ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

প্রশ্নঃ ভারসাম্য বাজেটের পক্ষে যুক্তি দাও ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ ভারসাম্য বাজেটের পক্ষে যুক্তি দাও ।

উত্তর : ভারসাম্য বাজেটের পক্ষে যুক্তিসমূহ নিম্নরূপ :

১. কার্যকর নিয়ন্ত্রণ : ভারসাম্য বাজেট সরকারকে মিতব্যয়ী হতে বাধ্য করে । সরকার অপচয়মূলক ব্যয় , অপ্রয়োজনীয় ব্যয় যাতে না করে তার জন্য শক্ত ব্যবস্থা হলো ভারসাম্য বাজেট । বাজেট ভারসাম্য রক্ষার জন্য সরকার নতুন নতুন রাজস্ব আদায় এবং অপ্রয়োজনীয় ব্যয়ের খাত নিয়ন্ত্রণ করতে পারে । তাই ভারসাম্য বাজেট নীতিতে সরকার অবশ্যই সুশৃঙ্খলভাবে ব্যয় নির্বাহ করে ।

২. মুদ্রাস্ফীতি বিরোধী : সুষম বাজেট হলো মুদ্রাস্ফীতি বিরোধী । উন্নয়নশীল দেশে মুদ্রাস্ফীতি একটি জ্বলন্ত সমস্যা । ভারসাম্য বাজেটে আয় ও ব্যয় সমান বলে চাহিদা বৃদ্ধি কম ঘটে ফলে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রিত থাকে ।

৩. মন্দাকালে সহায়ক : ভারসাম্য বাজেট হলো মন্দাকালের সাথে সমন্বিত । কারণ মন্দাকালে সরকার কমপক্ষে যদি সুষম বাজেট প্রণয়ন করতে পারে তাহলে ভারসাম্য বাজেট গুণক = ১ দ্বারা মন্দা কাটাতে ভূমিকা পালন করে ।

৪. জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যতা : সরকার যখন সুষম বাজেট নীতি গ্রহণ করে তখন জনগণ সরকারের প্রতি আস্থাশীল থাকে । সরকারের ব্যয় নিয়ন্ত্রিত বলে জনগণ সন্তুষ্ট থাকে ।

৫. আয় বৈষম্য নিয়ন্ত্রিত: অসম বা ঘাটতি বাজেটের মাধ্যমে সরকার জনগণের নিকট থেকে ঋণ গ্রহণ করে । ফলে ঋণের সুদ আসল ধনীদের হাতে চলে যায় । এর দ্বারা আয় বৈষম্য বাড়ে । সুষম বাজেট আয় বৈষম্য সৃষ্টি করে না । বরং সরকার ধনীদের নিকট থেকে সংগৃহীত অর্থ যদি দরিদ্রদের জন্য ব্যয় করে তাহলে আয় বৈষম্য কমবে ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!