অথবা, আল্লাহ শুধু সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না- দার্শনিক অভিমত সম্পর্কে আল গাজালির প্রতিক্রিয়া আলোচনা কর।
অথবা, আল্লাহ শুধু সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না-দার্শনিক অভিমত সম্পর্কে আল গাজালির প্রতিক্রিয়া ব্যাখ্যা কর।
উত্তর৷ ভূমিকা : একাদশ শতাব্দীতে মুসলিম বিশ্বে যে কয়জন মুসলমান চিন্তাবিদের আবির্ভাব ঘটে তাদের মধ্যে ইমাম আল গাজালি ছিলেন অন্যতম। জ্ঞানের গভীরতায় এবং চিন্তার মৌলিকতায় বিশ্ব ইতিহাসে আল গাজালির নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি ছিলেন অসাধারণ মেধাবী এবং কঠোর অধ্যবসায়ী। তিনি তাঁর মেধা ও মননের সম্পূর্ণ
অংশই ব্যয় করেছিলেন সৎকাজে। জ্ঞান সম্পর্কে ফালাসিফা সম্প্রদায়ের সব দার্শনিকরা প্রায় একই মত পোষণ করেন যে,
আল্লাহ সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না।
আল্লাহ সার্বিককে জানেন, বিশেষকে আনেন না এটা প্রমাণে দার্শনিকদের যুক্তি : জ্ঞান দুই
প্রকার। যথা : সার্বিক জ্ঞান ও বিশেষ জ্ঞান। সামগ্রিকভাবে কোন বিষয় বা বস্তু সম্পর্কে যে জ্ঞান সে জ্ঞান হলো সার্বিক জ্ঞান। আর ঐ বিষয় বা বস্তুর অন্তর্গত প্রত্যেকটি বিষয় সম্পর্কে জানাকে বলা হয় বিশেষ জ্ঞান। আল্লাহ কেবল সার্বিককে জানেন বিশেষকে জানেন না – এটা প্রমাণ করার জন্য দার্শনিকরা নিম্নলিখিত যুক্তির অবতারণা করেন :
১. জগতে যত রকমের বিশেষ জ্ঞান আছে তার সবই পরিবর্তনশীল এবং খণ্ড খণ্ড । জ্ঞানের পরিবর্তনের সাথে সাথে সত্তার মধ্যেও পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। খোদার জ্ঞান পরিবর্তনশীল। কিন্তু তাঁর সত্তার জ্ঞান কখনো
পরিবর্তনশীল নয়। সুতরাং আল্লাহ কেবল সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না।
২. বিশেষ জ্ঞান অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ- এ বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। এ জ্ঞান কালের মধ্যে সীমাবদ্ধ। কিন্তু সর্বশক্তিমান পরম করুণাময় আল্লাহর জ্ঞান কখনো কালের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। তাঁর জ্ঞান অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ হতে পারে না। তিনি সত্যকে জানেন, পরিবর্তনশীল কোন কিছুই জানেন না। সুতরাং আল্লাহ সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না।
৩. আমরা অনেক সময় বলি যে, এ জিনিসটি একরকম ঐ জিনিসটি অন্যরকম। তখন ঐ ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য বস্তুর সাথে একটি সম্পর্ক স্থাপিত হয়। এ সম্পর্কে আল্লাহর পক্ষে সম্পর্কিত হওয়ার কথা কল্পনা করা যায় না। আল্লাহকে
কখনো পরিবর্তনশীল খণ্ড খণ্ড সম্পর্কে বন্দি করা যায় না। তাই তিনি সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না। আল গাজালির সমালোচনা. ইমাম আল গাজালি দার্শনিকদের যুক্তিগুলোকে নিম্নলিখিতভাবে সমালোচনা করেন :
১. গাজালির মতে, দার্শনিকরা যে অভিমত ব্যক্ত করেছেন তা সম্পূর্ণরূপে শরিয়ত পরিপন্থী। তাদের মতবাদ সাধারণ মানুষের কাছেও সন্তোষজনক নয়। এ জগতে যা কিছু ঘটে তার সবকিছুই তিনি জানেন। এ জগতে কে ঈমানদার কে ঈমানদার নয় তার সবকিছুই তিনি জানেন। জগতের এমনকিছু নেই যা তিনি জানেন না। কিন্তু জায়েদ মুসলমান না কাফের তা আল্লাহ জানেন না, এ কথা কখনো বিশ্বাস করা যায় না। আবার আল্লাহ নবুয়ত
সম্পর্কে সবকিছুই জানেন। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স) নবুয়ত লাভ করেছেন। এটা তিনি জানেন না— এ কথাও কখনো বিশ্বাস করা যায় না। জগতের যাবতীয় নবীদের জীবন বৃত্তান্ত সম্পর্কে তিনি জানেন না- এ কথাও বিশ্বাস করা যায় না। কিন্তু দার্শনিকদের যুক্তি অনুসারে আল্লাহ সার্বিককে জানেন,।বিশেষকে জানেন না। সুতরাং আল্লাহ সার্বিক ও বিশেষ উভয়কেই জানেন।
২. গাজালির মতে, সত্য কখনো পরিবর্তন হতে পারে না। আল্লাহ সবসময় সত্য মিথ্যা জানেন। তাঁর জ্ঞানে কখনো পরিবর্তন হয় না। তিনি সত্য জ্ঞান অর্জন করেন, আবার বিশেষ বিশেষ জ্ঞানও অর্জন করেন। সুতরাং বিশেষ
জ্ঞান কখনো সত্তার পরিবর্তন করতে পারে না।
৩. গাজালি বলেন, পরম করুণাময় সৃষ্টিকর্তা এবং মানুষের জ্ঞান এক রকম নয়। মানুষ ের সার্বিক জ্ঞান সব অনিশ্চিত ও সীমিত, অফুরন্ত নয়। আবার মানুষের বিশেষ জ্ঞানও অনিশ্চিত। তবে এ জ্ঞান এক এক সময়ে এক
এক রকম হয়ে থাকে। কিন্তু পরম করুণাময় আল্লাহর জ্ঞান অফুরন্ত, তাঁর জ্ঞান কখনো সীমাবদ্ধ নয়। তিনি যা কিছু জানেন সম্পূর্ণভাবেই জানেন। তাঁর সার্বিক জ্ঞান ও মানুষের সার্বিক জ্ঞানের মধ্যে কখনো তুলনা করা যায় না। সুতরাং আল্লাহর সত্তার কখনো পরিবর্তন হয় এটা বলা যায় না।
৪. গাজালির মতে, একজন ব্যক্তি একবার ডানে, একবার বামে এবং একবার সামনের দিকে অগ্রসর হতে পারে। আমার কাছে ঐ ব্যক্তির সম্পর্ক পরিবর্তন হয়, কিন্তু আমার নিজের কখনো পরিবর্তন হয় না। জ্ঞাতার
পরিবর্তনের সাথে জ্ঞানের পরিবর্তনের যে সম্পর্ক তা কখনো আবশ্যিক সম্পর্ক হতে পারে না। তাই আল্লাহর জ্ঞান পরিবর্তিত হলেও তাঁর স্বজ্ঞার জ্ঞান কখনো পরিবর্তন হয় না।
সমালোচনা : আল্লাহ কেবল সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না – দার্শনিকদের এ যুক্তি কখনো গ্রহণযোগ্য নয়। পবিত্র কুরআন শরীফে বর্ণিত আছে যে, আল্লাহ সার্বিক এবং বিশেষ সবকিছুই জানেন। ইসলামি শরিয়ত অনুযায়ী আল্লাহকে সব বিষয়ে জ্ঞানী বলে মেনে নেয়া হয়। এ জগতের কোন কিছুই আল্লাহর জ্ঞানের বাইরে নয়। পবিত্র কুরআনে আরো বর্ণিত আছে যে “তুমি কি জান না যে, আকাশ ও পৃথিবীতে যা কিছু রয়েছে আল্লাহ তা অবগত রয়েছেন।” মানুষের
যত রকমের গোপন তত্ত্ব আছে সবকিছুই তিনি জানেন। তিনি জানেন না এমন কিছুই নেই।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে দার্শনিকরা বলেন যে, আল্লাহ সার্বিককে জানেন, বিশেষকে জানেন না। এ কথা ঠিক নয়। আল্লাহ সার্বিক ও বিশেষ সবকিছুই জানেন। তিনি মানুষের জ্ঞান সম্পর্কে জানেন না, এটা কখনো কল্পনা করা যায় না। সুতরাং আল গাজালি বলেন আল্লাহ সার্বিককে জানেন, বিশেষকেও জানেন।

https://topsuggestionbd.com/%e0%a6%9a%e0%a6%a4%e0%a7%81%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a5-%e0%a6%85%e0%a6%a7%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%86%e0%a6%b2-%e0%a6%97%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%be%e0%a6%b2%e0%a6%bf/
admin

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!