অথবা, আল-গাজালি মানবাত্মার ভিত্তি বলতে কি বুঝিয়েছেন?
অথবা, আল-গাজালির মানবাত্মা সম্পর্কিত ধারণা বলতে কী বুঝ?
অথবা, আল-গাজালির মানবাত্মার ভিত্তি কী?
অথবা, আল-গাজালির মানবাত্মা সম্পর্কিত ধারণা সংক্ষেপে তুলে ধর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
খ্রিস্টীয় একাদশ শতাব্দীতে মুসলিম জাহানের এক সংকটময় মুহূর্তে ইমাম আল-গাজালির আবির্ভাব ঘটে । তিনি ছিলেন একজন শ্রেষ্ঠ ও মৌলিক চিন্তাবিদ। তিনি তাঁর দার্শনিক মতবাদে মুসলিম ধর্মতত্ত্বের ইতিহাসে বিকশিত সবগুলো আধ্যাত্মিক মতও পথের নবরূপায়ন ও সংস্কার সাধনের চেষ্টা করেছিলেন। তিনি মানবাত্মার ধারণা
সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন।
মানবাত্মার ভিত্তি : আল-গাজালির মানবাত্মা সম্পর্কিত ধারণা মূলত কুরআন ও হাদিসের মূল শিক্ষার উপরভিত্তি করে গড়ে উঠে। তাঁর আত্মার সম্পর্কিত মতবাদ এবং আল্লাহ্ সম্পর্কিত ধারণা সমান্তরাল। আত্মা আল্লাহর ন্যায়ই একটা ঐক্য এবং তাঁর ন্যায়ই প্রধানত ও মূলত একটি ইচ্ছাশক্তি। আত্মা আল্লাহ্র গুণে প্রতিফলিত স্বর্গীয় স্ফুলিঙ্গের দ্বারা
আলোকিত একটা দর্পণ। আল-গাজালির মতে, “Not only are man’s attributes a reflection of God’s attributes but the mode of existence of man’s soul affords an insight into God’s mode of
existence….! [M. M. Sharif, A History of Muslim Philosophy, Page-620]
অর্থাৎ মানুষের গুণাবলি কেবল আল্লাহর গুণাবলির প্রতিচ্ছবি নয়, এমনকি মানবাত্মার অস্তিত্বের প্রথা বা ধরনও আল্লাহর অস্তিত্বের—- ধরনকে উপলব্দি করার একটি শক্তি প্রদান করে থাকে। আল-গাজালি এ দু’য়ের সম্পর্ক বিষয়ে বলতে গিয়ে বলেন, “Both God and soul are invisible, indivisible, unconfined by space and time, and outside the categories of quantity and quality nor can the ideas of shape, colour, or size attach to them.” [Kimiya-i-Sa’adat (Tras by Claud Field) the Al Chemy of Happiness, P.19]
[অর্থাৎ আল্লাহ ও আত্মা উভয়ই অদৃষ্টিগ্রাহ্য, অবিভাজ্য, দেশ ও কালের সীমাবদ্ধতার ঊর্ধ্বে এর পরিমাণ ও গুণ সম্পর্কিত ‘ক্যাটিগরি’ মুক্ত, আকৃতি, বর্ণ বা আয়তন সম্পর্কিত ধারণা তাদের সাথে সংযুক্ত নয় বা তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ও আরোপযোগ্য নয়।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, আল-গাজালির দার্শনিক পদ্ধতি ছিল বিজ্ঞানভিত্তিক। শুধু তাই নয় তার দর্শন ছিল প্রজ্ঞা ও বুদ্ধির সাথে সংগতিপূর্ণ । আর এ কারণে তার নাম বিশ্ব ইতিহাসে এক উজ্জল জ্যোতিষ্কের ন্যায়। মুসলিম বিশ্বে তার গুরুত্ব অপরিসীম এবং প্রভাব গভীর। মুসলিম সমাজে এককভাবে আল-গাজালির প্রভাব সম্ভবত অন্য যে কোন মুসলিম স্কলাস্টিক ধর্মবিদদের চেয়ে.অনেক বেশি।

https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%9a%e0%a6%a4%e0%a7%81%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a5-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%86%e0%a6%b2-%e0%a6%97%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a6%bf/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!