ডিগ্রি প্রথম এবং অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ ২০২৩ এর সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯

 ডিগ্রী সকল বই

রাজনৈতিক অংশগ্রহণ কাকে বলে?

অথবা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ বলতে কী বুঝ?
অথবা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণের সংজ্ঞা দাও।
অথবা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ কী?
উত্তর।। ভূমিকা :
যেকোন রাজনৈতিক ব্যবস্থার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হলো রাজনৈতিক অংশগ্রহণ (Political Participation). প্রকৃত প্রস্তাবে প্রত্যেক রাজনৈতিক ব্যবস্থায় রাজনৈতিক অংশগ্রহণ হলো একটি আবশ্যিক উপাদান। আধুনিককালে গণতান্ত্রিক অগণতান্ত্রিক নির্বিশেষে সকল রাজনৈতিক ব্যবস্থায়, এমনকি সামরিক শাসনাধীন রাষ্ট্রেও জনগণের রাজনৈতিক অংশগ্রহণের উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।
রাজনৈতিক অংশগ্রহণ (Political Participation) : সাধারণত রাজনৈতিক অংশগ্রহণ হলো রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় জনগণের ব্যাপক অংশগ্রহণ। তাই একটি দেশের রাজনৈতিক উন্নয়ন বিচার করা হয় সে দেশের রাজনৈতিক অংশগ্রহণের মাপকাঠির ভিত্তিতে। তাই রাজনৈতিক উন্নয়নের সাথে রাজনৈতিক ব্যবস্থায় জনগণের অংশগ্রহণ বিশেষভাবে সম্পর্কযুক্ত। জনগণ যখন রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে সরকারী নীতিমালায় প্রভাব চর্চা করতে এবং রাজনৈতিক ব্যবস্থার উপর কর্তৃত্ব ও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে সচেষ্ট হয়, তখন তাকে রাজনৈতিক অংশগ্রহণ বলে।
বস্তুত রাজনৈতিক অংশগ্রহণের মাধ্যমে তৈরি হয় মত প্রকাশের স্বাধীনতা, সভা-সমাবেশ করার স্বাধীনতা, জনগণের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অংশগ্রহণের অধিকার, নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ, প্রচার প্রচারণার সুযোগ তৈরি, নির্বাচিত হয়ে নির্বাচনে সরকারী ক্ষমতা গ্রহণের অধিকার। রাজনৈতিক অংশগ্রহণ ত্বরান্বিত করে থাকে রাজনৈতিক দল। আর, অংশগ্রহণের মাধ্যমে তা গড়ে উঠে। অতএব বলা যায় যে, নেতা নির্বাচন কিংবা নির্বাচিত হবার জন্য ভোটদান প্রক্রিয়া,প্রচার-প্রচারণা, দল গঠন, সভা-সমাবেশ আন্দোলনে অংশগ্রহণ ইত্যাদির মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা অর্জনের জন্য এবং বৃহত্তর জনস্বার্থে ব্যক্তি বা গোষ্ঠী কর্তৃক রাজনৈতিক উন্নয়ন। রাজিৈনতক স্তরের সাথে সংযুক্ত, প্রভাব বিস্তারকারী, আদর্শগত কাঠামো সংশ্লিষ্ট যেকোন কার্যাবলিই রাজনৈতিক অংশগ্রহণ। রাজনৈতিক অংশগ্রহণ ভোটদান থেকে সন্ত্রাসবিরোধী র‍্যালি বা
প্রতিনিধিদের কাছে স্মারকলিপি প্রদান পর্যন্ত বিস্তৃত।বিভিন্ন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও রাজনীতি অংশগ্রহণের সংজ্ঞা প্রদান করেন। সংজ্ঞাগুলো নিম্নরূপ :

লুসিয়ান পাই (Lucianw. Pye) তাঁর “… Process of mass participation meant a diffusen on decesion making and Participation brought Some influence on choice and decision.”

Herbert Meclosky বলেন, “রাজনীতিক ব্যবস্থার বিভিন্ন স্তরে ব্যক্তির সংযুক্তি বা অন্তর্ভূক্তিই হলো রাজনৈতিক অংশগ্রহণ”

স্যামুয়েল পি. হানটিংটন ও জোয়ান নেলসন বলেছেন, “নাগরিকরা সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়াকে প্রভাবিতমকরে। নাগরিকদের এই কাজকর্মই হলো রাজনীতিক অংশগ্রহণ।”সুতরাং উপরোক্ত আলোচনা থেকে বোঝা যায় যে, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ বলতে সমাজের সদস্যের বিশেষ কিছু স্বেচ্ছামূলক কাজকর্মে অংশগ্রহণ, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সরকারি নীতি নির্ধারণ, ভোটদান, রাজনৈতিকভাবে ধর্মঘট, সভা, মিছিল করা, আইন সভার সদস্য ও অন্যান্য রাজনীতিবিদদের সাথে সংযোগ সাধনকে বুঝায়।
উপসংহার : উন্নত ও উন্নয়নশীল রাষ্ট্রসমূহে অংশগ্রহণ তত্ত্ব গতিশীলতা আনয়নে এক নবদিগন্তের উন্মোচন করে।স্বনির্ভরতা, দ্রারিদ্র্য বিমোচন, পরিবেশ ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন, সরকারি ও বেসরকারি উন্নয়ন প্রকল্প তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়ন ও আত্মউন্নয়ন ইত্যাদি প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে জনগণের অংশগ্রহণকে গুরুত্বপূর্ণ কৌশল হিসাবে গণ্য করা হচ্ছে। রাজনৈতিক উন্নয়ন ও আধুনিকীকরণের বাহন হিসাবেও রাজনৈতিক অংশগ্রহণকে বিবেচনা করা হয়। ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে উন্নয়নশীল দেশসমূহে সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক উন্নয়ন জগণের এ সকল ক্ষেত্রে অংশগ্রহণকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আসছে।



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!