ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে ভারসাম্য বাজেট অথবা ঘাটতি বাজেটের পক্ষে যুক্তি দাও ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে ভারসাম্য বাজেট অথবা ঘাটতি বাজেটের পক্ষে যুক্তি দাও ।

উত্তর ৷ ভূমিকা : বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ । এদেশে ভারসাম্য বাজেট প্রকৃতপক্ষে হয় না । উন্নয়নের স্বার্থে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ঘাটতি বাজেট অবলম্বন করা হয় ।

১. দাম নিয়ন্ত্রণ : বাজেট সহায়ক । দাম হ্রাস মোকাবিলায় ঘাটতি বাজেট পুরোপুরি সক্ষম । বাজার মন্দা থেকে পরিত্রাণে ঘাটতি ।

২. সঞ্চয় সংগ্রহ : সরকার জনগণের নিকট হতে অতিরিক্ত পড়ে থাকা অর্থ ঘাটতি বাজেটে অর্থসংস্থানের জন্য ব্যবহার করে থাকে । এটির মাধ্যমে সঞ্চয় বৃদ্ধি পায় যা উন্নয়নে সহায়ক ।

৩. দাম বৃদ্ধির জন্য : অনুন্নত বা উন্নয়নশীল দেশের দামস্তর কিছুটা বেড়ে যাওয়া দরকার । তাই সরকার পরিকল্পিতভাবে ঘাটতি বাজেট প্রণয়নের মাধ্যমে দাম বাড়িয়ে দিতে পারে ।

৪. বৈদেশিক ঋণ : ঘাটতি অর্থসংস্থানের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উৎস হলো বৈদেশিক ঋণ । অনেক সময় একটি দেশ তার ঘাটতি বাজেট মোকাবিলায় মিত্র দেশের কাছ থেকে সহজ সুদে ও শর্তে ঋণ পেয়ে থাকে , যা ইতিবাচক ।

৫. জনগণের চাহিদা: অনুন্নত বা উন্নয়নশীল দেশের জনগণের চাহিদার শেষ নেই । চাহিদা প্রতিদিনই বাড়তে থাকে । এ ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে যদি আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হয় তাহলে তা দোষের নয় ।

৬. আয় – নিয়োগ বৃদ্ধি : ঘাটতি বাজেটের গুণক এককের চেয়ে বড় । সে কারণে কোন সময় যদি ঘাটতি বাজেট নীতি গ্রহণ করা হয় তাহলে দেশের আয় ও নিয়োগ বাড়বে ।

উপসংহার : সুতরাং উপর্যুক্ত আলোচনা শেষে বলা যায় বাংলাদেশের জন্য ঘাটতি বাজেটই যুক্তিযুক্ত ।

[ad_2]



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!