অথবা, জেন্ডারভিত্তিক শ্রমবিভাজন বলতে কী বুঝ?
অথবা, লিঙ্গভিত্তিক শ্রম বিভাজন বলতে কী বুঝ?
অথবা, জেন্ডারভিত্তিক শ্রম বিভাজন কাকে বলে?
অথবা, জেন্ডারভিত্তিক শ্রম বিভাজন কী?
অথবা, লিঙ্গভিত্তিক শ্রম বিভাজন কাকে বলে?
উত্তর৷ ভূমিকা :
নারী-পুরুষের সামাজিক অবস্থান ও পারস্পর্যতার ক্ষেত্রে যে উত্তম-অধম ও উর্ধ্বতন অধস্তন সম্পর্ক দেখা যায় তার মূল ভিত্তি হলো লিঙ্গগত শ্রম বিভাজন। সভ্যতার ইতিহাসে অন্যতম প্রাচীন এ বিভাজন ও ধারণা মূলত গ্রিক হেলেনিজমের অনুসারী ও বিস্তৃত রূপ। অবৈজ্ঞানিক ও অ-যুক্তিবাদী ধারণা পুরুষতান্ত্রিক সমাজের বিনির্মাণ ও বিকাশে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে এবং নারীকে অধীস্ত সত্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে।
লিঙ্গভিত্তিক শ্রম বিভাজন : নারী ও পুরুষের শারীরিক দিককে প্রাধান্য না দিয়ে পারিবারিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে তাদের কাজের বা শ্রমের যে বিভাজন তৈরি করা হয় তাই জেন্ডার শ্রমবিভাজন বা লিঙ্গগত শ্রম বিভাজন। প্রচলিত সমাজব্যবস্থায় একজন নারী ও একজন পুরুষ ভিন্ন ভিন্ন দায়িত্ব পালন করে। সাধারণত পুরুষের কাজ পরিবার থেকে সমাজের বৃহত্তর ক্ষেত্রে ক্রম প্রসারমান। অন্যদিকে নারীর ভূমিকা ও কার্যাবলির সবটুকুই পরিবারের মধ্যে সীমিত ও সীমাবদ্ধ বলে মনে করা হয়। এ ক্ষেত্রগত পার্থক্যের দৃষ্টিভঙ্গি উভয়ের কাজের অর্থনৈতিক গুরুত্বের ক্ষেত্রেও পার্থক্য সৃষ্টি করে। এ কারণেই নারীর কাজকে অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ ও পুরুষের কাজকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, সমাজ নির্ধারিত এ লিঙ্গগত শ্রম বিভাজন নীতি নারীকে গৃহে সীমাবদ্ধ রাখতে সহায়তা করেছে এবং পুরুষের দায়িত্ব ও কাজের পরিধিকে প্রসারিত করেছে। ফলে, পুরুষতান্ত্রিক সমাজে পুরুষের ক্ষমতা ও আধিপত্য সংহত হয়েছে, অন্যদিকে নারীর ক্ষমতাহীনতার কারণ হিসেবে কাজ করেছে।

https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%a6%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%a4%e0%a7%80%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%80%e0%a6%b0-%e0%a6%85/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!