদ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বর্তমান অবস্থায় এসে উপনীত হয়েছে। প্রাচীন ও মধ্যযুগীয় বাঙালি দর্শনে প্রভাব বিস্তারকারী উপাদানকে বৈদিক ও অবৈদিক এ দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। বৈদিক উপাদান বলতে বেদ বা বৈদিক সাহিত্য বহির্ভূত উপাদানকে বুঝানো হয়। অবৈদিক উপাদান বলতে তন্ত্রবাদ, শৈব মতবাদ এবং শাক্ত মতবাদকে বুঝানো হয়।
শাক্ত মতাবদ : শাক্ত সম্প্রদায়ের ইতিহাস অতি প্রাচীন। ধারণা করা হয় প্রাগৈতিহাসিক সিন্ধু সভ্যতা থেকেই শাক্ত মতবাদের সূচনা। বাংলা ভূখণ্ডে প্রচলিত শাক্ত মতবাদে নারীকে সর্বোচ্চ দেবী হিসেবে গ্রহণ করে তাঁর উপাসনা করা হয়। বাংলাসহ সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশে শাক্ত মতবাদ একটি প্রতিষ্ঠিত মতবাদ। খ্রিস্টীয় সপ্তদশ শতক হতে বাঙালি সমাজে শাক্ত ধর্ম বা মতবাদ সর্বাধিক প্রসার লাভ করে। এ সময়ে অতীতের ধারাবাহিকতায় বাঙালি সমাজে দুর্গা পূজা,কালী পূজা, চণ্ডী পূজা, মনসা পূজা, লক্ষ্মী পূজা, সরস্বতী পূজা, গঙ্গা পূজা প্রভৃতি দেবীর পূজার্চনা ব্যাপকভাবে শুরু হয়। পণ্ডিতগণ মনে করেন, বাঙালি সমাজে প্রাচীনকাল থেকে মাতৃতান্ত্রিকতার প্রাধান্য থাকায় বাঙালিদের মধ্যে মাতৃদেবতার উপাসনার রীতি গড়ে উঠে। বাঙালি হিন্দুসমাজে শাক্ত মতবাদ সর্বাধিক প্রভাব বিস্তার করে। প্রত্নতত্ত্ববিদদের মতে, সিন্ধু সভ্যতায় অসংখ্য পোড়া মাটির নারী মূর্তি পাওয়া গেছে যা শক্তি সাধনায় মাতৃকা বা মহামাতৃক বা বসুমাতা মূর্তির নিদর্শন।ভারতবর্ষের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় বাংলাতে শাক্ত ধর্ম বা মতবাদ বেশি প্রসার লাভ করেছিল। এ মাতৃতান্ত্রিকতার আরাধনা বৈদিক প্রভাবজাত নয়; বরং অবৈদিক। বিভিন্ন রাজবংশের শাসনামলে শাক্ত মতবাদে বিভিন্ন ধারার সংমিশ্রণ ঘটে। তবে বাঙালি সমাজে প্রচলিত শাক্ত মতবাদ বা মাতৃদেবীর পূজা ও শক্তি সাধনার কোনো তারতম্য ঘটে নি। বাঙালি
সমাজে প্রচলিত শাক্ত মতবাদ, এসব শক্তি পূজার গূঢ়ার্থ ও দার্শনিকতা পরবর্তীকালে বাঙালি দর্শনের অন্যতম ধারা বাউল ও বৈষ্ণব দর্শনে প্রভাব বিস্তার করে।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার আলোকে আমরা বলতে পারি, বাঙালি জীবন ও দর্শনে, চিন্তা ও মননে, সমাজ ও সংস্কৃতিতে শাক্ত মতবাদ আর্যপূর্ব যুগ থেকেই প্রভাব বিস্তার করে রয়েছে। মাতৃতান্ত্রিকতা ও মাতৃভক্তির কারণেই বাঙালিদের মধ্যে শাক্ত মতবাদ বিকাশ লাভ করেছে। শাক্ত মতবাদ থেকে চলে আসা মাতৃদেবীর পূজা বাঙালি সমাজে আজও প্রচলিত।



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!