ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির কারণসমূহ বর্ণনা কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির কারণসমূহ বর্ণনা কর ।

উত্তর ৷ ভুমিকা : মুদ্রাস্ফীতি বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান সমস্যা । স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে দ্রব্যমূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পায় এবং দেশে ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতি দেখা দেয় ।

বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির কারণ : নিয়ে বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির কারণসমূহ বর্ণনা করা হলো :

১. অর্থের যোগান বৃদ্ধি : বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতি ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রধান কারণ হলো অর্থের যোগান বৃদ্ধি । স্বাধীনতা লাভের পর থেকে বাংলাদেশে অর্থ সরবরাহের পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে । ১৯৭১ সালে দেশে মুদ্রা সরবরাহের পরিমাণ ছিল ৩৩৩ কোটি টাকা । ২০০৬ সালে এসে দাঁড়ায় ৪৩,১৪৪ কোটি টাকা । সুতরাং অর্থের যোগান লাগামহীন বৃদ্ধি বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতি ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য বিশেষভাবে দায়ী ।

২. উৎপাদন হ্রাস : বাংলাদেশে মুদ্রাস্ফীতির অন্যতম প্রধান কারণ হলো উৎপাদন হ্রাস । বস্তুত স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে জনসংখ্যা যে হারে বাড়ছে উৎপাদন সে হারে বৃদ্ধি না পাওয়ায় মুদ্রাস্ফীতির মাত্রাও বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

৩. উদার ঋণনীতি : স্বাধীনতা লাভের পর দেশের যুদ্ধবিধ্বস্ত অর্থনীতির পুনর্গঠন ও পুনঃনির্মাণের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকসমূহের ঋণদান যথেষ্ট উদার করা হয় । ১৯৭২ সালে দেশে ব্যাংক ঋণের পরিমাণ ছিল ৫৫৪.২৭ কোটি টাকা , ২০০৭ সালের মার্চ পর্যন্ত উহা ১,৯৫,৮৩৫ কোটি টাকা হয় । এভাবে বাণিজ্যিক ব্যাংকের উদার ঋণনীতির কারণে দেশে মুদ্রাস্ফীতি দেখা দেয় ।

৪. খাদ্য ঘাটতি : দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধি , বন্যা , খরা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বাংলাদেশে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ খাদ্য ঘাটতি দেখা দেয় । এর ফলে খাদ্যশস্যের মূল্যবৃদ্ধি পায় এবং দ্রব্যসামগ্রীর দাম বেড়ে যায় ।

৫. আমদানি দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি : বিশ্ববাজারে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশকে বর্ধিত দামে দ্রব্য আমদানি করতে হয় । ফলে মূল্যস্তর বৃদ্ধি পায় ।

৬. উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি : কাঁচামালের উৎপাদন ব্যয় যন্ত্রপাতির অভাব , শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি , বিদ্যুৎ , কাগজ , নিউজপ্রিন্ট এবং পেট্রোল ও পেট্রোলজাত দ্রব্যের সরবরাহ মূল্যবৃদ্ধি পাওয়ায় উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে । ফলে দেশে মূল্যস্তরও বৃদ্ধি পেয়েছে ।

৭. জনসংখ্যা বৃদ্ধি : বাংলাদেশে জনসংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে । কিন্তু দ্রব্যসামগ্রীর উৎপাদন সে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে না । ফলে দ্রব্যমূল্য দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে ।

৮. মজুতদারি ও চোরাকারবারি : মজুতদার , চোরাকারবারি মুনাফাখোর , চোরাচালানি প্রভৃতি সমাজবিরোধী কার্যকলাপের মাধ্যমে নিজেদের হীন স্বার্থে দেশের অভ্যন্তরে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের সাময়িক সংকট সৃষ্টি করে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে মুদ্রাস্ফীতির সৃষ্টি করছে ।

৯. অতিরিক্ত পরোক্ষ কর : বাংলাদেশের রাজস্ব বাজেটের শতকরা ৮০ ভাগই আসে পরোক্ষ কর হতে । বাণিজ্য শুল্ক , আবগারি শুল্ক , মূল্য সংযোজন কর প্রভৃতি পরোক্ষ কর ধার্যের ফলে দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য যথেষ্ট বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং মুদ্রাস্ফীতির সৃষ্টি হচ্ছে ।

১০. বেতন ও মজুরি বৃদ্ধি : স্বাধীনতার পর হতে আজ পর্যন্ত বহুবার কর্মকর্তা , কর্মচারী ও শ্রমিকদের বেতন ও মজুরি বৃদ্ধি করা হয়েছে । কিন্তু দেশে দ্রব্যসামগ্রীর উৎপাদন সে অনুপাতে বাড়ে নি । ফলে দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় মুদ্রাস্ফীতি সৃষ্টি হয়েছে ।

১১. রপ্তানি বৃদ্ধি : বাংলাদেশে বর্তমানে লেনদেনের ভারসাম্যের প্রতিকূলতা দূর করার উদ্দেশ্যে রপ্তানি পণ্যের সংখ্যা ও পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে । ফলে দেশের অভ্যন্তরে পণ্যের যোগানের তুলনায় চাহিদা বেশি হচ্ছে এবং মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিচ্ছে ।

১২. টাকার অবমূল্যায়ন : স্বাধীনতার পর থেকে আজ পর্যন্ত বহুবার টাকার অবমূল্যায়ন করা হয়েছে । এর ফলে আমদানিকৃত দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে এবং মূল্যত্তর বৃদ্ধি পেয়েছে ।

১৩. সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি : স্বাধীনতার পর থেকে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠনের জন্য সরকারকে প্রচুর ব্যয় করতে হচ্ছে দেশের জন্য এ কারণে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

১৪. অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় বৃদ্ধি : আমাদের দেশে বিগত বছরগুলোতে অনুৎপাদনশীল খাতে প্রচুর ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে এ কারণে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

১৫. সুষ্ঠু পরিবহন ও যাতায়াত ব্যবস্থার অভাব : পরিবহন ও যাতায়াত ব্যবস্থার অভাবে দ্রব্যসামগ্রী দ্রুত একস্থান থেকে অন্য স্থানে প্রেরণ করা সম্ভব হয় না ফলে মূল্যস্তর বৃদ্ধি পেয়ে মুদ্রাস্ফীতির সৃষ্টি হয়ে থাকে ।

১৬. দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি : বাংলাদেশের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা , আন্তর্জাতিক পর্যায়েও যুদ্ধ এবং যুদ্ধ পরিবেশ বজায় রয়েছে । এর ফলস্বরূপ বাংলাদেশে দ্রব্যসামগ্রীর উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে এবং আমদানি পণ্যেরও মূল্যবৃদ্ধি পাচ্ছে । এতে করে মুদ্রাস্ফীতি সৃষ্টি হচ্ছে ।

উপসংহার : সুতরাং উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে এ কথা বলা যায় যে , বাংলাদেশে দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য দিন দিন বেড়েই চলছে এবং দেশে ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিয়েছে । তাই আমাদেরকে এখনই মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!