ডিগ্রী ৩য় বর্ষ ২০২২ ইংরেজি রকেট স্পেশাল সাজেশন ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯
ডিগ্রী তৃতীয় বর্ষ এবং অনার্স প্রথম বর্ষ এর রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে যোগাযোগ করুন সাজেশন মূল্য প্রতি বিষয় ২৫০টাকা। Whatsapp +8801979786079
Earn bitcoinGet 100$ bitcoin

প্রশ্নঃ অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সম্পদ আহরণে বাংলাদেশ সরকারের বাজেটের ভূমিকা উল্লেখ কর ।

[ad_1]

প্রশ্নঃ অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সম্পদ আহরণে বাংলাদেশ সরকারের বাজেটের ভূমিকা উল্লেখ কর ।

উত্তর ৷ ভূমিকা : ২০০৯-১০ অর্থবছরের জাতীয় সঞ্চয় ছিল জিডিপি – এর ৩০.০২ % এবং মোট বিনিয়োগ ছিল ২৪.৪১ % । অতএব বাংলাদেশে ব্যাপক সম্পদ ঘাটতি বিরাজ করছে । এ কারণে বাংলাদেশ বৈদেশিক সাহায্য ও ঋণের উপর নির্ভর করতে বাধ্য হচ্ছে । কিন্তু সম্প্রতি বৈদেশিক সাহায্য ও ঋণের প্রবাহ হ্রাস পাচ্ছে এবং শর্ত কঠোরতর হচ্ছে । অতএব বৈদেশিক সাহায্যের পরিবর্তে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বাড়ানো অতি প্রয়োজনীয় হয়ে পড়েছে । অধিকন্তু উল্লেখ্য যে , বাংলাদেশের অর্থনীতিকে দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র থেকে নিষ্কৃতি দেয়ার জন্য বর্তমান বিনিয়োগের হার যথেষ্ট নয় ।

অতএব অভ্যন্তরীণ সম্পদ বাড়ানো একান্ত আবশ্যক । দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহৃত হয় বেসরকারি খাতে এবং সরকারি খাতে । বেসরকারি খাতে সম্পদ সংগ্রহ বলতে পরিবারসমূহের সঞ্চয় এবং কর্পোরেশনগুলোর অবণ্টিত মুনাফা বুঝায় । পক্ষান্তরে , সরকারি খাতে সম্পদ সংগ্রহ বলতে সরকারের রাজস্ব বাজেটের উদ্বৃত্ত বুঝায় । অতএব বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণে সরকারের বাজেট নিম্নরূপে ভূমিকা পালন করছে এবং আরো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে ।

ক . বেসরকারি খাতে সম্পদ আহরণে বাজেটের ভূমিকা : বেসরকারি খাতে সম্পদ আহরণে সরকার পরোক্ষ ভূমিকা পালন করতে পারে । বর্তমানে সরকার বিনিয়োগকৃত আয়কে কর অব্যাহতি দিচ্ছে । ফলে পরিবারসমূহ এবং কর্পোরেশনগুলো বিনিয়োগে উৎসাহিত হচ্ছে । ভবিষ্যতে সরকার বিনিয়োগকে কর অব্যাহতি দিয়ে এবং ভোগকে করারোপ করে বেসরকারি খাতে সঞ্চয় বাড়াতে পারে ।

খ . সরকারি খাতে সম্পদ আহরণে বাজেটের ভূমিকা : সরকারি খাতে বাজেটে সরাসরি সম্পদ আহরণে সরকার ভূমিকা রাখতে পারে । বাজেটে রাজস্ব ব্যয়ের তুলনায় রাজস্ব আয় বেশি হলে যে রাজস্ব উদ্বৃত্ত সৃষ্টি হয় তাই সরকারি খাতের সঞ্চয় । ২০১০-২০১১ সালের বাজেটে এই রাজস্ব উদ্বৃত্ত ২২,৪২৬ কোটি টাকা হবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছে । যদি তা বাস্তবায়িত হয় তবে সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির মোট ব্যয়ের প্রায় ৬৬ % সরকারের নিজস্ব তহবিল দ্বারা অর্থায়ন সম্ভব হবে । অতএব সরকারের রাজস্ব উদ্বৃত্ত বৃদ্ধির জন্য সরকার নিম্নোক্ত পন্থা অবলম্বন করতে পারে ।

১. রাজস্ব আয় বৃদ্ধি : সরকারি খাতে সম্পদ আহরণ বৃদ্ধির প্রধান উপায় হচ্ছে সরকারের রাজস্ব প্রাপ্তি বৃদ্ধি করা । বাংলাদেশ সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি করার অনেক অবকাশ আছে ।

২. রাজস্ব ব্যয় হ্রাস : সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধির চেষ্টা করা যেমন প্রয়োজন তেমনই সরকারের রাজস্ব ব্যয় হ্রাস করার চেষ্টা করাও আবশ্যক । সরকার বলিষ্ঠ পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ব্যয় হ্রাস করতে পারে ।

উপসংহার : উপরে বর্ণিত পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করলে দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণে সরকার আরো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে ।

[ad_2]

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন:01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!