ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

বহিঃখাত External Sector

[ad_1]

ক – বিভাগ অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

👉 বৈদেশিক / আন্তর্জাতিক বাণিজ্য কী ?

উত্তর : দুই বা ততোধিক দেশের মধ্যে দ্রব্য ও সেবার আদান – প্রদান তথা বাণিজ্য হলে তাকে বৈদেশিক / আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বলে ।

👉 বিশ্ব বাণিজ্য কী ?

উত্তর : বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে দ্রব্য ও সেবার পারস্পারিক লেনদেন তথা বাণিজ্যকে বিশ্ব বাণিজ্য বলা হয় ।

👉 রপ্তানি বাণিজ্য কী ?

উত্তর : দেশে উৎপাদিত পণ্য অপরাপর দেশে বিক্রয় করাই হচ্ছে রপ্তানি । আর এ রপ্তানি প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত সকল কার্যক্রমকে বলা হয় রপ্তানি বাণিজ্য ।

👉 রপ্তানি বাণিজ্য কী ? বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যগুলোকে প্রধানত কয় ভাগে ভাগ করা হয় ?

উত্তর : বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যগুলোকে প্রধানত দু’ভাগে ভাগ করা যায় । যথা :

i . প্রচলিত রপ্তানি পণ্য ;

ii . অপ্রচলিত রপ্তানি পণ্য ।

👉 রপ্তানি বাণিজ্য কী ? বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্যগুলোকে প্রধানত কয় ভাগে ভাগ করা হয় ?প্রচলিত রপ্তানি পণ্য কী ?

উত্তর : যেসব পণ্য দীর্ঘদিন ধরেই একদেশ থেকে অন্যদেশ তথা বিদেশের বাজারে রপ্তানি হয় সেগুলোকেই প্রচলিত রপ্তানি পণ্য বলা হয় ।

👉 বাংলাদেশের প্রচলিত রপ্তানি পণ্যগুলো কী কী ?

উত্তর : বাংলাদেশের প্রচলিত রপ্তানি পণ্যগুলো হলো : পাট ও পাটজাত পণ্য , চা , চামড়া ইত্যাদি ।

👉 অপ্রচলিত রপ্তানি পণ্য কী ?

উত্তর : যেসব পণ্য স্বল্পকাল আগে থেকে একদেশ হতে বিদেশে বা অন্যদেশে রপ্তানি হয় সেগুলোকে অপ্রচলিত রপ্তানি পণ্য বলা হয় ।

👉 বাংলাদেশের অপ্রচলিত রপ্তানি পণ্যগুলো কী কী ?

উত্তর : বাংলাদেশের অপ্রচলিত রপ্তানি পণ্যগুলো হলো- তৈরি পোশাক , হস্তশিল্পজাত পণ্য , হিমায়িত খাদ্য , রাসায়নিক পণ্য , পান – সুপারি , সিরামিক পণ্য , ওষুধ , চামড়াজাত পণ্য ইত্যাদি ।

👉 আমদানি বাণিজ্য কী ?

উত্তর : একটি দেশ অপরাপর দেশ থেকে পণ্য ক্রয় করলে তাকে আমদানি বলে । আর এ পণ্য আমদানির সাথে সম্পর্কিত যাবতীয় কার্যক্রমের সমষ্টিকে আমদানি বাণিজ্য বলা হয় ।

👉 বাংলাদেশ বিদেশ থেকে কী ধরনের পণ্য আমদানি করে ?

উত্তর : বাংলাদেশ বিদেশ থেকে সাধারণত নিম্নলিখিত পণ্যসামগ্রী আমদানি করে । যথা :

( i ) নিত্যব্যবহার্য ও ভোগ্যপণ্য ( খাদ্যদ্রব্যসহ ) ,

( ii ) শিল্পজাত পণ্য ও কাঁচামাল ; এবং

( iii ) মূলধনী পণ্য ও অন্যান্য ( খেলনা , শিশুখাদ্য , শিল্পকর্ম , রং , গ্লাস ইত্যাদি ) ।

👉 লেনদেনের ভারসাম্য কী ?

উত্তর : একটি নির্দিষ্ট সময়ে সাধারণত একবছরে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে লিও একটি দেশের সকল প্রকার দৃশ্যমান ও অদৃশ্যমান পণ্য ও সেবার আমদানি ব্যয় ও রপ্তানি আয়ের হিসাবকে লেনদেনের ভারসাম্য বলা হয় ।

👉 বাণিজ্যের ভারসাম্য কী ?

উত্তর : একটি নির্দিষ্ট সময়ে সাধারণত এক বছরে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে লিপ্ত একটি দেশের সকল প্রকার দৃশ্যমান পণ্যসামগ্রীর আমদানি ব্যয় ও রপ্তানি আয়ের হিসাবকে বাণিজ্যের ভারসাম্য বলা হয় ।

👉 ইপিজেড কী ?

উত্তর : দেশের অভ্যন্তরে কিছু বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত ও সংরক্ষিত শিল্প এলাকায় শুধু রপ্তানিমুখী শিল্প – কারখানা স্থাপনের সুযোগ দেয়া হলে তাকে ইপিজেড ( EPZ ) বলে ।

👉 EPZ এর পূর্ণরূপ কী ?

উত্তর : EPZ এর পূণ্য রূপ হলো Export Processing Zone ( রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল / এলাকা ) ।

👉 BEPZA এর পূর্ণ রূপ কী ?

উত্তর : BEPZA এর পূর্ণ রূপ হলো Bangladesh Export Processing Zone Authority .

👉 BEPZA কত সালে গঠিত হয় ?

উত্তর : ১৯৮০ সালে BEPZA গঠিত হয় ।

👉 বাংলাদেশের প্রথম EPZ কোথায় এবং কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ?

উত্তর : ১৯৮৩ সালে চট্টগ্রামে বাংলাদেশের প্রথম EPZ প্রতিষ্ঠিত হয় ।

👉 বাংলাদেশে বর্তমানে EPZ এর সংখ্যা কত ?

উত্তর : বাংলাদেশে বর্তমানে ৮ টি EPZ রয়েছে ।

👉 বাংলাদেশে কত সালে ওয়েজ আর্নার্স স্কিম চালু করা হয় ?

উত্তর : বাংলাদেশে ১৯৭৪ সালে ওয়েজ আর্নার্স স্কিম চালু করা হয় ।

👉 ওয়েজ আর্নার্স স্কিম কী ?

উত্তর : যে কর্মসূচির আওতায় বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রায় সরাসরি কতিপয় নির্ধারিত পণ্য আমদানির সুযোগ দেয়া হয় তাকে ওয়েজ আর্নার্স স্কিম বলে ।

👉 জনশক্তি রপ্তানি কী ?

উত্তর : একটি দেশের দক্ষ , অদক্ষ শ্রমিক , কারিগর , বিশেষজ্ঞ প্রভৃতি জনশক্তি বিদেশে তথা অপরাপর দেশে প্রেরণ করাকে জনশক্তি রপ্তানি বলা হয় ।

👉 বাণিজ্য নীতি কী ?

উত্তর : আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পরিচালনার জন্য যেসব নীতিমালার বা নিয়ম – কানুন গ্রহণ করা হয় তাকেই একটি দেশের বাণিজ্য নীতি বলে ।

👉 বাণিজ্য নীতিকে কয় ভাগে ভাগ করা যায় ?

উত্তর : একটি দেশের বাণিজ্য নীতিকে দু’ভাগে ভাগ করা যায় । যথা :

i . আমদানি নীতি এবং

ii . রপ্তানি নীতি ।

👉 আমদানি নীতি কী ?

উত্তর : একটি দেশ কি ধরনের পণ্য ও সেবা আমাদানি করবে , কিভাবে আমদানি করবে , শুল্ক হার কি হবে , কিভাবে দেনা পাওনা মিটানো হবে এবং কারা আমদানি করবে এ সংক্রান্ত যাবতীয় নীতিমালাকে আমদানি নীতি বলে ।

👉 রপ্তানি নীতি কী ?

উত্তর : কোন দেশ কি পণ্য রপ্তানি করবে , রপ্তানি শুল্ক কি রকম হবে , কিভাবে রপ্তানি করা হবে , কোথায় রপ্তানি করা হবে এবং কারা রপ্তানি করবে এ সংক্রান্ত যাবতীয় নীতিমালাকে রপ্তানি নীতি বলা হয় ।

👉 অবাধ বাণিজ্য কী ?

উত্তর : আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে কোন রকম সরকারি বিধিনিষেধ না থাকলে তাকে অবাধ বাণিজ্য বলে ।

👉 সংরক্ষিত বাণিজ্য কী ?

উত্তর : আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে আমদানি ও রপ্তানির উপর শুল্ক , কোটা ইত্যাদি আরোপসহ সরকারি বিধিনিষেধ আরোপিত হলে তাকে সংরক্ষিত বাণিজ্য বলা হয় ।

৪৯. বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানিকৃত প্রধান প্রধান পণ্যগুলো কী কী ? উত্তর : বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানিকৃত প্রধান প্রধান পণ্য হচ্ছে— তৈরি পোশাক , নীটওয়ার , হিমায়িত চিংড়ি , ক্যাপ ও হোম টেক্সটাইল ইত্যাদি । M ৫০ . বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বৃহৎ বাজার কোন দেশ ? উত্তর : বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বৃহৎ বাজার হচ্ছে জার্মানি । বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের অবস্থান কততম ? উত্তর : বাংলাদেশ থেকে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের অবস্থান তৃতীয়তম । ৫১ . বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বৃহৎ বাজার কোন দেশ ? উত্তর : বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বৃহৎ বাজার হচ্ছে ভারত ( সার্কভুক্ত দেশসমূহে রপ্তানির প্রায় ৭৮ শতাংশই ভারতে রপ্তানি করা হয় ) । বাংলাদেশের মোট রপ্তানি আয়ের কত শতাংশ সার্কভুক্ত দেশসমূহ থেকে আসে ? উত্তর : বাংলাদেশের মোট রপ্তানি আয়ের ৩ শতাংশ সার্কভুক্ত দেশসমূহ থেকে আসে ।

৭৩. বর্তমানে সম্ভাবনাময়ী জাহাজ শিল্পকে কত শতাংশ হারে নগদ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে ? উত্তর : বর্তমানে সম্ভাবনাময়ী জাহাজ শিল্পকে ৫ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে । 98 , দেশের বর্তমান আমদানি নীতির দুটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য লিখ । উত্তর : দেশের বর্তমান আমদানি নীতির দুটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য হলো : i . শিল্পের উপাদান অধিকতর সহজলভ্য করা এবং প্রতিযোগিতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ii . আধুনিক প্রযুক্তির ব্যাপক প্রসারকল্পে অবাধ প্রযুক্তি আমদানির সুবিধা প্রদান । MFN এর পূর্ণ রূপ কী ? 9.8 . উত্তর : MFN এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Most Favoured Nation ৭৬. বাংলাদেশ সরকার কোন অর্থবছর থেকে MFN ট্যারিক হার অনুসরণ করছে ? উত্তর : বাংলাদেশ সরকার ২০০০-০১ অর্থবছর থেকে MEN ট্যারিক হার অনুসরণ করছে । ৭৭. বর্তমানে দেশে MFN ট্যারিক হারের উপর কয় প্রকার রেয়াতী শুল্ক হার কার্যকর আছে ? উত্তর : বর্তমানে দেশে MEN ট্যারিক হারের উপর ৩ প্রকার রেয়াতি শুল্ক হার কার্যকর আছে । ৭৮. বর্তমানে MFN শুল্ক হারের পাশাপাশি শুল্ক রেয়াত সুবিধা প্রাপ্ত ৪ টি পণ্যের নাম লিখ । উত্তর : বর্তমানে MFN শুল্ক হারের পাশাপাশি শুষ্ক রেয়াত সুবিধা প্রাপ্ত অনেকগুলো পণ্যের মধ্যে চারটি গুরুত্বপূর্ণ পণ্য হলো : i . রপ্তানিকারক শিল্পপ্রতিষ্ঠান কর্তৃক আমদানীকৃত মূলধনী যন্ত্রপাতি এবং যন্ত্রাংশ ; ii . ঔষুধ শিল্প কর্তৃক আমদানীকৃত কাঁচামাল ; iii . টেক্সটাইল শিল্পে ব্যবহৃত কাঁচামাল এবং iv . কৃষিখাতে ব্যবহৃত উপকরণ । ৭ . 11 দেশে ১৯৯১-৯২ অর্থবছরে আমদানি শুল্কের অবারিত গড় কত ছিল ? উত্তর : দেশে ১৯৯১-৯২ অর্থবছরে আমদানি শুল্কের অবারিত গড় ছিল ৫৭.২ ৮০. দেশে ২০১০-১১ অর্থবছরে আমদানি শুল্কের অবারিত গড় কত ছিল ? উত্তর : দেশে ২০১০-১১ অর্থবছরে আমদানি শুল্কের অবারিত গড় ছিল ১৪.৮৫ শতাংশ । ৮১. বর্তমানে দেশে কত শতাংশ ট্যারিফ লাইনের উপরে মূল্যভিত্তিক শুল্ক আরোপ করা হয় ? উত্তর : বর্তমানে দেশে ৯৯.৫০ শতাংশ ট্যারিফ লাইনের উপরে মূল্যভিত্তিক শুল্ক আরোপ করা হয় । WTO এর পূর্ণ রূপ কী ? ৮২ . উত্তর : WTO এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে– World Trade Organization ( যার অর্থ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ) । ৮৩ , বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার কেমন সদস্য ? উত্তর : বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য । ৮৪ . DAC- এর পূর্ণ রূপ কী ? উত্তর : DAC -এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Disproportionately Affected Countries . ৮৫ . EIF এর পূর্ণ রূপ কী ? উত্তর : EIF এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Enhanced Integrated Framework . ৮৬ . DTIS – এর পূর্ণ রূপ কী ? উত্তর : DTIS –এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে Diagnosfic Trade Integration Study . ৮৭. বাংলাদেশ এ পর্যন্ত করটি আঞ্চলিক বাণিজ্য এলাকা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ? উত্তর : বাংলাদেশ এ পর্যন্ত পাঁচটি আঞ্চলিক বাণিজ্য এলাকা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে । PTA – এর পূর্ণ রূপ কী ? ৮৮ . উত্তর : PTA এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Preferential Tariff Advantage . FTA – এর পূর্ণ রূপ কী ? ৮৯ . উত্তর : FTA – এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Free Trade Area . ১০ . APTA ( আপটা ) – এর পূর্ণরূপ কী ? উত্তর : APTA ( আপটা ) -এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Asia Pacific Trade Agreement .

৯১ . TPS এর পূর্ণ রূপ কী ? উত্তর : TPS- এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- Trade Preferential System . TPS গঠনের উদ্দেশ্য কী ? ৯২ . উত্তর : TPS গঠনের উদ্দেশ্য হলো : OIC ভুক্ত দেশসমূহের মধ্যে অগ্রাধিকারভিত্তিক বাণিজ্য সম্প্রসারণ । PRETAS কী ? উত্তর : PRETAS হচ্ছে- Protocol on the Preferential Tariff Scheme for the TPS OIC . এ পর্যন্ত কতটি সদস্য দেশ ( OIC ভুক্ত ) PRETAS এ স্বাক্ষর করেছে ? উত্তর : এ পর্যন্ত ১১ টি সদস্য দেশ ( OIC ভুক্ত ) PRETAS এ স্বাক্ষর করেছে । ৪ . ৯৫ . ডি -৮ কী ? উত্তর : OIC ভুক্ত আটটি উন্নয়নশীল দেশের জোট হচ্ছে ডি -৮ । অগ্রাধিকারভিত্তিক বাণিজ্য চুক্তির অধীনে এ জোট গঠিত ১৬. ডি -৮ ভূক্ত আটটি দেশের নাম লিখ । উত্তর : ডি -৮ ভুক্ত আটটি দেশের নাম হলো : i . বাংলাদেশ , ii . মিসর , iii : ইন্দোনেশিয়া , iv . ইরান , v . মালয়েশিয়া , vi নাইজেরিয়া , vii . পাকিস্তান এবং viii . তুরস্ক । ৯৭. SAFTA -এর পূর্ণ রূপ কী ? i উত্তর : SAFTA – এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- South Asian Free Trade Area . ৯৮. প্রথম অবস্থায় সাফটা’র সদস্য সংখ্যা কত ছিল ? উত্তর : প্রথম অবস্থায় সাফটা’র সদস্য সংখ্যা ছিল সাতটি দেশ । এ সাতটি দেশ হলো : বাংলাদেশ , ভারত , পাকিস্তান , নেপাল , ভূটান , শ্রীলঙ্কা এবং মালদ্বীপ । ৯৯. বর্তমানে সাফটা’র সদস্য সংখ্যা কত ? উত্তর : বর্তমানে সাফটা’র সদস্য সংখ্যা আটটি । ২০০৮ সালে আফগানিস্তানকে সাফটা চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয় । 100. BIMSTEC এর পূর্ণ রূপ কী ? উত্তর : BIMSTEC এর পূর্ণ রূপ হচ্ছে- The Bay of Bengal Initiative for Multi – Sectoral Technical and Economic Cooperation . 101. BIMSTEC এর সদস্য সংখ্যা কত এবং কোন কোন দেশ এর সদস্য ? উত্তর : BIMSTEC এর সদস্য সংখ্যা ৭ টি এবং সদস্য দেশগুলো হলো : ভারত , শ্রীলঙ্কা , থাইল্যান্ড , বাংলাদেশ , মায়ানমার , ভূটান ও নেপাল । ১০২. কোন বিধিমালার আওতায় দেশে সেইফগার্ড শুল্ক বিধিমালা , ২০১০ প্রণীত হয়েছে ? উত্তর : শুল্ক আইন , ১৯৬৯ এর আওতায় দেশে সেইফগার্ড শুল্ক বিধিমালা ২০১০ প্রণীত হয়েছে । ১০৩. বাংলাদেশে সেইফগার্ড কর্তৃপক্ষ হিসেবে কে দায়িত্ব পালন করেন ? উত্তর : বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান বাংলাদেশের সেইফগার্ড কর্তৃপক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন । ১০৪. শুল্ক কী ? উত্তর : দেশের সীমান্ত অতিক্রম করে যেসব দ্রব্যের আদান – প্রদান বা চলাচল ঘটে তাদের উপর সরকারি আইন দ্বারা ধার্য করকে শুল্ক বলা হয় । ১০৫ রপ্তানি শুল্ক কী ? উত্তর : রপ্তানি দ্রব্যের উপর আরোপিত বা ধার্যকৃত কর বা শুল্ককে রপ্তানি শুল্ক বলে । ১০৬. আমদানি শুল্ক কী ? উত্তর : আমদানি দ্রব্যের উপর আরোপিত বা ধার্যকৃত শুল্ক বা করকে আমদানি শুল্ক বলা হয় । ১০৭. বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ( WTO ) কী ? উত্তর : বিশ্বব্যাপী বাণিজ্য পরিচালনার উদ্দেশ্যে যে সংগঠন আইন – কানুন প্রবর্তন , বাস্তবায়ন ও পরিচালনা করে থাকে তাকেই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ( WTO ) বলে ।

১০৮. বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা কত সালে প্রতিষ্ঠা পায় ? উত্তর : বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠা পায় । ১০৯. বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময় হার কী ? উত্তর : যে হারে বিভিন্ন দেশের মুদ্রার পরিবর্তন বা বিনিময় হয় তাকে বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময় হার বলে ।

[ তথ্যসূত্র : বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমীক্ষা -২০১১ ]

The post বহিঃখাত External Sector appeared first on All Education Books.

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!