General Knowledge

সংস্কৃতির সংজ্ঞা দাও।

অথবা, সংস্কৃতি কী?
উত্তর৷ ভূমিকা :
মানুষের সামগ্রিক জীবনযাত্রার প্রণালি হলো সংস্কৃতি। সংস্কৃতির মাধ্যমে মানুষ সেই সমাজের আদর্শ, মূল্যবোধ, আচার, অনুষ্ঠান, বিশ্বাস, চেতনাবোধ লাভ করে। সংস্কৃতি হলো মানুষের পোশাক পরিচ্ছদ, খাওয়া- দাওয়া, চাল-চলন, অনুষ্ঠান, আচার আচরণের সমষ্টি।
সংস্কৃতির উৎপত্তি : সংস্কৃতির ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো Culture যা Latin শব্দ Colere থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। এর অর্থ কর্ষণ বা চাষ।
সংকীর্ণ অর্থে : সংকীর্ণ অর্থে সংস্কৃতি বলতে আমরা বুঝি মার্জিত রুচি বা অভ্যাসজনিত উৎকর্ষ।
ব্যাপক অর্থে : ব্যাপক অর্থে মানুষের জীবনযাত্রার প্রণালি বা জীবনধারাকেই সংস্কৃতি বলে।
প্রামাণ্য সংজ্ঞা : বিভিন্ন মনীষী সংস্কৃতি সম্পর্কে সংজ্ঞা প্রদান করেছেন। নিচে তাঁদের কয়েকটি উল্লেখযোগ্য সংজ্ঞা উপস্থাপন করা হলো :
ম্যাকাইভার (MacIver) এর মতে, “Culture is what we are.” অর্থাৎ, আমরা যা তাই আমাদের সংস্কৃতি। E. B. Tylor তার ‘Primitive Culture’ গ্রন্থে বলেন, “Culture is that complex whole which includes knowledge, belief, art, law, custom and any other capabilities and habits acquired by man as a member of society.” অর্থাৎ, সমাজের সদস্য হিসেবে অর্জিত আচার আচরণ ব্যবহার, জ্ঞান, বিশ্বাস, শিল্পকলা, নীতি, প্রথা, আইন ইত্যাদির জটিল সমন্বয়ই হলো সংস্কৃতি। Encyclopaedia of Social Science অনুসারে, “সংস্কৃতি মানুষের উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত ব্যবহারিক শিল্প দ্রব্যসামগ্রী, কারিগরি প্রণালি, ধারাসমূহ, অভ্যাস ও মূল্যবোধ।” কুলি, এঞ্জেল এবং কার (Cooley, Angel and Carr) এর মতে, “Culture is the sum total of transmittable esult of living together.” অর্থাৎ, একত্রে বাস করার ফলশ্রুতি যা বংশপরম্পরায় বাহিত হয় তাই সংস্কৃতি। কার্ল মার্কস (Karl Marx) এর মতে, “Culture is super structure.” অর্থাৎ, সংস্কৃতি হলো উপরি কাঠামো।
Marx-এর মতে, “Basic structure বা মৌল কাঠামো সমাজের অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া তথা Base বা foundation কে চিহ্নিত করে। অন্যদিকে, Super structure হচ্ছে Base-এর উপর ক্রিয়াশীল অর্থনৈতিক উপাদান ব্যতীত ব্যক্তিক ও নৈর্ব্যক্তিক সকল উপাদান, আইনকানুন, দর্শন, রাজনীতি, চিন্তাচেতনা, আদর্শ ও মূল্যবোধ, শিল্পকলা ইত্যাদি।”
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় যে, সংস্কৃতি হলো মানুষের সামগ্রিক জীবনযাত্রা ও চেতনার ফলশ্রুতি যার দ্বারা ব্যক্তি তথা সমাজজীবন পরিচালিত হয়।.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!