ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে রাজস্বনীতির সীমাবদ্ধতাসমূহ আলোচনা কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে রাজস্বনীতির সীমাবদ্ধতাসমূহ আলোচনা কর ।

উত্তর ৷ ভূমিকা : বেকারত্ব , অর্ধ বেকারত্ব , মুদ্রাস্ফীতি এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা একসাথে রক্ষা করা কঠিন । বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ এ উপযুক্ত সমস্যার কারণে রাজস্বনীতি কার্যকর করতে নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় ।

রাজস্বনীতির সীমাবদ্ধতা : নিম্নে বাংলাদেশের রাজস্বনীতির সীমাবদ্ধতাসমূহ আলোচনা করা হলো :

১. উন্নয়নশীল দেশে রাজস্বনীতি বণ্টন সমস্যা সমাধানে প্রায়ই ব্যর্থ হয় । সরকারি ব্যয়নীতি যদি মূলধন বহুল দ্রব্য উৎপাদনে ব্যবহার করা হয় তা শ্রমিক শ্রেণীর মজুরি হ্রাস করবে এবং জাতীয় ব্যয়ে বৈষম্য আরো বাড়িয়ে দিতে বাধ্য হয় বা আয়বণ্টনে অসমতা বৃদ্ধি করে ।

২. বাংলাদেশে এমনিতে মুদ্রাস্ফীতি বিদ্যমান । এরপর সরকার প্রতি বছর ঘাটতি ব্যয়ের আশ্রয় নিতে বাধ্য হয় , যা মুদ্রাস্ফীতিকে আরো ত্বরান্বিত করে । তাই রাজস্বনীতি সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায় না ।

৩. বাংলাদেশ সরকার বিরাট অঙ্কের সরকারি খাত নিয়ে অর্থনীতি পরিচালনা করে । এসব সরকারি খাতের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান প্রতি বছর লোকসানের অঙ্ক বাড়িয়ে চলেছে । এছাড়া অনেক প্রতিষ্ঠান ভর্তুকির মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে । এটি রাজস্বনীতিতে সবসময়ই প্রতিকূলতার সৃষ্টি করে আসছে ।

৪. রাজস্বনীতির কার্যকারিতা নির্ভর করে শক্তিশালী রাজস্ব প্রশাসনের উপর এবং দক্ষ বাজেট প্রণেতার উপর । বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে কর প্রশাসন পুরোপুরি দক্ষ নয় । বাজেট প্রণেতাগণও দক্ষতা প্রদর্শন করতে পারে না । যে কারণে রাজস্বনীতি ভুল নির্দেশনা প্রদান করে এবং পুরোপুরি কার্যকর হয় না ।

৫. রাজস্বনীতি বাণিজ্য চক্রজনিত বৈকারত্ব দূরীকরণে সহায়ক । কিন্তু বাংলাদেশে বেকারত্বের ধরন অনেকটা মৌসুমি , সংঘাতমূলক এবং কারিগরি পরিবর্তনের ফল । এ ধরনের বেকারত্ব রাজস্বনীতি দ্বারা দূরীকরণ করা যায় না । যদিও বাংলাদেশে কেইলীয় ভাবধারায় গ্রামীণ বেকারত্ব দূরীকরণের জন্য কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি এবং বিভিন্ন ধরনের পূর্ত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে । প্রকৃতপক্ষে এগুলো বেকার সমস্যার স্থায়ী সমাধানে ভূমিকা রাখবে না ।

৬. বাংলাদেশে প্রত্যক্ষ কর প্রায়ই প্রগতিশীল থাকে । এরূপ প্রগতিশীল কর ব্যবস্থা কর্মস্পৃহা ও বিনিয়োগে অনুৎসাহ সৃষ্টি করে ।

৭. বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে রাজস্বনীতি কতটুকু আয় , নিয়োগ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে তা নির্ভর করবে গুণক প্রক্রিয়ার উপর । আমরা জানি সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি গুণক প্রক্রিয়ায় আয় বৃদ্ধি করে । বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন ও রাজস্ব ব্যয় করা হয় । আমাদের দেশে MPC প্রায় ০.৯২ এর কাছাকাছি সেই হিসেবে জাতীয় আয় উন্নয়ন ব্যয়ের ৯ গুণ বাড়ার কথা । কিন্তু বিগত বছরগুলোতে উন্নয়ন হার ৬-৭ ভাগের বেশি হয় । অর্থাৎ গুণক প্রক্রিয়া এখানে কার্যকর নয় । এর কারণ আমাদের ভোগ ব্যয়ের বেশিরভাগ বিদেশি পণ্যের জন্য ব্যয় হয় এং গুণক প্রভাব বিদেশে গিয়ে পড়ে । তাই রাজস্বনীতি বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে পুরোপুরি কার্যকর হয় না ।

উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় , বাংলাদেশের রাজস্বনীতিতে নানাবিধ সীমাবদ্ধতা বা দুর্বলতা পরিলক্ষিত হয়ে থাকে । তবে গুরুত্বের তুলনায় এটি প্রয়োজন হারায় নি ।

প্রশ্নঃ উত্তম বাজেটের বৈশিষ্ট্যসমূহ কী কী ?

উত্তর ৷ ভূমিকা : বাজেট বলতে মূলত সরকারের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রতিচ্ছবিকে বুঝানো হয়ে থাকে । বাজেট এমন একটি বিষয় সেটার ভিতরে জনগণের ভাগ্য অনেকাংশে নির্ভর করে থাকে । এজন্য সকল পর্যায়ের জনগণের আশা থাকে যেন ভালো বাজেট তৈরি হোক ।

উত্তম বাজেটের বৈশিষ্ট্য : নিম্নে উত্তম বাজেটের বৈশিষ্ট্য দেয়া হলো :

১. বাজেটের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যসমূহের বিবরণ : যে কোন কাজের একটি লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য থাকে । তেমনি বাজেটেরও উদ্দেশ্য বা লক্ষ্য থাকবে । বাজেটে উদ্দেশ্য বা লক্ষ্যের বিস্তারিত বিবরণ অবশ্যই থাকতে হবে । বাজেটে এটির লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্যের বিবরণ না থাকলে সেটা হবে একটি অসম্পূর্ণ বাজেট ।

২. বাজেটের নীতির উল্লেখ : কি কি হাতিয়ার কিভাবে কোন সময় বাজেট বাস্তবায়নের সময় ব্যবহার করা হবে তার সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা বাজেটে থাকতে হবে । বিভিন্ন কর হার এবং কর আদায় পদ্ধতি ও সময়সমূহ যেমন উল্লেখ থাকা প্রয়োজন ; তেমনি কর পদ্ধতি পরিবর্তনের কারণ উল্লেখ থাকবে ।

৩. সরকারের প্রত্যাশিত আয় ও ব্যয়ের হিসাব : একটি ভালো বাজেটে সরকারের আগত বছরের প্রত্যাশিত আয় ও ব্যয়ের বিশদ বিবরণ উল্লেখ থাকবে । কোন খাত থেকে কিভাবে সম্পদ সংগ্রহ করা হবে এবং কারণ কি , তা যেমন উল্লেখ থাকবে , তেমনি সরকারের বিভিন্ন খাতে ব্যয়ের বিবরণ উল্লেখ থাকবে । কোন খাতে বেশি ব্যয় বাড়াবে এবং কোন খাতে ব্যয় কমাবে তার উল্লেখ থাকতে হবে ।

৪. বিগত বছরের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিবরণ : একটি বাজেট ভালো কি মন্দ তা বুঝতে হলে বিগত বছরের বাজেটের প্রস্তাবিত আয়ব্যয় এর উদ্দেশ্য এবং বাস্তব আয়ব্যয় ও ফলাফল চলতি বাজেটের সাথে স্পষ্ট উল্লেখ থাকতে হবে । যদি বিগত বছরের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিশদ বিবরণ এবং ফলাফল থাকে তাহলে চলতি বছরের বাজেটের আয়ব্যয়ের ধরন এবং ভবিষ্যৎ সম্পর্কে সহজেই মন্তব্য করা যায় ।

৫. চলতি অর্থনৈতিক চলকের বিবরণ : ভালো বাজেটে চলতি অর্থনৈতিক চলকগুলোর একটি সম্যক বিবরণ থাকা প্রয়োজন । কোন দেশের বাজেটে আয় , নিয়োগ , উৎপাদন , দামস্তর , সঞ্চয় , বিনিয়োগ , বৈদেশিক বাণিজ্য আয় , বাণিজ্য শর্ত , লেনদেনের পরিস্থিতি ইত্যাদির সংক্ষিপ্ত বিবরণ থাকা প্রয়োজন । এতে দেশবাসী দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা বুঝতে পারে এবং নতুন বাজেটে গৃহীত ব্যবস্থাসমূহ পর্যালোচনা করে বাজেটকে স্বাগত জানাতে পারে ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!