অথবা, পরিসরের দোষ লিখ।
অথবা, পরিসরের দুর্বল দিকসমূহ উল্লেখ কর। to andital
অথবা, পরিসরের অসুবিধাগুলো তুলে ধর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
বিস্তার পরিমাপের সর্বাপেক্ষা সহজ পরিমাপক হলো পরিসর। কোন নিবেশনের মানগুলোর বৃহত্তম ও ক্ষুদ্রতম মানের ব্যবধানই হলো পরিসর। এটি অত্যন্ত সহজ বলে এর কিছু সুবিধা থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। তবে সুবিধার পাশাপাশি এর অনেক অসুবিধাও রয়েছে ।
পরিসরের অসুবিধা : পরিসর নির্ণয় ও প্রয়োগ অত্যন্ত সহজ ও সরল হলেও এর উল্লেখযোগ্য কিছু অসুবিধা রয়েছে । নিম্নে তা উল্লেখ করা হলো :
i. পরিসর তথ্যসারির সকল মানের উপর ভিত্তিতে নির্ণয় করা হয় না। একারণে পরিসর তথ্যসারির মানগুলোর মধ্যকার বিস্তৃতি সম্পর্কে ধারণা প্রদানে সম্পূর্ণভাবে অক্ষম ।
ii. এটি নির্ণয়ে তথ্যসারির শুধু দুটি মান অর্থাৎ সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন মান ব্যবহৃত হয়। একারণে দুই বা ততোধিক তথ্যসারির বিস্তৃতিতে পরিসরের মাধ্যমে তুলনা করা যায় না ।
iii. এর প্রাত্তীয় অর্থাৎ চরম মান দ্বারা অধিক মাত্রায় প্রভাবিত হয়।
iv. এটি নমুনা বিচ্যুতি দ্বারাও অধিকমাত্রায় বেশি প্রভাবিত হয় ।
v. ইহার মান পরবর্তী গাণিতিক প্রক্রিয়ায় ব্যবহারের অনুপযোগী।
vi. কোন গণসংখ্যা নিবেশনে মুক্ত শ্রেণি সীমা অর্থাৎ খোলা প্রান্ত বিশিষ্ট শ্রেণি সীমা থাকলে পরিসর নির্ণয় করা যায় না।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, বিস্তার পরিমাপের জন্য পরিসরের কিছু সাধারণ সুবিধা থাকলেও নিবেশনের কেবল দুটি প্রান্তিক মান দ্বারা নির্ণীত হয় বলে এ পদ্ধতির অনেক অসুবিধা বর্তমান। কেননা এখানে নিবেশনের অন্যান্য মানের কোন মূল্য থাকে না, আবার মুক্ত প্রান্তসীমা বিশিষ্ট উপাত্ত হলে, একাধিক প্রান্তিক মান থাকলে এবং প্রান্তিকমান খুব বড় বা ছোট হলে বিস্তারের পরিসর নির্ণয়ে সমস্যার সৃষ্টি হয়।

https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%9a%e0%a6%a4%e0%a7%81%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a5-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%aa/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!