অথবা, ঈশ্বরের অস্তিত্বের পক্ষে ন্যায় শ্রুতির মত সংক্ষেপে আলোচনা কর।
অথবা, ন্যায় দর্শনে শ্রুতির যুক্তিটি কী?
অথবা, ন্যায় দার্শনিকরা শ্রুতির যুক্তির সাহায্যে কীভাবে ঈশ্বরের অস্তিত্ব প্রমাণ করেন?
উত্তর৷ ভূমিকা ;
ভারতীয় দর্শনের আস্তিক স্কুলসমূহের মধ্যে বস্তুবাদী দর্শন হিসেবে ন্যায়দর্শন স্বাধীন চিন্তা ও বিচারের উপর প্রতিষ্ঠিত এবং এ দর্শনের প্রতিষ্ঠাতা হলেন মহর্ষি গৌতম। ন্যায়দর্শনের মূলভিত্তি হলো ‘ন্যায়সূত্র’। ন্যায়দর্শনের প্রধান আলোচ্যবিষয় হলো জ্ঞানতত্ত্ব, জীবাত্মার স্বরূপ ও যুক্তিতত্ত্ব এবং ঈশ্বরতত্ত্ব। নৈয়ায়িকগণ ঈশ্বরের অস্তিত্বের পক্ষে একাধিক যুক্তি প্রদর্শন করেন। উদয়নাচার্যের ‘ন্যায় কুসুমাঞ্জলি’ গ্রন্থে এ যুক্তিসমূহ উপস্থাপিত হয়েছে। নিম্নে ঈশ্বরের অস্তিত্বের পক্ষে ন্যায় নৈতিক যুক্তি সম্পর্কে আলোচনা করা হলো :
শ্রুতির যুক্তি : “The Sruti bears testimony to the existence of God.” (Chatterjee & Datta; An Introduction to Indian Philosophy) শ্রুতিতে ঈশ্বরের কথা আছে। বেদ, একাধিক উপনিষদ এবং শ্রীমদ্ভাগবত গীতা ঈশ্বর আছেন এ কথা স্পষ্ট ভাষায় ব্যক্ত করেছেন।
১. কৌষিতকী উপনিষদে বলা হয়েছে, ঈশ্বর সকল পুরুষের কর্তা এবং এ জগতের স্রষ্টা।
২. বৃহদারণ্যক উপনিষদে বলা হয়েছে, ঈশ্বর সকলের শাসনকর্তা, পালনকর্তা ও রক্ষাকর্তা।

admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!