অথবা, আল ফারাবির দর্শনতত্ত্ব আলোচনা কর।
অথবা, দর্শন সম্পর্কে আল-ফারাবির মত ব্যাখ্যা কর। কিভাবে তিনি একে ধর্মতত্ত্বের সাথে সমন্বয়সাধন করেন?
অথবা, আল-ফারাবির পরিচয় দাও। তাঁর দর্শন সম্পর্কিত মতবাদ আলোচনা কর।
অথবা, আল-ফারাবি কে ছিলেন? তাঁর দর্শনতত্ত্ব বর্ণনা কর।
অথবা, দর্শন সম্পর্কে আল-ফারাবির মতবাদ বিশ্লেষণ কর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
মুসলিম দর্শন হল মুসলিম জাতির চিন্তা ও চেতনার ধারা। মুসলিম দর্শনের চিন্তাধারা বিবর্তনের ক্ষেত্রে যে সম্প্রদায় অবর্ণনীয় অবদান রেখেছে তার নাম ফালাসিফা সম্প্রদায় বা দার্শনিক সম্প্রদায়। এ দার্শনিক চিন্ত ↑ধারার শুরু হয়েছিল মূলত আরবীয় দার্শনিক আল-কিন্দি থেকে। আল-কিন্দির পরে যারা মুসলিম দার্শনিক হিসেবে বিশেষভাবে সমৃদ্ধি অর্জন করেছিলেন, তাঁদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলেন আবু নসর আল-ফারাবি
আল-ফারাবির পরিচয় : পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মুসলিম দার্শনিক এবং মুসলিম রাষ্ট্রচিন্তার জনক আবু নসর মুহাম্মদ আল-ফারাবি আব্বাসীয় খেলাফতের সময় ৮৭০ সালে আধুনিক সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্গত তুরস্কের ফারাব প্রদেশের ওয়াজিজ নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর রচনাবলির সংখ্যা প্রায় ৭০টি বলে ধারণা করা হয়। অঙ্কশাস্ত্রে তিনি বিখ্যাত লগারিদম প্রণালী উদ্ভাবন করেন। এছাড়াও সংগীত, জ্যোতিঃশাস্ত্র, আবহাওয়াবিদ্যা, পদার্থবিদ্যা প্রভৃতি জ্ঞানের বিভিন্ন শাখায়ও তাঁর যথেষ্ট দখল ছিল। রাষ্ট্রবিজ্ঞান, সমাজবিজ্ঞান, দর্শন ইত্যাদি বিষয়ে তাঁর অগাধ পাণ্ডিত্য ছিল। এরিস্টটল এর দর্শন দ্বারা প্রভাবিত হয়ে তাঁরই পদ্ধতি অধ্যয়ন করেছেন বলে তাঁকে ‘মোয়াল্লিম সানী’ বা দ্বিতীয় এরিস্টটল বলেও অভিহিত করা হয়। রাষ্ট্রচিন্তায় ফারাবির অবদান বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরব জাতির মধ্যে রাষ্ট্রচিন্তার জনক। তাঁর সময় পর্যন্ত এরিস্টটল এর রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থগুলোর আরবি অনুবাদ হয় । কেবলমাত্র প্লেটোর রিপাবলিক এবং ব্যবহার তত্ত্ব সম্পর্কে আরবরা অবগত ছিলেন। ফারাবি এ দু’টির উপর ভিত্তি করেই রাষ্ট্রবিজ্ঞানের গবেষণা শুরু করেন এবং নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার আলোকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের নতুন ব্যাখ্যা দান করেন। নিম্নে তাঁর রাষ্ট্রচিন্তার বিবরণ দেওয়া হলো :
ফারাবি ১০০টি ছোটবড় গ্রন্থের রচয়িতা। তার মধ্যে পঁচিশটিরও বেশি অস্তিত্ব এখনও বিদ্যমান রয়েছে। এসব গ্রন্থের মধ্যে-

  1. Summary of Politics of Plato,
    ৩. মাদিনাতুল ফাজিলাহ,
    ৫. ইমতিয়ামাতুল মাদানিয়া।
    ২. সিয়াসাতুল মাদানিয়া,
    ৪. যাওয়া মিউস সিয়াসাত এবং
    দর্শন সম্পর্কে আল-ফারাবির দৃষ্টিভঙ্গি : আল-ফারাবি বিভিন্ন বিষয়ে প্রগাঢ় পাণ্ডিত্যের অধিকারী ছিলেন এবং তাঁকে মুসলিম দার্শনিকদের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ দার্শনিক হিসেবে অভিহিত করা হয়। তিনি দর্শন বলতে স্থূলভাবে যুক্ত কয়েকটি বিচ্ছিন্ন বিষয়ের সমষ্টিকে না বুঝিয়ে বরং একটি একক সমগ্র বিষয়কে বুঝিয়েছেন। চিন্তা ও প্রকাশে, যুক্তি ও আলোচনায় এবং ব্যাখ্যা ও বিচার বিশ্লেষণে আল-ফারাবির দৃষ্টিভঙ্গি ছিল খুবই যৌক্তিক ও মৌলিক। আল-কিন্দির দর্শনে যেসব মত স্থূল আকারে প্রকাশিত হয়েছিল সেগুলো আল-ফারাবির দর্শনে সুস্পষ্টরূপে বিকশিত হয়েছিল।
    ১. স্বতন্ত্রিকতা বা মৌলিকত্ব : আল-ফারাবির দর্শনে একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য ও সুস্পষ্ট লক্ষ্য পরিলক্ষিত হয়। তিনি তাঁর পূর্ববর্তী দার্শনিকদের মতামত গ্রহণ করে তাঁর নিজস্ব সাংস্কৃতিক পরিবেশের সাথে সেগুলোর সঙ্গতি বিধান করে এমন এক দার্শনিক মতবাদ গড়ে তোলেন, যার ফলে তাঁর দার্শনিক মতবাদ সুসংবদ্ধ ও সুসংহত রূপ ধারণ করে।
    ২. দর্শন অনুশীলনে লক্ষ্য নির্ণয় : আল-ফারাবি মনে করেন, দর্শন মূলত এমন একটি বিষয়, যার প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে সত্যানুসন্ধান করা। সত্যের অনুশীলন ও অনুসন্ধান করাই যথার্থ দার্শনিকের লক্ষ্য। তাঁর মতে, সত্যনিষ্ঠা ও আত্মার বিশুদ্ধিকরণ দর্শনের অভীষ্ট লক্ষ্য। দর্শন চর্চার প্রধান শর্ত ও লক্ষ্য হল আত্মার পবিত্রতা ও বিশুদ্ধতা লাভ। দর্শন পাঠের জন্য এরূপ বিশুদ্ধিকরণ একান্ত আবশ্যক।
    ৩. সত্যানুসন্ধানী দৃষ্টিভঙ্গি: আল-ফারাবি সত্যের নিষ্ঠাবান সাধক ছিলেন। তিনি দর্শনে কেবল একটি চিন্তাগোষ্ঠী, অর্থাৎ সত্যের চিন্তাগোষ্ঠীর অস্তিত্বে বিশ্বাস করেন। এজন্য তিনি মনে করেন, এরিস্টটলবাদী, প্লেটোবাদী,
    স্টোয়িকবাদী ও এপিকিউরিয়ানবাদী শব্দগুলো কেবল একই দার্শনিক গোষ্ঠীর নামের নির্দেশ করে এবং এগুলো দর্শনের
    একই চিন্তাগোষ্ঠী গঠন করে। আল-ফারাবি মনে করেন, ইতিহাসের প্রতিষ্ঠিত ঘটনাবলির বিপরীতে হলেও একজনকে সত্যের অনুসন্ধানী হওয়া বাঞ্ছনীয়।
    ৪. গ্রিক দর্শনের সাথে সমন্বয় : আল-ফারাবি আল-কিন্দির মত প্লেটো ও এরিস্টটলের দার্শনিক মতের বিচার বিশ্লেষণ করে ইসলামি চিন্তাচেতনার সাথে তার সমন্বয় সাধনের প্রচেষ্টা চালান। তিনি আল-কিন্দির মত এরিস্টটলের ‘Theology’ কে মূল গ্রন্থ হিসেবে গ্রহণ করেন। নব্য প্লেটোনিক পণ্ডিতদের ন্যায় তিনিও প্লেটোর দর্শনকে এরিস্টটলের
    দর্শনের সাথে সমন্বয় করার প্রয়াস পান।
    ৫. দর্শন ও বিজ্ঞান : আল-ফারাবির মতে, দর্শন হচ্ছে সকল সত্তার বিজ্ঞান, যা বস্তুসত্তার স্বরূপের সাথে আমাদেরকে পরিচিত করে তোলে। তিনি মনে করেন দার্শনিক জ্ঞান লাভ করাই মানবজীবনের পরম লক্ষ্য। প্রকৃতির বিভিন্ন বিজ্ঞানের অর্থাৎ সামগ্রিক জ্ঞান তথা সর্বব্যাপ্ত সত্তার স্বরূপ অনুসন্ধানে সুসংহত ও সুসংবদ্ধ প্রচেষ্টাই দর্শন।
    ৬. গাণিতিক ও যুক্তিবিদ্যার জ্ঞান : সত্যানুসন্ধানের জন্য আমাদেরকে গাণিতিক ও যুক্তিবিদ্যার মত বিশুদ্ধ বিষয়ের জ্ঞান থাকতে হবে বলে ফারাবি মনে করেন। প্রাকৃতিক ও মানবিক বিজ্ঞানসমূহের জ্ঞানার্জনের জন্য যুক্তিবিদ্যা ও গণিতশাস্ত্রের শিক্ষার্থীর মতকে মূর্ত থেকে অমূর্ত বিষয়ে অগ্রসর হতে সাহায্য করে। তাছাড়া এটি আমাদেরকে সূক্ষ্ম বিষয়ে
    চিন্তাভাবনা করতেও সাহায্য করে। অনুরূপভাবে যুক্তিবিদ্যা ও শিক্ষার্থীর চিন্তার মধ্যে যে শৃঙ্খলা, অনুক্রম রয়েছে তা সম্পর্কে দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। তাই ফারাবির মতে, দর্শন চর্চার প্রাক প্রস্তুতি হিসেবে গণিত ও যুক্তিবিদ্যার জ্ঞান থাকা একান্ত অপরিহার্য।
    ৭. দর্শন অনুশীলনের পূর্বশর্ত : আল-ফারাবি দর্শন অনুশীলনের পূর্বশর্ত হিসেবে চরিত্র গঠন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন। তাঁর মতে, আত্মোৎকর্ষ ব্যতিরেকে জীবনের গভীর রহস্য উদ্ঘাটন করা অসম্ভব, কেবল বুদ্ধিময় সত্তায় প্রদীপ্ত হতে পারলেই দর্শনের গভীর তত্ত্ব মানুষের চিন্তায় উদ্ভাসিত হতে পারে।
    ৮. চিন্তার যৌক্তিক কাঠামো : আল-ফারাবির উদ্দেশ্য ছিল এমন এক বিষয় উপস্থাপন করা, যাতে করে চিন্তার যৌক্তিক কাঠামো গঠিত হতে পারে। এ লক্ষ্যে তিনি মুতাজিলা এবং ফালাসিফা উভয় গোষ্ঠীর মতবাদ সমালোচনা
    করেন। তাই আল-ফারাবির মতে, আমাদের চিন্তা একটি যৌক্তিক কাঠামোর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। আর এর
    ভিত্তিতে তিনি সত্যানুসন্ধানে ব্রতী হন।
    উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, আল-ফারাবি ছিলেন একজন বুদ্ধিবাদী মুসলিম দার্শনিক। তাঁকে প্রাচ্যের শ্রেষ্ঠ মুসলিম দার্শনিক বলা হয়ে থাকে।পরবর্তী দার্শনিকদের উপর তাঁর প্রভাব গভীর। দর্শনের বিভিন্ন শাখায় তাঁর ছিল অসাধারণ পাণ্ডিত্য। আর এজন্য তিনি মুয়াল্লিম সানী উপাধিতে ভূষিত হয়েছিলেন। তিনি আল্লাহর অস্তিত্ব সম্পর্কে যে
    বিশ্বতাত্ত্বিক যুক্তি প্রদান করেন তা পরবর্তীতে ইবনে সিনা কর্তৃক অনুসৃত হয়। পদার্থ সম্পর্কে তিনি যে মতবাদ ঘোষণা করতেন তা আধুনিক শান্তিবাদের কাছাকাছি। তিনি ছিলেন যুগাতিক্রমী চিন্তানায়ক।
https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%a6%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%a4%e0%a7%80%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%86%e0%a6%b2-%e0%a6%ab%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%be/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!