একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পাবার কারণ কী?
অথবা, একাধিক বিবাহ কমে যাওয়ার কারণগুলো আলোচনা কর।
অথবা, বহুবিবাহ বিলুপ্তির কারণগুলো লিখ ।
উত্তর৷ ভূমিকা : বাংলাদেশে এক বিবাহভিত্তিক পরিবারই বেশি। তবে গ্রামীণ ধনী মুসলিম পরিবারে একাধিক
স্ত্রী বিবাহভিত্তিক পরিবারের অস্তিত্ব রয়েছে। অবশ্য ইদানিং, এর পরিমাণ কমে গেছে।
একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পাওয়ার কারণ : যেসব কারণে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে তা হলো :
১. শিক্ষা ও সচেতনতা বৃদ্ধি : বর্তমানে শিক্ষা গ্রহণের ফলে মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ পরিবারের
আকার সীমিত রাখার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করতে পেরে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ থেকে বিরত থাকে।
২. আইন প্রয়োগ : বর্তমান আইন অনুযায়ী প্রথম স্ত্রীর স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন না থাকলে দ্বিতীয় স্ত্রী গ্রহণ করা যায় না।
এই আইনের কারণে দ্বিতীয় স্ত্রী গ্রহণ করা যায় না।
৩. সামাজিক মর্যাদা হ্রাস: সামাজিকভাবেও একাধিক স্ত্রী গ্রহণ অনেকের দৃষ্টিতে কাম্য নয়। একাধিক স্ত্রী গ্রহণ
করলে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয়।
৪. ব্যয়ভার বৃদ্ধি : একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করলে পরিবারের ব্যয়ভার বৃদ্ধি পায়। অনেকের পক্ষেই এই ব্যয়ভার বহন
একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে।
করা সম্ভব হয় না।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, অর্থ সম্পদ থাকলে ইসলাম ধর্ম বিশেষ প্রয়োজনে সকল স্ত্রীর সঙ্গে সম্পূর্ণ
সমান দৃষ্টিভঙ্গি ও সমান আচরণের শর্তে একাধিক স্ত্রী বিবাহের অনুমতি দেয়। তবে খুব কম লোকের পক্ষেই সবার প্রতি
সমান আচরণ দেখানো সম্ভব। তাই কার্যত একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে।
অথবা, একাধিক বিবাহ কমে যাওয়ার কারণগুলো আলোচনা কর।
অথবা, বহুবিবাহ বিলুপ্তির কারণগুলো লিখ ।
উত্তর৷ ভূমিকা : বাংলাদেশে এক বিবাহভিত্তিক পরিবারই বেশি। তবে গ্রামীণ ধনী মুসলিম পরিবারে একাধিক স্ত্রী বিবাহভিত্তিক পরিবারের অস্তিত্ব রয়েছে। অবশ্য ইদানিং, এর পরিমাণ কমে গেছে। একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পাওয়ার কারণ : যেসব কারণে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে তা হলো :
১. শিক্ষা ও সচেতনতা বৃদ্ধি : বর্তমানে শিক্ষা গ্রহণের ফলে মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ পরিবারের আকার সীমিত রাখার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করতে পেরে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ থেকে বিরত থাকে।
২. আইন প্রয়োগ : বর্তমান আইন অনুযায়ী প্রথম স্ত্রীর স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন না থাকলে দ্বিতীয় স্ত্রী গ্রহণ করা যায় না। এই আইনের কারণে দ্বিতীয় স্ত্রী গ্রহণ করা যায় না।
৩. সামাজিক মর্যাদা হ্রাস: সামাজিকভাবেও একাধিক স্ত্রী গ্রহণ অনেকের দৃষ্টিতে কাম্য নয়। একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করলে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয়।
৪. ব্যয়ভার বৃদ্ধি : একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করলে পরিবারের ব্যয়ভার বৃদ্ধি পায়। অনেকের পক্ষেই এই ব্যয়ভার বহন একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে।
করা সম্ভব হয় না।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, অর্থ সম্পদ থাকলে ইসলাম ধর্ম বিশেষ প্রয়োজনে সকল স্ত্রীর সঙ্গে সম্পূর্ণ সমান দৃষ্টিভঙ্গি ও সমান আচরণের শর্তে একাধিক স্ত্রী বিবাহের অনুমতি দেয়। তবে খুব কম লোকের পক্ষেই সবার প্রতি সমান আচরণ দেখানো সম্ভব। তাই কার্যত একাধিক স্ত্রী গ্রহণ হ্রাস পেয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!