তত্ত্বের গঠনের অপরিহার্য উপাদানগুলো লিখ।
অথবা, তত্ত্বের গঠনের উপাদান লিখ।
অথবা, তত্ত্বের বিনির্মাণের উপাদানসমূহ লিখ।
অথবা, তত্ত্ব বিনির্মাণের উপাদানগুলো উল্লেখ কর।

উত্তর৷ ভূমিকা : Theory is the tools of Science. সমাজবিজ্ঞানের প্রাণকেন্দ্র হলো Theory বা তত্ত্ব । তত্ত্ব হলো কতকগুলো Proposition বা প্রস্তাবনার সমষ্টি, যাকে আমরা বাস্তবে পরীক্ষা করতে পারি। ঘটনাবলি সম্পর্কে বৈজ্ঞানিক উপায়ে একটি সর্বজনীন সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়াকে Theory বা তত্ত্ব বলে।
তত্ত্বের গঠনের অপরিহার্য উপাদানগুলো : তত্ত্ব গঠনের বা তত্ত্ব বিনির্মাণে যেসব উপাদানকে চিহ্নিত করা যায় তা হলো : i. প্রত্যয়, ii. সংজ্ঞা, iii. চলক বা বিভিন্নক, iv. প্রস্তাবনা, v. আঙ্গিক, vi. ভাষা ।

i. প্রত্যয় : তত্ত্ব গঠনে প্রত্যয় একটি গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক উপাদান । প্রত্যয়কে বিমূর্ত বা Abstract বলা হয়ে থাকে। এটি অনেকগুলো ধারণাকে সংক্ষিপ্তাকারে প্রকাশ করে । বস্তু ও ঘটনার উপর অনুসন্ধান ও পর্যবেক্ষণে সংক্ষিপ্তকরণের উপর ভিত্তি করে প্রত্যয় গড়ে উঠে। প্রত্যয় গঠনের উদ্দেশ্য হলো অনুসন্ধান কার্যকে সহায়তা করা ।

ii. সংজ্ঞা : তত্ত্বের একটি অপরিহার্য উপাদান হলো সংজ্ঞা। সংজ্ঞা বলতে কোনো শব্দ বা প্রত্যয়ের অর্থ সম্পর্কে সঠিক তাৎপর্য নির্ধারণ ও তার ব্যাখ্যা বুঝায়। “A definition is the precise state of the meaning of a word.” [Ghosh, 1992,83]


iii. চলক বা বিভিন্নক : চলক বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধান পদ্ধতির সবচেয়ে ক্ষুদ্র এবং সর্বাধিক সংবেদনশীল উপাদান ৷ চলক বলতে এমন বৈশিষ্ট্যকে বুঝায়, যা বিভিন্ন ঘটনার প্রেক্ষিতে পরিবর্তিত হতে পারে এবং যা পরিমাপযোগ্য। B.F. Anderson এর মতে, “চলক হলো বিচ্ছিন্ন গুণের সমাবেশ।”


iv. প্রস্তাবনা : প্রস্তাবনা একটি সম্পর্কমূলক উক্তি । প্রস্তাবনা থেকে প্রকল্প প্রণীত হয় এবং প্রস্তাবনাই বৈজ্ঞানিক ভাষার মূল মেজাজটি ধরে রাখে। সাধারণভাবে প্রস্তাবনা হলো এক বা একাধিক প্রত্যয়ের বা চলকের বর্ণনা।


v. আঙ্গিক : আঙ্গিকগত দিকটিকে তত্ত্বের আর একটি উপাদান বলা চলে। কারণ বিশেষ একটি আঙ্গিক ব্যতিরেকে তত্ত্ব নির্মাণ সম্ভব নয় । তত্ত্বের এ আঙ্গিক মূলত নির্ভর করে উক্তি বা প্রস্তাবনার যৌক্তিক ধরন ও বিন্যাসের উপর ।


vi. ভাষা : তত্ত্বের ভাষা সাহিত্যের ভাষা নয়, সর্বসাধারণের ভাষাও নয়, বরং যুক্তিসিদ্ধ, প্রত্যয়নিষ্ঠ ও সুনির্দিষ্ট অর্থে ব্যক্ত বক্তব্যের সমাহার। বিজ্ঞানের ভাষার মতো তত্ত্বের ভাষা হওয়া দরকার স্পষ্ট, সর্বজনগ্রাহ্য ও যৌক্তিক।

উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় যে, সামাজিক গবেষণায় তত্ত্বের গুরুত্বপূর্ণ বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। আর তত্ত্ব গঠন করা হয় এর বিভিন্ন উপাদানের সাহায্যে। তত্ত্বের উপাদানসমূহ আবার তত্ত্বকে সহজে বোধগম্য করতেও সাহায্য করে থাকে।

admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!