ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা কর ।

[ad_1]

✍️বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা কর ।

উত্তর ভূমিকা : বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের জীবনযাত্রার মানের উন্নয়নকল্পে দ্রুত শিল্পায়নের একান্ত প্রয়োজন । সে উদ্দেশ্যে বাস্তবভিত্তিক পন্থাসমূহ অবলম্বন করা উচিত । বাংলাদেশে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যাসমূহ দূরীকরণের উপায় :

নিম্নে দূরীকরণের উপায়সমূহ আলোচনা করা হলো :

১. সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা : অতীতে সরকারি উদাসীনতার জন্যই বাংলাদেশের শিল্পায়ন ব্যাহত হয়েছে । বর্তমান অবস্থায় দেশে শিল্পায়নের জন্য সরকারকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে । তবে শিল্পক্ষেত্রে বিরাজমান সমস্যার সমাধান করা যাবে ।

২. বেসরকারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহ প্রদান : দেশে দ্রুত শিল্পোন্নয়নের জন্য বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সব ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করতে হবে । সহজ শর্তে ঋণদান , কর মওকুফ ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের পুঁজি বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে হবে । তবে এ সমস্যার সমাধান হতে পারে ।

৩. শক্তি সম্পদ বৃদ্ধি : শিল্পায়নের লক্ষ্যে দেশে ব্যাপক জরিপকার্য চালিয়ে কয়লা , পেট্রোলিয়াম , প্রাকৃতিক গ্যাস , প্রাকৃতিক শক্তি সম্পদ বৃদ্ধির ব্যবস্থা করতে হবে । তাছাড়া জলবিদ্যুৎ পরিকল্পনাসমূহ দ্রুত কার্যকরী করার ব্যবস্থা করতে হবে ।

৪. যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন : দেশে দ্রুত শিল্পোয়নের স্বার্থে উন্নত পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রবর্তন করতে হবে । উন্নত পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে অল্প সময়ে ও কম খরচে শিল্পের কাঁচামাল কারখানাসমূহে পৌঁছানো এবং উৎপাদিত শিল্পপণ্যসমূহ বাজারজাত করা যায় । সে সাথে শ্রমের গতিশীলতাও বৃদ্ধি পায় ৷

৫. দক্ষ শ্রমিক সৃষ্টি : বাংলাদেশে দক্ষ শ্রমিকের অভাবে শিল্পোয়ন ব্যাহত হয় । দক্ষ শ্রমিক সৃষ্টির জন্য সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষার ব্যাপক প্রসার ঘটাতে হবে । এ লক্ষ্যে পর্যাপ্ত কারিগরি স্কুল , কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করতে হবে ।

৬. মূলধনী পণ্য আমদানি : বাংলাদেশে দ্রুত শিল্পোন্নয়নের জন্য বিলাসদ্রব্যের পরিবর্তে বিদেশ হতে যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য মূলধনী পণ্যের আমদানির প্রতি অগ্রাধিকার দিতে হবে । তাহলে শিল্পোন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের সংকুলান হবে ।

৭. রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা : শিল্প উন্নয়নের অন্যতম পূর্বশর্ত হলো রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা । রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার অভাবে শিল্পায়ন ব্যাহত হয় ।

৮. বিদেশে বাজার সৃষ্টি : বাংলাদেশের শিল্পজাত পণ্যের বাজার সৃষ্টির উদ্দেশ্যে বিদেশে ব্যাপক প্রচারকার্য চালাতে হবে এবং পত্রপত্রিকার মাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশের শিল্পজাত দ্রব্যের বাজার বিদেশে সম্প্রসারণ করতে হবে ।

৯. পরিচালনা কাঠামোর উন্নয়ন : অসৎ , অযোগ্য এবং অদক্ষ পরিচালনার জন্য বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহ প্রতি বছর ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে । কাজেই শিল্পোয়নের স্বার্থে সৎ , দক্ষ ও যোগ্য কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে ।

১০. খনিজ সম্পদের উন্নয়ন : দ্রুত শিল্পোয়নের জন্য খনিজ সম্পদের উন্নয়ন করতে হবে । শিল্পায়নের জন্য কয়লা , লৌহ , পেট্রোলিয়াম প্রভৃতি সম্পদ আবিষ্কার করতে হবে ।

উপসংহার : পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে , বাংলাদেশে শিল্পোয়নের যথেষ্ট সমস্যা বিদ্যমান । এসব সমস্যার সমাধানকল্পে হতে জনগণকে সরকার সাহায্য সহযোগিতা করবে , তাহলেই এটা সম্ভব ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!