ডিগ্রি প্রথম এবং অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ ২০২৩ এর সকল বিষয়ের রকেট স্পেশাল ফাইনাল সাজেশন প্রস্তুত রয়েছে মূল্য মাত্র ২৫০টাকা প্রতি বিষয় এবং ৭ বিষয়ের নিলে ১৫০০টাকা। সাজেশন পেতে দ্রুত যোগাযোগ ০১৯৭৯৭৮৬০৭৯

 ডিগ্রী সকল বই

পৌরসভা কোন কোন কাজের সাথে জড়িত? আলোচনা কর।

অথবা, পৌরসভার কার্যাবলি উল্লেখ কর।
অথবা, পৌরসভার কার্যাবলি বর্ণনা কর।
অথবা, পৌরসভা যে সকল কার্যসম্পাদন করে থাকে তা আলোচনা কর।
অথবা, পৌরসভার কার্যাবলি আলোচনা কর।
অথবা, পৌরসভার ভূমিকা বিশ্লেষণ কর।
অথবা, পৌরসভার কার্যাবলি সম্পর্কে যা জান লেখ ।
উত্তর৷ ভূমিকা :
শহরে স্থানীয় স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠান হলো পৌরসভা। ১৯৭৭ সালের পৌরসভা অধ্যাদেশে বলা হয়েছে যে, যেসব এলাকায় কমপক্ষে পনেরো হাজার লোক বাস করেন, যেখানে তিন চতুর্থাংশ জনশক্তির জীবিকার্জনের পন্থা কৃষিকাজ নয়, সেসব এলাকা শহর বলে পরিচিত। শহর এলাকার জন্য পৌরসভা গঠিত আর মহানগরগুলোর জন্য সিটি কর্পোরেশন গঠিত হয়েছে।
পৌরসভার কার্যাবলি : শহর এলাকার স্থানীয় স্বায়ত্তশাসিত সরকার হিসেবে পৌরসভা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। পৌরসভার কার্যক্রমের সাফল্যের উপর শহরের উন্নয়ন অনেকাংশে নির্ভরশীল। নাগরিক সুযোগ সুবিধা প্রদানের উদ্দেশ্যে পৌরসভা নিম্নলিখিত কার্যাবলি পালন করে থাকে। যথা :
১. জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত কার্যাবলি : পৌর এলাকার জনস্বাস্থ্যকর ব্যবস্থার উৎকর্ষতা সাধন করা পৌরসভার দায়িত্ব।পৌরসভা সাধারণের রাস্তা, পায়খানা, ডাস্টবিন, পয়ঃপ্রণালি ইত্যাদি হতে ময়লা আবর্জনা অপসারণের ব্যবস্থা করে সংক্রামক রোগের প্রতিরোধ, পোলিও, কলেরা ও বসন্তের টিকা দান, প্রসূতিদের জন্য মাতৃসদন স্থাপন, যেখানে হাসপাতাল নেই সেখানে চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপন করে থাকে। রোগজীবাণু ধ্বংসকারী ওষুধপত্র সরবরাহ, মশার ঔষধ ছিটিয়ে মশার হাত থেকে নগরবাসীকে রক্ষা করাও পৌরসভার কাজ।
২. পানি সরবরাহ ও পয় : প্রণালি সংক্রান্ত কাজ : পৌরসভা নগরবাসীর জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে থাকে। এজন্য পানি শোধনাগার তৈরি নলকূপ স্থাপন, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, পরিদর্শন, নিয়ন্ত্রণ পৌরসভার কাজ। পানীয় জল যাতে দূষিত না হয় তার ব্যবস্থা করাও তার দায়িত্ব। পানি ও ময়লা নিষ্কাশনের জন্য ভূতলগামী পয়ঃপ্রণালির ব্যবস্থা গ্রহণ করা পৌরসভার অন্যতম কর্তব্য।
৩. খাদ্য ও পানীয় সামগ্রী সংক্রান্ত কাজ : শহরাঞ্চলে বসবাসকারীদের জন্য খাদ্যদ্রব্যের নিয়মিত সরবরাহ নিশ্চিত
করা ও বাজারে খাদ্যদ্রব্য যাতে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে ক্রয়-বিক্রয় হতে পারে তার ব্যবস্থা রাখা তথা বাজারের পরিচ্ছন্নতা রক্ষা করা পৌরসভার অন্যতম কাজ। এজন্য পৌরসভা বাজার নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। পৌরসভার নিজস্ব বিক্রয়কেন্দ্র থাকতে পারে অথবা পৌরসভা কর্তৃক প্রদত্ত লাইসেন্সধারী ক্রয়কেন্দ্র পরিচালিত করতে পারে। উপযুক্ত স্থানে কসাইখানা স্থাপন করতে পারে। ভেজাল জাতীয় খাদ্য বিক্রয় নিয়ন্ত্রণ করা মোটকথা, শহরাঞ্চলে খাদ্য ও পানীয়ের স্বাস্থ্যসম্মতভাবে সরবরাহ নিশ্চিত করা পৌরসভার দায়িত্ব।
৪. জীবজন্তু নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কাজ : জীবজন্তুর চিকিৎসার জন্য পৌরসভা পণ্ড হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করে ও বিপজ্জনক কোনো জীবজন্তু যেন অনিয়মিতভাবে ঘুরে বেড়িয়ে জনগণের অসুবিধা সৃষ্টি করতে না পারে তার জন্য পৌরসভা খোয়াড় নির্মাণ করে থাকে। পশুর মৃতদেহ অপসারণ করা, গবাদি পশু বিক্রয় অনুমতি দেয়াও পৌরসভার কাজ।
৫. গৃহনির্মাণ নিয়ন্ত্রণ : শহরে গৃহনির্মাণ নিয়ন্ত্রণের জন্য পৌরসভা গৃহের নকশা অনুমোদন করে থাকে আর অননুমোদিত নকশাতে তৈরি গৃহ ভেঙে দেয়ার নির্দেশ দিয়ে থাকে। অযোগ্য বা বসবাসকারীদের জন্য কোনো পুরাতনগৃহ বিপজ্জনক মনে হলে তা ভেঙে দিতে পারে বা গৃহের মালিককে তা ভেঙে ফেলার জন্য আদেশ দিতে পারেন ।
৬. নগর পরিকল্পনা : নগরের সার্বিক উন্নয়ন ও সৌন্দর্যবর্ধন করা পৌরসভার দায়িত্ব। এজন্য পৌরসভা কোনো কোনো ক্ষেত্রে মহাপরিকল্পনা ও (Master Plan) প্রণয়ন করে। আর সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী শহরের সামগ্রিক উন্নয়নের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী গৃহনির্মাণ, রাস্তাঘাট তৈরি, পয়ঃপ্রণালির ব্যবস্থা ইত্যাদি সম্পন্ন হয়। মহাপরিকল্পনা কার্যকর করার সময় প্রয়োজন হলে বসবাসকারীদের শহরের অন্য জায়গায় স্থানান্তরের ব্যবস্থা করাও পৌরসভার দায়িত্ব।
৭. রাজপথ ও সড়ক সম্পর্কিত কার্যাবলি : পৌর এলাকার জনসাধারণের চলাচলের সুবিধার জন্য মহাপরিকল্পনা অনুসারে পৌরসভা শহরে রাস্তাঘাট নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা করে থাকে। শহরের রাস্তার নামকরণও পৌরসভা করে থাকে। পৌরসভা রাস্তায় আলোর ব্যবস্থা করে, শহরে যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করে ও রাস্তা, সড়ক পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন রাখে। প্রয়োজনবোধে কখনো কখনো রাস্তা ধৌতকরণের ব্যবস্থাও করে থাকে। এজন্য পৌরসভা কোনো কোনো ক্ষেত্রে সরকার বা অন্যান্য সংস্থার সহযোগিতাও লাভ করে থাকে।
৮. জননিরাপত্তা সংক্রান্ত কাজ : পৌর এলাকার জননিরাপত্তার দায়িত্ব পৌরসভার। অগ্নি নির্বাপণের জন্য ফায়ার ব্রিগেড স্থাপন করেন। কোনো কোনো সময় বেসামরিক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করে। পৌর এলাকার জনগণের জীবন ও সম্পত্তির নিরাপত্তার জন্য প্রহরী নিয়োগ, অপরাধমূলক খেলা ও পেশার নিয়ন্ত্রণ, মাদক ও অন্যান্য বিপদজনক দ্রব্যের ক্রয় বিক্রয় নিয়ন্ত্রণ, স্বাস্থ্যসম্মতভাবে কবরস্থান ও শশ্মান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ করাও দুর্ভিক্ষের সময় দরিদ্র জনগণের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থা ইত্যাদি কার্যাবলি পৌরসভা করে থাকে।
৯. পার্ক ও উদ্যান সংক্রান্ত কাজ : জনগণের চিত্তবিনোদনের জন্য পার্ক ও উদ্যান তৈরি ও তার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পৌরসভার। সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে পৌরসভা শহরের উপকণ্ঠে পার্ক বা বনায়নের ব্যবস্থা করতে পারে পৌরসভা রাস্তার আশপাশে বৃক্ষরোপণ ও তা সংরক্ষণ করে থাকে।
১০. সমাজকল্যাণমূলক কাজ : পৌরসভা অনাথ, দুঃস্থ ও এতিমদের জন্য এতিমখানা ও কল্যাণকেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে সমাজকল্যাণকর কাজ করে থাকে। তাছাড়া ঔষধ বিতরণ, মৃতের সৎকারের ব্যবস্থাও করে থাকে। ভিক্ষাবৃত্তি, জুয়াখেলা, কিশোর অপরাধ প্রভৃতি প্রতিরোধের ব্যবস্থাও করে থাকে।
১১. উন্নয়নমূলক কাজ : নগরবাসীর জীবন সুখের ও শান্তিপূর্ণ করণের জন্য পৌরসভা সার্বিক উন্নয়ন পরিকল্পনা করে থাকে ।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, উপরোক্ত কাজগুলো পৌরসভা অধ্যাদেশে থাকলেও এর বাইরেও পৌরসভা বেশ কিছু কাজ করে। যেমন- বিচার সংক্রান্ত কাজ, গৃহনির্মাণ সংক্রান্ত বিরোধের মীমাংসা, জন্ম-মৃত্যু, চারিত্রিক, নাগরিকত্ব বিভিন্ন প্রকার সার্টিফিকেট প্রদান ইত্যাদি। এছাড়াও সরকারি নির্দেশেও বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করে থাকে।



পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!