ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা কর ।

[ad_1]

✍️বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের জীবনযাত্রার মানের উন্নয়নকল্পে দ্রুত শিল্পায়নের একান্ত প্রয়োজন । সে উদ্দেশ্যে বাস্তবভিত্তিক পন্থাসমূহ অবলম্বন করা উচিত । বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায় :

নিম্নে দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা করা হলো :

১. সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা : অতীতে সরকারি উদাসীনতার জন্যই বাংলাদেশের শিল্পায়ন ব্যাহত হয়েছে । বর্তমান অবস্থায় দেশে শিল্পায়নের জন্য সরকারকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে । তবে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যার সমাধান করা যাবে ।

২. বেসরকারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহ প্রদান : দেশে দ্রুত শিল্পোন্নয়নের জন্য বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সব ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করতে হবে । সহজ শর্তে ঋণদান , কর মওকুফ ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের পুঁজি বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে হবে । তবে এ সমস্যার সমাধান হতে পারে ।

৩. শক্তি সম্পদ বৃদ্ধি : শিল্পায়নের লক্ষ্যে দেশে ব্যাপক জরিপকার্য চালিয়ে কয়লা , পেট্রোলিয়াম , প্রাকৃতিক গ্যাস , প্রাকৃতিক শক্তি সম্পদ বৃদ্ধির ব্যবস্থা করতে হবে । তাছাড়া জলবিদ্যুৎ পরিকল্পনাসমূহ দ্রুত কার্যকরী করার ব্যবস্থা করতে হবে ।

৪. যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন : দেশে দ্রুত শিল্পোয়নের স্বার্থে উন্নত পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রবর্তন করতে হবে । উন্নত পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে অল্প সময়ে ও কম খরচে শিল্পের কাঁচামাল কারখানাসমূহে পৌঁছানো এবং উৎপাদিত শিল্পপণ্যসমূহ বাজারজাত করা যায় । সে সাথে শ্রমের গতিশীলতাও বৃদ্ধি পায় ৷

৫. দক্ষ শ্রমিক সৃষ্টি : বাংলাদেশে দক্ষ শ্রমিকের অভাবে শিল্পোয়ন ব্যাহত হয় । দক্ষ শ্রমিক সৃষ্টির জন্য সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষার ব্যাপক প্রসার ঘটাতে হবে । এ লক্ষ্যে পর্যাপ্ত কারিগরি স্কুল , কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করতে হবে ।

৬. মূলধনী পণ্য আমদানি : বাংলাদেশে দ্রুত শিল্পোন্নয়নের জন্য বিলাসদ্রব্যের পরিবর্তে বিদেশ হতে যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য মূলধনী পণ্যের আমদানির প্রতি অগ্রাধিকার দিতে হবে । তাহলে শিল্পোন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের সংকুলান হবে ।

৭. রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা : শিল্প উন্নয়নের অন্যতম পূর্বশর্ত হলো রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা । রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার অভাবে শিল্পায়ন ব্যাহত হয় ।

৮. বিদেশে বাজার সৃষ্টি : বাংলাদেশের শিল্পজাত পণ্যের বাজার সৃষ্টির উদ্দেশ্যে বিদেশে ব্যাপক প্রচারকার্য চালাতে হবে এবং পত্রপত্রিকার মাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশের শিল্পজাত দ্রব্যের বাজার বিদেশে সম্প্রসারণ করতে হবে ।

৯. পরিচালনা কাঠামোর উন্নয়ন : অসৎ , অযোগ্য এবং অদক্ষ পরিচালনার জন্য বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহ প্রতি বছর ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে । কাজেই শিল্পোয়নের স্বার্থে সৎ , দক্ষ ও যোগ্য কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে ।

১০. খনিজ সম্পদের উন্নয়ন : দ্রুত শিল্পোয়নের জন্য খনিজ সম্পদের উন্নয়ন করতে হবে । শিল্পায়নের জন্য কয়লা , লৌহ , পেট্রোলিয়াম প্রভৃতি সম্পদ আবিষ্কার করতে হবে ।

উপসংহার : পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে , বাংলাদেশে শিল্পোয়নের যথেষ্ট সমস্যা বিদ্যমান । এসব সমস্যার সমাধানকল্পে হতে জনগণকে সরকার সাহায্য সহযোগিতা করবে , তাহলেই এটা সম্ভব ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!