অথবা, আল কিন্দির “Five Essence” তত্ত্বটি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা কর।
অথবা, আল কিন্দির “Five Essence” তত্ত্বটি সংক্ষেপে লেখ।
অথবা, আল কিন্দির “Five Essence” তত্ত্বটি সম্পর্কে যা জান সংক্ষেপে লেখ।
অথবা, আল কিন্দির “Five Essence” তত্ত্বটি কিরূপ?
উত্তর৷ ভূমিকা :
মুসলিম দর্শনের ইতিহাসে যে কয়েকজন খ্যাতনামা দার্শনিক অসামান্য অবদান রেখে চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন আল কিন্দি তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি প্রথম মুসলিম চিন্তাবিদ যিনি ধর্মতত্ত্বকে ছাড়িয়ে দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে জগৎ ও জীবনের মৌলিক সমস্যা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন। তিনি দর্শনের অন্যতম আলোচ্য ক্ষেত্রে অধিবিদ্যা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে “Five Essence” সম্পর্কে আলোচনা করেন।
Five Essence : আল কিন্দি প্রথম দার্শনিক যিনি মুসলিম চিন্তাধারায় অধিবিদ্যক চিন্তাধারার সূচনা করেন। তিনি সারসত্তা সম্পর্কে তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ “On the Five Essence” এ বিস্তারিত আলোচনা করেন। তাঁর মতে, যে সমস্ত মৌলিক উপাদানসমূহ বস্তু জগতকে নিয়ন্ত্রিত করে, তাই বস্তুর সারসত্তা। তিনি পাঁচটি মৌলিক উপাদানের কথা বলেন।
যথা:
১. জড় (Matter);
৩. গতি (Motion);
২. আকার (Form);
৪. কাল (Time);
৫. দেশ (Space)।
১. জড় (Matter) : আল কিন্দির মতে, জড় হলো গুণের আঁধার। জড়ের মধ্যে গুণ অবস্থান করে, কিন্তু গুণের মধ্যে জড় অবস্থান করে না। অর্থাৎ জড় থাকলেই গুণ থাকবে। যেমন- জড়ের আকার, আয়তন, ওজন প্রভৃতি রয়েছে। জড় যতক্ষণ অস্তিত্বশীল থাকে এর সারসত্তা ততক্ষণ অস্তিত্বশীল থাকে।
২. আকার (Form) : আকার জড়ের অবিচ্ছেদ্য গুণ। জড় বস্তুর আকার থাকবেই। আকার দুই ধরনের। প্রথমত, জড়ের সাথে অবিচ্ছেদ্য; দ্বিতীয়ত এমন আকার যা অন্যান্য গুণের সমন্বয়ে গঠিত। এগুলো দশটি। যথা : দ্রব্য, পরিমাণ, গুণ, সম্বন্ধ, দেশ, কাল, অবস্থান, অবস্থi, ক্রিয়া এবং নিষ্ক্রিয়তা। এগুলো মিলেই জড়ের প্রকৃত আকার গঠিত হয় ও মূর্ত হয়ে উঠে।
৩. গতি (Motion) : আল কিন্দির মতে, গতি ছয় প্রকার। দ্রব্যের মধ্যে সৃষ্টি ও ধ্বংস নামক গতি, পরিমাণের মধ্যে হ্রাস ও বৃদ্ধি নামক গতি, গুণের মধ্যে একটি পরিবর্তন এবং অবস্থানের মধ্যে একটি পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়। এভাবেই তিনি ছয় প্রকার গতির ধারণা ব্যাখ্যা করেন।

  1. কাল (Time) : আল কিন্দির মতে, গতি ও কাল সমধর্মী। কিন্তু গতির মধ্যে বৈচিত্র্য রয়েছে আর কাল শুধুমাত্র একদিকে ধাবিত হয় । খণ্ড কালের সমন্বয়ে আমরা পূর্ণাঙ্গ কালকে জানতে পারি।
    ৫. দেশ (Space) : আল কিন্দির মতে, দেশ হলো দেহের বিভাগের অংশ যা দেহকে বেষ্টন করে রাখে। দেহের স্থানান্তরেও দেশের অবস্থিতি বিদ্যমান থাকে। যাবতীয় বস্তুনিচয় দেশেই অবস্থান করে। দেশ ও কাল অবিচ্ছেদ্য। দেশকে ছাড়া বস্তুর অবস্থান কল্পনা করা যায় না।
    উপসংহার : আল কিন্দি সারসত্তা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে উপর্যুক্ত পাঁচ প্রকার সত্তার কথা বলেছেন। তাঁর এরূপ দার্শনিক আলোচনা পরবর্তী মুসলিম চিন্তাবিদদেরকে প্রভাবিত করে যা অধিবিদ্যক চিন্তাধারা বিকাশে সহায়তা করে। তিনি গ্রিক দর্শন দ্বারা প্রভাবিত হলেও তাঁর দর্শনকে গ্রিক দর্শনের অনুকরণ বলা যায় না।
https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a5%e0%a6%ae-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%86%e0%a6%b2-%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a6%e0%a6%bf/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!