ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে স্বল্প মজুরির হারের কারণসমূহ বর্ণনা কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে স্বল্প মজুরির হারের কারণসমূহ বর্ণনা কর ।

উত্তর- ভূমিকা : বাংলাদেশ পৃথিবীর দরিদ্রতম দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম । তাই বাংলাদেশের শ্রমিকদের মজুরির হার পৃথিবীর অনেক উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশ অপেক্ষা কম ।

বাংলাদেশে স্বল্প মজুরির হারের কারণ : বাংলাদেশে স্বল্প মজুরি হারের কারণগুলো নিয়ে আলোচনা করা ।

১. অর্থনীতির দারিদ্র্য : পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তুলনায় আমাদের দেশের অর্থনীতি খুবই দুর্বল । মাথাপিছু উৎপাদন ও আয় কম । আর এ কারণে বাংলাদেশে শ্রমিকদের মজুরি কম ।

২. শ্রমিকদের অদক্ষতা : শিক্ষার অভাব , শারীরিক দুর্বলতা , প্রতিকূল পরিবেশ , কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের অভাব এবং উন্নত যন্ত্রপাতি ও কলাকৌশলের অভাবে এদেশের শ্রমিকরা অদক্ষ আর এ কারণে বাংলাদেশের শ্রমিকদের মজুরির হার কম ।

৩. শারীরিক দুর্বলতা : পুষ্টিকর খাদ্য , স্বাস্থ্যকর বাসস্থান ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসার অভাবে এদেশের শ্রমিকরা দুর্বল স্বাস্থ্যের অধিকারী । এর ফলে এদের উৎপাদন ক্ষমতা কম আর এ কারণে তাদের মজুরিও কম ।

৪. স্বল্পজাতীয় উৎপাদন : বাংলাদেশে মোট জাতীয় উৎপাদন ও প্রবৃদ্ধির হার খুবই কম । এ কারণে বাংলাদেশে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষে উচ্চ হারে মঞ্জুরি প্রদান করা সম্ভব হয় না ।

৫. শূনের সহজলভ্যতা : বাংলাদেশ একটি জনবহুল দেশ । এদেশে শ্রমিকের চাহিদার তুলনায় যোগান বেশি । ফলে শ্রমিকদের মজুরিও কম ।

৬. শিশু ও নারী শ্রমিকের আধিক্য : দরিদ্রতার কারণে এদেশের অনেক পিতা – মাতা ছেলেমেয়েদের স্কুলে না পাঠিয়ে শ্রম নিয়োগে বাধ্য করে । আবার নারী শ্রমিকগণ কাজের সুযোগের অভাবে সপ্তায় শ্রম বিক্রয় করে । আর শিশু ও নারী শ্রমিকের আধিক্যের কারণে শ্রমিকের মজুরি হার কম হয় ।

৭. ত্রুটিপূর্ণ নিয়োগ পদ্ধতি : বাংলাদেশে শ্রমিক নিয়োগের ক্ষেত্রে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি লক্ষ্য করা যায় । এর ফলে অদক্ষ শ্রমিকরা নিয়োগ পায় । অদক্ষ শ্রমিকের কারণে উৎপাদন কম হয় ফলে শ্রমিকের মজুরিও কম হয় ।

৮. অসংগঠিত শুনবাজার : বাংলাদেশের অধিকাংশ শ্রমিক অশিক্ষিত , নিরক্ষর এবং অসংগঠিত । আর শ্রম বাজারের অসংগঠিত অবস্থার সুযোগ নিয়ে শিল্পকারখানার মালিকরা শ্রমিকদের যথাসম্ভব কম মজুরি প্রদান করে ।

৯. ত্রুটিপূর্ণ মজুরি কাঠানো : এদেশে মঞ্জুরি কাঠামো ত্রুটিপূর্ণ । এ ত্রুটিপূর্ণ মজুরি কাঠামোর সুযোগ নিয়ে মালিকরা শ্রমিকদের কম মজুরি প্রদান করে থাকে ।

১০. শক্তিশালী শ্রমিক সংক্ষের অভাব: আমাদের দেশের শ্রমিকরা অশিক্ষিত । ফলে তাদের মধ্যে মিলের অভাব রয়েছে । ফলে সাংগঠনিক ভিত্তি দুর্বল থাকায় শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি আদায়ে তেমন শক্তিশালী কোন ভূমিকা পালন করতে পারে না । এ কারণে তাদের মঞ্জুরির হার খুবই কম ।

১১. কর্মসংস্থানের অভাব : দেশের জনসংখ্যা অনুপাতে পর্যাপ্ত কলকারখানা গড়ে না উঠার শ্রমিকরা কম মজুরিতে কাজ করতে বাধ্য হয় ।

১২. শ্রমিকদের হারিত্বের অভাব : এদেশের অধিকাংশ স্থানে সারা বছর কাজ থাকে না । ফলে শ্রমিকরা কাজের সম্মানে গ্রাম থেকে শহরে আবার শহর থেকে গ্রামে ফিরে যায় । এ কারণে স্বল্প মজুরিতে তাদের কাজ করানো সম্ভব ।

১৩. কৃষি শুনিবের আধিক্য : এদেশ কৃষিপ্রধান দেশ । এদেশের অধিকাংশ মানুষ কৃষিকাজে নিয়োজিত থাকে । আর কৃষিতে ছদ্মবেশী ও মৌসুমি বেকারত্ব অনেক বেশি । এ কারণে এদেশে মজুরির হার কম ।

১৪. প্রযুক্তি আনো অভাব : প্রযুক্তিগত জ্ঞানের অভাবে এদেশে শ্রমিকদের উৎপাদন ক্ষমতা কম । ফলে তাদের মজুরিও কম ।

উপসংহার : সুতরাং বলা যায় এদেশের শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধিকল্পে সবাইকে সচেতন হতে হবে । তবেই দেশের উন্নয়ন দ্রুপ্ত হবে ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!